ঢাকাThursday , 1 February 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পাকিস্তানি স্ত্রী’র যৌতুক মামলায় জামিন পেলেন হবিগঞ্জের সাজ্জাদ হোসেন মজুমদার

Link Copied!

পাকিস্তানি স্ত্রী ‘মাহা বাজোয়া’ এর দায়ের করা যৌতুক মামলায় জামিন পেয়েছেন সাজ্জাদ হোসেন মজুমদার নামে এক ব্যক্তি। তিনি চুনারুঘাট উপজেলার উত্তর বাজার বড়াইলের বাসিন্দা। বুধবার (১ জানুয়ারী) দুপুরে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমল আদালত-২ এর বিচারক রাহেলা পারভীন এ আদেশ দেন।

এর আগে গত ১২ ডিসেম্বর বিকেলে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাহেলা পারভীনের আদালতে স্বামী সাজ্জাদ হোসেন মজুমদারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন পাকিস্তানি স্ত্রী ‘মাহা বাজোয়া’। বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করার নির্র্র্র্র্দেশ প্রদান করেন।

তবে পাকিস্তানি স্ত্রীর দায়ের করা মামলায় কোন বৈধতা নেই এবং টাকা হাতিয়ে নেয়ার উদ্দেশ্যে মামলা দায়ের করেছেন বলে জানিয়েছেন মামলার বিবাদী ভুক্তভোগী স্বামী সাজ্জাদ হোসেন মজুমদার। বিবাদীর আইনজীবি আব্দুর রাজ্জাক অনু জানান, নিকাহনামা ঘষামাঝা করে মোহরানার পরিমান বাড়িয়ে তিনি প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছেন। আমরা নিকাহনামার মূল কপি আদালতে দাখিল করেছি। মূলতঃ এর অনেক আগেই পাকিস্তানি স্ত্রী ‘মাহা বাজোয়া’ কে আইনী পক্রিয়ার মাধ্যমে তালাক দিয়েছেন ভুক্তভোগী স্বামী সাজ্জাদ হোসেন মজুমদার।

সিআইডিসহ সকল সংস্থার তদন্তে বিষয়টির সত্যতা উঠে এসেছে। তাদের সংসারে কোন সন্তান জন্ম নেয়নি। স্ত্রী ‘মাহা বাজোয়া’র কন্যা সন্তান জান্নাত সাজ্জাদ হোসেন মজুমদারের না। উল্লেখ্য, পাকিস্তানের লাহোর প্রদেশের মুলতান রোডের সাকি স্ট্রিট সৈয়দপুরের বাসিন্দা মকসুদ আহমেদের মেয়ে মাহা বাজোয়ার সঙ্গে দুবাইয়ে ১০ বছর আগে চুনারুঘাট উপজেলার উত্তর বাজার বড়াইলের সফিউল্লা মজুমদারের পুত্র সাজ্জাদ হোসেন মজুমদারের পরিচয় হয়।

পরে তারা বিয়েও করেন। বিয়ের পর মাহা বাজোয়া ও সাজ্জাদ দুবাই, পাকিস্তান ও বাংলাদেশে বিভিন্ন সময়ে অবস্থান করেন। ২০১৮ সালে মাহা সাজ্জাদের বাড়িতে কয়েক মাস অবস্থান করেন। পরে মাহা বাজোয়া পাকিস্তানে চলে যাওয়ার পর স্বামীর সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখেন।