ঢাকাসোমবার , ২৩ জানুয়ারি ২০২৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নানা সমস্যায় জর্জরিত চুনারুঘাটের খেতামারা আশ্রয়নের বাসিন্দারা

মুহিন শিপন
জানুয়ারি ২৩, ২০২৩ ৯:১২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নানান সমস্যায় জর্জরিত চুনারুঘাট উপজেলার খেতামারা আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দারা দুর্বিষহ জীবন যাপন করছেন। দুইবছরেও ঘর গুলোতে দেওয়া হয়নি বিদ্যুৎ সংযোগ। রাস্তা, এবং কালভার্ট না থাকায় বর্ষাকালে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তাদেরকে।

এছাড়াও প্রভাব বিস্তার, দুই পক্ষের মামলা চালা-চালি সহ বহিরাগতের উৎপাতে অতিষ্ঠ তারা। বরাদ্দপ্রাপ্তদের অধিকাংশই ছেড়ে গেছেন আবাসন। সেইসাথে আছে অন্যের কাছে ঘর ভাড়া দেয়া ও বিক্রির অভিযোগও।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, খেতামারা আশ্রয়ন প্রকল্পের ১২০ টি ঘরের মধ্যে ৫০টি ঘরের দরজাতে তালা লাগানো। এখানকার বাসিন্দারা জানান, এই ঘরগুলো বরাদ্দ পাওয়ার পর কেউ কেউ একদিনের জন্যও এখানে আসেননি।

আর বাকিরা অল্প কিছুদিন থাকলেও বিদ্যুৎ না থাকা, চলাচলের অসুবিধা এবং মামলা-হামলার ভয়ে ছেড়ে গেছেন আশ্রয়ন। যারা আছেন তাদের কেউ কেউ একাই দখলে নিয়েছেন একাধিক ঘর। কেউ আবার নিজের বরাদ্দের ঘর ছেড়ে দখলে নিয়েছেন অন্যের ঘর।

আশ্রয়নের ৬ নং ঘরের বাসিন্দা জাহিদুল হক জানান, এখানে রাস্তার অসুবিধা, তাছাড়া দুইটা নালাও (খাল) আছে। বর্ষাকালে এখান দিয়ে আসা-যাওয়া করা যায় না। এছাড়াও বিদ্যুৎ না থাকায় গরমকালে খুব কষ্ট করে থাকা লাগে।এ কারনে সবাই এখানে থাকেনা।

২৪ নং ঘরের বাসিন্দা রফিকুন্নেছা জানান, ২০ নং ঘরের বাসিন্দা আব্দুল খালেক ২ টি ঘর দখলে নিয়েছেন। তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ তারা। তার পরিবারের সদস্যদেরকে এই পর্যন্ত ৪ টি মামলাতে জড়িয়েছে সে।
ফয়সল মিয়া নামে আরেক ব্যক্তি জানান, খালেক মিয়া অকারনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে তাদেরকে হেনস্তা করছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০ নং ঘরের বাসিন্দা আব্দুল খালেকের চুনারুঘাট পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডে ৭ শতাংশ জমিও রয়েছে।

মামলার বিষয়ে আব্দুল খালেক বলেন, আমি কাউকে হয়রানি করার জন্য মামলা করিনি। সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে আমি মামলা দায়ের করেছি।

জমি থাকার বিষয়টি স্বীকার করে আব্দুল খালেক বলেন, আমার এবং আমার স্ত্রীর পেনশনের টাকা দিয়ে ৭ শতাংশ জমি ক্রয় করেছিলাম। এই জমি নিয়ে আদালতে মামলা চলমান আছে। এটি আমি ভোগ করতে পারতেছিনা।

এছাড়াও তিনি জানান, ২ বছর ধরে আশ্রয়নে থাকলেও এখন পর্যন্ত বন্দোবস্ত পাননি বাসিন্দারা ।
তাছাড়াও রমিজ মিয়া, আহাদ মিয়া এবং মদরিছ মিয়া নামে আপন ৩ ভাইয়ের আশ্রয়নে কোন ঘর বরাদ্দ না থাকলেও তারা ৩ টি ঘর দখলে নিয়ে বসবাস করছেন ।

আশ্রয়নের অল্পদুরেই রয়েছে তাদের আধপাকা বাড়ি। এ বিষয়ে রমিজ মিয়া বলেন, আমার বাবার সম্পত্তি থেকে আমরা ৩ ভাই প্রত্যেকে ১ শতাংশ করে মোট ৩ শতাংশ জমি পেয়েছি। যা আমাদের ৩ জনের জন্য পর্যাপ্ত না। তাই আমার মায়ের নামে ১ টি ঘর বরাদ্দ নিয়ে আশ্রয়নে থাকতেছি।

৯ নং গাজিপুর ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের সদস্য তারেকুর রহমান তুষার বলেন, এখানে অধিকাংশ গরীব মানুষই আসেন থাকার জন্য, কিন্তু কতিপয় ব্যক্তির অত্যাচারে আশ্রয়ন ছেড়ে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। এছাড়াও এখানে কালভার্ট ও বিদ্যুত না থাকায় আশ্রয়ন ছেড়ে গেছেন অনেকে।

এ বিষয়ে চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিদ্ধার্থ ভৌমিক ক্যামেরার সামনে কথা বলতে রাজি হননি।
একই বিষয়ে বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মোঃ মাহবুব আলী এমপি বলেন, আমি আজকেই জিএমের সাথে কথা বলবো যাতে দ্রুততম সময়ের মাঝে সেখানে (আশ্রয়ন) বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়।

এছাড়াও আমি কিছুদিন আগে সেখানে এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলীকে পাঠিয়েছিলাম দেখে আসার জন্য ওইখানে একটি স্কুলও আছে যাতে এই রাস্তাটি জরুরি ভিত্তিতে পাকাকরণ করা হয় ।

এ সময় আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দাদের নামে বরাদ্দকৃত ঘরের বন্দোবস্তের বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারকে নির্দেশনাও দেন তিনি।

উল্লেখ্য, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্পের আওতায় চুনারুঘাট উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের খেতামারা গ্রামে প্রায় ৫ একর জমির উপর ২৪টি ব্যারাক নির্মান করা হয়।

সেনাবাহিনীর ১৭ পদাতিক ডিভিশনের ৩৬০ পদাতিক ব্রিগেডের ১৩ ইষ্টবেঙ্গল রেজিমেন্ট এসব ব্যারাক নির্মান করে ২০২১ সালের ২৪ জানুয়ারি উপজেলা প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করে।

প্রতিটি ব্যরাকে ৫টি করে ২৪টি ব্যারাকে ১২০টি ঘর, বিশুদ্ধ পানি ও পয়ঃনিষ্কাশনের জন্য প্রত্যেকটি ব্যারাকের জন্য আলাদা আলাদা টয়লেট ও ব্যারাক প্রতি দুটি টিউবওয়েল নির্মান করা হয়।

Developed By The IT-Zone