ঢাকাসোমবার , ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জে জমি আত্মসাতের অভিযোগ : প্রতিবাদ করায় প্রাণনাশের হুমকি : অভিযোগ দায়ের

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২১ ৪:৪১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

 মোফাজ্জল ইসলাম সজীব, নবীগঞ্জ।। নবীগঞ্জে জোর করে জবর দখল করে রেখে সম্পত্তি আত্মসাৎ করে রেখেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই অভিযোগে সোমবার (৮ ফেব্রুয়ারি)  নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন আহমেদ বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন জমির মালিক আঈদ আলী।
অভিযোগ দায়ের করার পর জমির মালিককে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে প্রতিপক্ষের লোক রুবেল মিয়া । উপজেলার ১২ নং কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ড রাণী গাঁও ও রামপুর এলাকায় এ হুমকির এ ঘটনা ঘটে ।
জমির মালিক আঈদ আলী  মিয়া জানান, সৈয়দ পুর মৌজা  এলাকায় এক দাগে তার বাবার ৮৯  শতাংশ জমি ছিল বর্তমানে ও আছে  । আঈদ আলী আরও  জানান ,রাণীগাঁও গ্রামের আছমত মাস্টারের  ছেলে রুবেল মিয়া (৪০) আমারে হুমকি ধামকি দিয়ে দির্ঘদিন ধরে জবর দখল করে রেখেছে। একপর্যায়ে পুকুর বানিয়ে মাছ চাষ করছে রুবেল ।  অথচ তার কোন কাগজপএ নেই। জমি জবরদখলে রেখেছে। বাস্তবে তার কোন অস্তিত্ব নেই।
অন্যদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরেক ভুক্তভোগী বলেন নবীগঞ্জ -হবিগঞ্জ রোডের মিলনগঞ্জ বাজার এলাকায় আমি ক্রয় সুএে মালিক। ২০ বছর যাবৎ জমি আমি ভোগ করে আসছি। এই আছমত মাস্টারের ছেলে রুবেল মিয়া ভুয়া দলিল তৈরী করে জোরপূর্বক ভাবে আমার জমি ভোগ করে আসছিল। কিন্তু অনেক দিন বিচার শালিস করে টাকার মাধ্যমে জায়গাটা ফেরত পেয়েছি।

ছবি : বহু অপকর্মের হোতা রুবেল এর ফাইল ছবি

৯ নং ওয়ার্ডের ভুক্তভোগী রঞ্জন শীল জানান, মিলনগঞ্জ বাজারে ৩০ বছর যাবৎ আমার নিজ ভিটায় আমি সেলুনের কাজ করছি। ইদানিং আমার দোকান সুবিধা না হওয়ায় দালান ঘর নতুন করে তৈরি করি ।এসময় রুবেল মিয়া আমি ঘর নির্মাণ না করতে বাঁধা দেয় এবং ১ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। আমি হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ ।গরীব অসহায় হয়ে হবিগঞ্জ (জেলা লিগ্যাল এইড অফিসারের মুহাম্মদ আলী আক্কাস (সিনিয়র সহকারী জজ) হবিগঞ্জ উনার কাছে অভিযোগ দায়ের করি। মুহাম্মদ আলী আক্কাস, রুবেল মিয়া কে ডেকে নিয়ে রুবেল মিয়া ও ১২ নং কালিয়ার ভাঙ্গা ইউনিয়ন বর্তমান চেয়াম্যান নজরুল ইসলাম এর মাধ্যমে মুচলেকা নিয়ে তাদেরকে ছেড়ে দেন।
 এই জমি নিয়ে একাধিকবার গ্রাম্য সালিশ বৈঠক হয়েছে। সেখানে সালিশ বৈঠকের বিচারকরা উভয় পক্ষের কাগজপত্রাদী দেখে জমির মালিক  আঈদ আলী  মিয়ার পক্ষেই রায় দেন। কিন্তু  রুবেল গংরা  গ্রাম্য সালিশ বৈঠকে বিচারকদের কথা না মেনে পরে জমি আর ফেরত দেয়নি। তার রয়েছে ক্ষমতাধর সন্ত্রাসী বাহিনী ও অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার। তাই ভয়ে মুখ খুলতেও পারেন না আঈদ আলী । তিনি আরো জানান, তিনি ছোট থাকতেই তার বাবা মফিজ উল্লাহ মারা যান। মারা যাওয়ার কিছু দিন পর তার বাবার সম্পত্তি দুই ভাই মিলে ভোগ করে আসছেন।বিগত ২০১৫ সালে ভয়ভীতি  দেখিয়ে জোরপূর্বক দখলে নেয়। আর সে সময় আঈদ আলী  ও তার ভাই ছেলেরা  ছোট ছোট থাকায় এর প্রতিবাদ করতে পারেনি। রুবেল এলাকায় খুব প্রভাবশালী । গত বছরের বৈশাখ মাসে আঈদ আলী তার ভাই  জমির কাগজপত্র নিয়ে বিবাদী পক্ষকে বসতে বলেন এবং কাগজপত্র মূলে যদি তারা জমি প্রাপ্য হন তবে তাদের প্রাপ্য জমি বুঝিয়ে দিতে বলেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রুবেল মিয়াসহ তার লোকজন গালিগালাজ শুরু করেন। ও সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয় দেখিয়ে তাদেরকে তাড়িয়ে দেন।  এতে তারা প্রতিবাদ করলে আঈদ আলীকে প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করে এবং ধারালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা  করে।

ছবি : উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে রুবেল এর বিরুদ্ধে দায়ের করা অভিযোগের কপি

এ ঘটনায় নবীগঞ্জ  থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করতে গেলে বিচার শালিসানরা ফিরিয়ে নিয়ে আসেন আঈদ আলী কে । ৯নং বাউসা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মৌলানা নজরুল ইসলাম, নোয়াপাড়া গ্রামের বিচারক মরম আলী, ও রাজাবাদ গ্রামের নীল মনি, দুলাল মিয়া আমার হবিগঞ্জ কে জানান, এ বিষয়ে আমরা অনেক বার বিচার ও নিষ্পত্তি স্বার্থে চেষ্টা করেছি এবং ব্যর্থ হয়েছি। ১২ নং কালিয়ার ভাঙ্গা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম ও ব্যর্থ হয়েছেন বলে জানান। অভিযুক্ত রুবেলের কাছে হুমকি বিষয়ে জানতে চাইলে তার ব্যবহৃত নাম্বারে বারবার রিং দিলেও তিনি ফোন ধরেন নি। অভিযোগের বিষয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে জানতে চাইলে তার ব্যবহৃত নাম্বারটি ব্যস্ত থাকায় তা সম্ভব হয়নি।

Developed By The IT-Zone