ঢাকারবিবার , ২০ নভেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জে ইটভাটায় কয়লার বদলে পোড়ানো হচ্ছে কাঠ

মোফাজ্জল ইসলাম, সজীব
নভেম্বর ২০, ২০২২ ৪:১৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পরিবেশ আইনের তোয়াক্কা না করে হবিগঞ্জ জেলায় কয়লার বদলে ইটভাটায় কাঠ পোড়ানো হচ্ছে। মৌসুমে একেকটি ভাটায় কয়েক হাজার মণ লাকড়ি লাগে। নবীগঞ্জ উপজেলার কালিয়ার ভাঙ্গা ইউনিয়নের মিলনগঞ্জ বাজারের পাশে ভাটায় কাঠ পোড়াতে দেখা গেছে।

পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র লাইসেন্স আছে বললেও , নবীগঞ্জ উপজেলায় অসংখ্য ইটভাটা রয়েছে , এরই মধ্যে ভাটার বৈধতা থাকলেও , যারা শুধু কাঠ দিয়ে ইট পোড়াচ্ছে। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ,এম এইচ বি ব্রিকস ফিল্ড। আরো কয়েকটি ভাটা রয়েছে, যেখানে কাঠ-কয়লা দুটিই পোড়ানো হচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কিবরিয়া ব্রিকস ফিল্ড নামের এক ব্যক্তি কয়েক বছর আগে নিজের নামে ভাটাটি গড়ে তোলেন।৷ এর কিছু দিন পর সিলেটের এক ব্যক্তির কাছে ব্রিকস ফিল্ড টি বিক্রি করে দেন বর্তমান ব্রিকস ফিল্ড টি, এম বি এইচ নামেই পরিচিত ।

ভাটার সঙ্গে যুক্ত এক ব্যক্তি নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, প্রতিবছর এ ভাটায় ২৪–২৫ লাখ ইট পোড়ানো হয়। এক লাখ ইট পোড়াতে দুই হাজার মণ কাঠ লাগে। সে হিসাবে, ৪৮ থেকে ৫০ হাজার মণ কাঠের প্রয়োজন হয়।

ছোট ছোট কাঠ ব্যবসায়ীর মাধ্যমে বিভিন্ন এলাকা থেকে এসব কাঠ সংগ্রহ করে ইটভাটা কর্তৃপক্ষ। ভাটাটিতে এ বছরের শুরু থেকেই কাঠ পোড়ানো হচ্ছে। ভাটা চালুর আগেই চারপাশে কাঠ স্তূপ করে রাখা হয়েছিল।

সম্প্রতি সরেজমিনে উপজেলার মান্দার কান্দি গ্রামের আলমগীর মিয়া বলেন, এই ব্রিকসে পাশেই তার বাড়ি কাছেই রয়েছে তার ধানি ফসলী জমি ইটভাটার কালো ধোঁয়ার কারণে তার বাড়ি ঘরের পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে ভাটার চারঁপাশে সাজানো কয়েক শ মণ লাকড়ি দেখা গেল।

বড় বড় গাছ কেটে তৈরি করা হয়েছে এসব লাকড়ি। ইটভাটার চুল্লিতে দাউ দাউ করে পুড়ছে কাঠগুলো। এ ভাটায় বছরে পোড়ানো হয় প্রায় ৫০ হাজার মণ কাঠ।একই চিত্র উপজেলার আরও অনেক ইটভাটায় দেখা গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভাটাসংশ্লিষ্ট কয়েকজন জানান, এম বি এইচ ব্রিকস নামের এ ভাটায় প্রতিবছরই কাঠ পোড়ানো হয়। কাঠই এই চিমনির প্রধান জ্বালানি। ভাটায় কয়লা পোড়ানোর কথা থাকলেও এখানে কাঠই পোড়ানো হচ্ছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের ভাষ্য, এ ভাটায় কাঠের জোগান আসছে আশপাশের এলাকার গাছপালা থেকে।

ভাটায় কাঠ পোড়ানোর বিষয়টি স্বীকার করেছেন, এম বি এইচ ইটভাটার ম্যানেজার সেলিম আহমেদ এর দাবি কাঠ গুলো তাদের রান্না করার কাজে লাগে বলে জানান।

ভাটার এক ব্যক্তি বলেন কয়লার মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় অনেকে কাঠ পোড়াতে বাধ্য হচ্ছেন। যে হারে কয়লার দাম বেড়েছে, সে হারে ইটের দাম বাড়েনি। এর ফলে কাঠ পুড়িয়ে খরচ সমন্বয় করছেন।

এ অবস্থায় কয়লা পোড়ালে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে হবে, যে কারণে কাঠ পোড়াচ্ছেন। কাঠ পোড়ানো আইনত অপরাধ, বিষয়টি জেনেও পোড়াচ্ছেন তিনি। জানালেন, সব ইটভাটাতেই কাঠ পোড়ানো হচ্ছে, তাই তিনিও পোড়াচ্ছেন।

এ ব্যাপারে পরিবেশ অধিদপ্তর হবিগঞ্জ জেলার উপ-পরিচালক মিজানুর রহমান জানান, ইটভাটায় কয়লার বদলে কাঠ পুড়ানোর নির্দেশ নেই, যদি কোথাও কাঠ পুড়ানো হয় তথ্য দিয়ে সাহায্য করবেন, আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। দ্রুতই এসব ভাটায় তাঁরা অভিযানে যাবেন।

এ বিষয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান শাহরিয়ার মুঠোফোনে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে বলেন, যেসব ইটভাটায় কাঠ পোড়ানো হচ্ছে, তাদের বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Developed By The IT-Zone