ঢাকাSaturday , 10 February 2024

নবীগঞ্জে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলনের অভিযোগ ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে

হাসান চৌধুরী
February 10, 2024 11:29 am
Link Copied!

নবীগঞ্জে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ফসলি জমি থেকে মাটি কাটা মহা উৎসব চলছে। ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ খালেদুর রহমান খালেদ ফসলি জমি থেকে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছেন তার মালিকানা গোল্ড ব্রিকফিল্ডে।

নবীগঞ্জ উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে এক্সেবেটার ও শ্রমিক দিয়ে আবাদি জমির উপরিভাগের মাটি কেটে শতাধিক ট্রাক্টর দিয়ে নেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন ইটভাটায়।

এভাবে নির্বিচারে জমির মাটি কাটার ফলে আবাদি জমির উৎপাদন হ্রাস পাচ্ছে, নষ্ট হচ্ছে মাটির জৈব গুণাগুণ। নিচু হয়ে যাচ্ছে কৃষিজমি। ভারসাম্য হারাচ্ছে পরিবেশ।

অবৈধ মোনাফার জন্য এসব কাজে সহযোগিতা করচ্ছেন জনপ্রতিনিধি, সরকার দলীয় রাজনৈতিক নেতারা। নবীগঞ্জ উপজেলার এনাতাবাদ,বাংলা বাজার,রতনপুর গ্রামের ফসলি জমি থেকে নেওয়া হচ্ছে গোল্ড ব্রিকফিল্ডে মাটি।

এসব ভাটার চাহিদা মেটাতে ফসলি জমি থেকে নির্বিচারে আবাদি জমির উপরিভাগের মাটি কাটা হচ্ছে। ইটভাটা বাড়ার সঙ্গে বেড়েছে ইটের চাহিদা। ভাটার মালিকরা হয়েছেন বেপরোয়া।

অভাবী জমির মালিকদের অর্থের লোভে ফেলে তারা কেটে নিচ্ছে আবাদির জমির মাটি। অবাধে মাটি কাটার ফলে এসব ইউনিয়নের আবাদি জমি নিচু হয়ে গেছে। সচেতন মহলের ভাষ্য, এভাবে জমির মাটি কাটা অব্যাহত থাকলে একসময় কৃষিতে বিপর্যয় দেখা দেবে। কমে যাবে আবাদি জমির পরিমাণ।

জমি হতে কেটে নেয়া মাটি দিয়ে ভরাট করা হচ্ছে কোটি কোটি টাকার জায়গা,সরবরাহ করা হচ্ছে বিভিন্ন ইটভাটায়। এতে জমির উর্বরতা নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি পরিবেশের ভারসাম্যও হুমকির মুখে পড়েছে। পরিবেশ আইন অনুযায়ী কৃষিজমির মাটি কাটা দন্ডনীয় অপরাধ।

জানা যায়, পরিবেশ সংরণ আইন ১৯৯৫ (সংশোধিত ২০১২ এর ৬ ধারায়) অনুযায়ী, প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্ট টিলা ও পাহাড় নিধন সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

অন্যদিকে ১৯৮৯ সালের ইট পোড়ানো নিয়ন্ত্রণ আইন (সংশোধিত ২০০১) অনুযায়ী, কৃষি জমির টপ সয়েল বা উপরিভাগের মাটি কেটে শ্রেণি পরিবর্তন করাও সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ রয়েছে।

দুই আইনে শাস্তির বিধান একই রকম। এসব কাজে জড়িত ব্যক্তিদের দুই লাখ টাকার জরিমানা ও দুই বছরের কারাদন্ড দেওয়ার বিধান রাখা হয়েছে। একই কাজ দ্বিতীয়বার করলে দায়ী ব্যক্তির ১০ লাখ টাকা জরিমানা ও ১০ বছরের কারাদন্ড হবে।

এ ক্ষেত্রে এ কাজের সঙ্গে জড়িত জমি ও ইটভাটার মালিক উভয়ের জন্যই সমান শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ খালেদুর রহমান খালেদ বলেন,আমি আমার মালিকানা জমি থেকে মাটি কেটে জমির উর্বরতা ঠিক করছি। তাই আমার জমির মাটি আমি আমার । ব্রিক ফিল্ডে নিচ্ছি।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহীন দেলোয়ার বলেন,ফসলি জমি থেকে মাটি কেটে ইটভাটায় নেওয়ার কোন বিধান নেই। আমি অভিযোগ পেয়ছি। দ্রুত আইনানুক ব্যবস্থা গ্রহণ করব।