ঢাকাশনিবার , ১৮ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জে অতিবৃষ্টিতে নিম্নাঞ্চল তলিয়ে যাওয়ার আশংকা

সলিল বরণ দাশ,নবীগঞ্জ
জুন ১৮, ২০২২ ৯:৩৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

উজানের পাহাড়ি ঢল ও টানা বৃষ্টিতে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জের কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। এ অবস্থায় নদী তীরবর্তী মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। যেকোনও সময় পানিতে তলিয়ে যেতে পারে সাধারণ মানুষের ভিটেমাটি। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে আউশকান্দি ইউনিয়নের পারকুল গ্রামে অবস্থিত কুশিয়ারা নদী ঘেঁষা বিবিয়ানা ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

ইতোমধ্যে কুশিয়ারা নদীঘেঁষা জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের মাধবপুর, পশ্চিম মাধবপুর ও গালিমপুর বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। ওই সব এলাকার বাড়িঘরে পানি উঠেছে।

জানা গেছে, টানা বৃষ্টি ও উজানের পাহাড়ি ঢলে কুশিয়ারাসহ অন্যান্য নদ-নদীর পানি ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে কুশিয়ারার তীরবর্তী দীঘলবাক ইউনিয়নের রাধাপুর, ফাদুল্লাহ, পাহাড়পুর,পারকুল, দুর্গাপুরসহ বেশ কয়েকটি গ্রাম পানিতে তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। যেকোনও সময় কুশিয়ারার পানি বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ উপচে লোকালয়ে প্রবেশ করতে পারে।

টানা বৃষ্টি ও কুশিয়ারা নদীর পানি বাড়ায় নবীগঞ্জের বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চারপাশ ও আসা যাওয়ার সড়কগুলো পানিতে তলিয়ে গেছে। এখন স্কুলগুলোতে নৌকা ছাড়া যাতায়াত করা যায় না। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জন্য হাওরে যাতায়াত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

দীঘলবাকের মাধবপুর গ্রামের সাইফুল ইসলাম বলেন- বাড়িঘরে-পানি উঠেছে। দ্রুতই পানি বাড়ছে। আবার বৃষ্টিপাতও অব্যাহত রয়েছে।

দীঘলবাক ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আকুল মিয়া বলেন, কুশিয়ারা নদীর পানি বেড়ে মাধবপুর, পশ্চিম মাধবপুর, গালিমপুর, গ্রামে পানি প্রবেশ করেছে। অনেকের ঘর-বাড়িতে পানি প্রবেশ করায় মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

হবিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মিনহাজ আহমেদ শোভন বলেন, ‘টানা বৃষ্টি ও উজানের ঢলে কুশিয়ারা নদীর পানি দ্রুত বাড়ছে। বর্তমানে বিপৎসীমার ৬৯ সেন্টিমিটার নিচে দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। রাতেই কুশিয়ারা নদীর পানি বিপসীমা অতিক্রম করতে পারে বলে জানান তিনি।

নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন বলেন, ‘আমরা সতর্ক অবস্থানে রয়েছি। কুশিয়ারা নদীর নবীগঞ্জ অংশে পানি বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের প্রায় কাছাকাছি রয়েছে, ক্রমাগত কুশিয়ারার পানি বাড়ছে, যেকোনও সময় লোকালয়ে পানি প্রবেশ করতে পারে।’

Developed By The IT-Zone