ঢাকারবিবার , ১৬ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জের শহর ও গ্রামগুলোতে জমে উঠেছে গরম কাপড়ের বাজার

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি
জানুয়ারি ১৬, ২০২২ ৩:২৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

শীত জেঁকে বসায় নবীগঞ্জের সর্বত্র নিম্ন আয়ের মানুষের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। সন্ধ্যা থেকে পরদিন সকাল ১০টা পর্যন্ত ঘন কুয়াশায় ঢাকা থাকছে প্রকৃতি। গত কয়েক দিনের শৈত্যপ্রবাহের কারণে বেড়েছে ঠান্ডা। হিমেল হাওয়ায় ঠান্ডাজনিত রোগে শিশু ও বয়স্কদের দুর্ভোগ বেড়েছে।

এদিকে, শৈত্যপ্রবাহসহ শীতের তীব্রতা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পুরোনো কাপড়ের দোকানগুলোতে মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়ছে। দামও বেশি নিচ্ছেন দোকানিরা। শুধু নবীগঞ্জ শহরেই প্রতিদিন বিক্রি হচ্ছে কয়েক লাখ টাকার গরম কাপড়। নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে চোখে পড়ে অভাবী ও শীতকাতর মানুষের দুর্ভোগ। হিমেল হাওয়ায় গায়ে কম্বল জড়িয়ে থাকা যেখানে দুঃসাধ্য, সেখানে শীতার্ত মানুষ গায়ে শুধু একটা গেঞ্জি কিংবা লুঙ্গি জড়িয়ে আছেন। আর নারীদের আশ্রয় শুধু শাড়ির আঁচলে। সন্ধ্যার পর চুলায় ভাতের হাঁড়ি বসিয়ে আগুনের কাছে বসে ছিলেন কান্দিপাড়ার রত্না বেগম। তিনি বলেন, ‘চুলার আগুনই আমাদের সম্বল। কয়দিন থাকি খুব ঠান্ডা পড়ছে। চুলার আগুন নিভি যাইলে রাইত (রাতে) কষ্টে কাটা লাগবে।’

নবীগঞ্জ শহরে শীতের কাপড়ের মার্কেটগুলোর মধ্যে শেরপুর রোডের পুরাতন কাপড়ের মার্কেট, জামে মসজিদের সামনের মার্কেট, ওসমানী রোডের মার্কেট, নবীগঞ্জে নতুনবাজার মোড়ের আশপাশে ফুটপাতের মার্কেটে সবচেয়ে বেশি কাপড় বিক্রি হয়। এই কয়েকটি মার্কেটে ছোট-বড় প্রায় ১০০টি দোকান রয়েছে। শীতকে কেন্দ্র করে অনেকেই এখানে ব্যবসা করতে আসেন। এ ছাড়া উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে পুরোনো কাপড় বিক্রির দোকান রয়েছে। শহরের বাইরে, সৈয়দপুর, আউশকান্দি, ইনাতগঞ্জ, কাজীরগঞ্জ বাজার, ইমামবাড়ি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, এসব বাজারে পুরোনো কাপড়ের ক্রেতা বেশি। ব্যবসায়ীরা জানান, শীত মোকাবিলায় নতুন কাপড়ের চেয়ে বিদেশি পুরোনো কাপড়ের চাহিদা বেশি।

এগুলোর দাম তুলনামূলক কম। তাছাড়া এগুলো দেখতে সুন্দর ও টেকসই হওয়ায় এসব কাপড়ে ক্রেতাদের আগ্রহ বেশি। নতুনের চেয়ে তুলনামূলক কম দাম বলে শহর কিংবা গ্রামের সব শ্রেণির মানুষ ফুটপাত থেকে পুরোনো শীতের পোশাক কিনছে। কোট, জ্যাকেট, সোয়েটার, ট্রাউজার, ওভারকোট, ফুলহাতা গেঞ্জি, কম্বল, মেয়েদের কার্ডিগান, হাতমোজা ও পা মোজার ক্রেতার সংখ্যা বেশি। তবে গত বছরের চেয়ে এবার পুরোনো কাপড়ের দাম অনেক বেশি বলে ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা অভিযোগ করেছেন। ফুটপাতের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা জানান, গত বছরের তুলনায় এ বছর পুরোনো কাপড়ের দাম মহাজনরা বেশি নিচ্ছেন। ফলে তাদেরও বেশি দামে বিক্রি না করে উপায় থাকে না। ব্যবসায়ীরা জানান, মহাজনদের কাছ থেকে গরম কাপড়ের গাঁট নিয়ে তা খোলাবাজারে খুচরা বিক্রি করেন তারা। গত বছর সাত থেকে আট হাজার টাকায় একটি কাপড়ের গাঁট বা বেল কেনা যেত।

এ বছর একটি গরম কাপড়ের গাঁট কিনতে ১৪ থেকে ১৬ হাজার টাকা লাগছে। ওসমানী রোডের পুরোনো কাপড়ের পাইকারি ব্যবসায়ী সেকুল মিয়া বলেন, ‘শীতকে ঘিরে চীন, তাইওয়ান, জাপান, কোরিয়া ও রাশিয়া থেকে পুরোনো শীতবস্ত্র আসছে। পরিবহন খরচ ও ব্যাংক ঋণের কারণে কাপড়ের বেলের দাম বেড়ে গেছে।’ নতুনবাজার মোড়ের পাশে ফুটপাতের ব্যবসায়ী ফরিদ উদ্দিন জানান, কোনো কোনো গাঁটের ভেতর ছেঁড়া-ফাটা কাপড় থাকে, যা মহাজনরা ফেরত নিতে চান না। এতে লোকসান গুনতে হয়। একটা গাঁটে বিভিন্ন ধরণের সোয়েটার, ট্রাউজার, হাফ ও ফুলহাতা গেঞ্জি এবং বাচ্চাদের কাপড় থাকে, যা বিভিন্ন দামে বিক্রি করতে হয়।

Developed By The IT-Zone