ঢাকামঙ্গলবার , ১ মার্চ ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দৈনিক আমার হবিগঞ্জে সংবাদ প্রকাশের পর : সদর উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিসের ১শ‌ টাকায় পর্চা বিক্রি

জি কে ই্উছুফ
মার্চ ১, ২০২২ ৩:৪১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর সরকার নির্ধারিত মূল্য ১শত টাকায় আরএস পর্চা বিক্রি করছেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সেটেলমেন্ট অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

উল্লেখ্য গত ২৩শে ফেব্রুয়ারী বুধবার “দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায়,, হবিগঞ্জ সদর উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিসের দ্বিগুন মূল্যে জমির পর্চা বিক্রয় বানিজ্য,, শিরোনামে প্রথম পাতায় একটি লীড নিউজ প্রকাশিত হয় ।

এতে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সেটেলমেন্ট অফিসে আর এস পর্চা বিতরণে বেআইনিভাবে সরকার নির্ধারিত মূল্যের দ্বিগুন টাকা নিয়ে বাণিজ্য করে চলছেন ওই অফিসের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী ও স্থানীয় প্রভাবশালীরা।

পর্চা বাণিজ্যে জড়িত এ চক্রটি সরকার নির্ধারিত ১ শত টাকা মূল্যের আরএস পর্চা ২ শত টাকায় বিক্রি করে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। গ্রামের সহজ সরল ভূমি মালিকদের সরলতার সুযোগ নিয়ে প্রকৃত মূল্য গোপন করে নানাবিধ ও খরচের অজুহাত দেখিয়ে প্রতারণা করে চলছে দিনের পর দিন।

অভিযোগ আছে, কেউ ন্যায্যমূল্যে পর্চা বিক্রয়ের দাবি জানালে এলাকায় পর্চা বিতরণ না করে অফিসে বিতরণ করে হয়রানি করা হবে বলে ভূমি মালিকদের কে ভয় দেখানো হয়। সরকারী খরচে সংশ্লিষ্ট মৌজায় প্রকাশনা ক্যাম্প করে পর্চা বিতরণ করা হলেও দুর্নীতিবাজ এসব কর্মচারীরা এলাকায় এসে পর্চা বিতরণ করার খরচ বাবদ বাড়তি টাকা দিতে হবে বলে অজুহাত দেখান।

এসব ব্যাপারে কেউ প্রতিবাদ করলে তাদের মুখ বন্ধ করতে বিভিন্ন মৌজার স্থানীয় প্রভাবশালীদের একটি চক্র কে ব্যবহার করে । কখনো ম্যানেজ না হলে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে মুখ বন্ধ করে রাখা হয়। অভিযোগ আছে খোদ সেটেলমেন্ট অফিসের পর্চা বিতরণ কাজে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারাই এ ঘটনাযর সাথে জড়িত।

গত ২২ ফেব্রুয়ারী সকালে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিসের ব্যবস্থাপনায় বগুলা খাল মৌজায় প্রকাশনা ক্যাম্প করে পর্চা বিতরন কালে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা টিমের সরেজমিন অনুসন্ধানে দেখা যায় প্রতিটি খতিয়ানের পর্চার মূল্য ২ শত টাকা করে নেয়া হচ্ছে।

এসময় পর্চা বিক্রয়ের দায়িত্বরত অফিস সহকারী সাদেক মিয়াকে অতিরিক্ত দামে পর্চা নেয়া হচ্ছে কেন এ প্রতিবেদক জিজ্ঞেস করলে তিনি বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে জানান, তারা প্রতি পর্চা ২ শত টাকা নিচ্ছেন। সরকারি ফি কত টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে জানতে চাইলে ১শত টাকা নির্ধারিত আছে বলে তিনি উত্তর দেন। তবে এ ব্যাপারে তার সিনিয়ররা আরও ভাল বলতে পারবেন বলে তিনি জানান।

পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হলে ভূমি মালিকদের মধ্যে আলোচনা সমালোচনা শুরু হয় এবং বিষয়টি সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে আসলে গত ২৮,২৯ ফেব্রুয়ারী সোমবার, মঙ্গলবার হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বগুলা খাল মৌজার মধ্যবর্তী স্থান দিগলবাগ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পে প্রতিটা খতিয়ানের জন্য ১শত ও মৌজা ম্যাপের মূল্য বাবদ ৫শত টাকা রাখা হয়।এতে এলাকার মানুষের মনে স্বস্তি ফিরে এসেছে ।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে উপকার ভোগীদের একজন জানান যদি প্রতিটা সেক্টরে অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয় তাহলে দেশ আরও অনেক বছর এগিয়ে যাবে।

বিষয়টি তদারকি করতে আকষ্মিকভাবে ক্যাম্প পরিদর্শন করতে যান সদর উপজেলা সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (ভারপ্রাপ্ত) । তিনি বলেন কেউ যদি সরকারী ফি’র অতিরিক্ত টাকা রাখেন তাহলে বিষয়টি আমাকে জানাবেন আমি ব্যাবস্থা নিব।

উক্ত অনিয়মের প্রতিবাদে গত ২৩শে ফেব্রুয়ারী হবিগঞ্জ সদর উপজেলার দিগলবাগ গ্ৰামের ছাত্রলীগ নেতা শেখ সোহাগ আহমেদ বাদী হয়ে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ দায়ের করেন। তিনি ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্ৰহন করার জন্য অনুরোধ জানান ।

 

Developed By The IT-Zone