ঢাকাবুধবার , ৩০ নভেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দারিদ্র্যকে জয় করে আকলিমা-সায়রা ও জেসমিন পেল জিপিএ-৫

তারেক হাবিব
নভেম্বর ৩০, ২০২২ ৯:২৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

‘‘আজকের দিনটা আমার জন্য অন্যরকম এক ভালো লাগার দিন। ভালোলাগার কারন, আমার পাশে দাঁড়ানো এই তিনটি মেয়ে (আকলিমা, সায়রা, জেসমিন) এবার এসএসসি’তে জিপিএ-৫ পেয়েছে’’।

এভাবেই তথ্য উল্লেখ করে নিজের ফেসবুক থেকে ৪ জনের ছবি পোস্ট করে আবেগ প্রকাশ করলেন হবিগঞ্জ জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা।

জানতে চাইলে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে তিনি জানান, আর্থিক অনটন ও পরিবারের অসচ্ছলতার জন্য নবম শ্রেণীতেই পড়ালেখা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল মৌলভী বাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার পাহাড়ী এলাকার তিন ছাত্রী আকলিমা, সায়রা, জেসমিনের।

তখনই বিষয়টি নজরে আসে হবিগঞ্জ জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহার। নিজের শত প্রতিবন্ধকতার মাঝেও মেধাবী তিন ছাত্রীর দায়িত্ব গ্রহন করেন তিনি। আকলিমা, সায়রা, জেসমিন ওই এলাকার আহম্মদ ইকবাল মেরোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী।

সম্প্রতি গত সোমবার প্রকাশিত এসএসসি ও সমমানের রেজাল্টে তিনজনই পেয়েছে জিপিএ-৫। এর মধ্যে আকলিমা পেয়েছে গোল্ডেন-৫। দৈনিক আমার হবিগঞ্জের সাথে আলাপকালে দেবানন্দ সিনহা আরও বলেন, তিনজন ছাত্রীর বাড়ি দূর্গম পাহাড়ী এলাকায়।

তাদের বাড়ি থেকে স্কুলে পৌছাতে দীর্ঘ এক ঘন্টা পায়ে হাটতে হয়। সহযোগীতার পাশাপাশি নিজেদের অদম্য মনোবলই কাঙ্কিত ফলাফল এনে দিয়েছে তাদের। আমার ছাত্র জীবনটা খুব টানাপোড়েনে কাটায় কলেজের গন্ডি পেরুনোর পর মনের মধ্য একটা সুপ্ত ইচ্ছে ছিল কখনো স্বচ্ছলতা ফিরে আসলে কিছু স্টুডেন্ট এর দায়িত্ব নিব।

চাকুরী পেয়ে কয়েক বছর অতিক্রান্ত হলেও এই স্বচ্ছলতা নামক শব্দটার বাস্তবিক সাক্ষাত পাচ্ছিলাম না। যদি বুড়ো হয়ে কখনো সাক্ষাত পাই তাহলে এই ইচ্ছে পুরন করার সময় তো পাওয়া যাবে না। তাই হাতে যা আছে তা দিয়েই ইশ্বরের নাম নিয়ে শুরু করেছিলাম অজানা গন্তব্য।

শুধু এসএসসিই না, গ্রাজুয়েশন পর্যন্ত থাকব এদের সাথে। সেই শুরু। ছুটির দিনে নিজের ছেলেকে সময় দিয়ে বাকী দীর্ঘ সময় এদের পড়াতাম। আমার পরিবার প্রথম প্রথম বাকা চোখে তাকালেও পরবর্তীতে আমার একাগ্রতা দেখে সাপোর্ট দেয়।

এই জার্নিতে যে শিক্ষকবৃন্দ আমাকে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন এবং এখনো করছেন উনাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। চলতি বছর আরো পাচজনের দায়িত্ব নিয়েছি। যারা আগামীবছর এসএসসি দিবে।

সুবিধা হলো, এখন প্রথম ব্যাচের এই তিনজন সময় আর আন্তরিকতা দিয়ে পড়াচ্ছে ২য় ব্যাচের পাঁচজনকে। এই মেয়েদের জন্য আশীর্বাদ ও দোয়া করবেন, যাতে তারা জীবনে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে।

জিপিএ-৫ পাওয়া আকলিমা, সায়রা, জেসমিন দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, ‘স্যারের সহযোগীতায় আমরা লেখাপড়া করতে পেরেছি। আমরা সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশের সেবা করতে চাই।

Developed By The IT-Zone