ঢাকাবুধবার , ১৮ জানুয়ারি ২০২৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জেলা জুড়ে কৃষি জমির টপ সয়েল বিক্রির মহোৎসব : জানেনা কৃষি বিভাগ

মুহিন শিপন
জানুয়ারি ১৮, ২০২৩ ৪:২৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলার প্রায় সকল উপজেলাতে কৃষি জমির উপরিভাগ (টপসয়েল) বিক্রির হিড়িক পড়েছে। একদল অসাধু ব্যবসায়ী কৃষকদেরকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে এসব মাটি পাচার করছে ইটভাটায়। কেউ কেউ আবার ভিট ভরাটের কাজেও জমির টপ সয়েল ব্যবহার করছেন।

এ নিয়ে প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোন সংবাদমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে। জেলা ও উপজেলা প্রশাসন থেকে এসব মাটিখেকোদের বিরুদ্ধে নিয়মিত ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের সংবাদও চাপা হচ্ছে পত্রিকায়, অথচ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা বলছেন, ‘এই ধরনের (টপ সয়েল কাটা) ঘটনা এখন পর্যন্ত ঘটেনি’।

কৃষি জমির টপ সয়েল কেটে নেওয়ার বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ মোঃ নুরে আলম সিদ্দিকীকে মুঠোফোনে ‘কৃষি জমি থেকে টপসয়েল কেটে নিলে কৃষি জমির কি কি ক্ষতি হতে পার?এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “ঘটনা টা আমার কোন উপজেলা কৃষি অফিসার জানায়নি। যে কোন উপজেলায় এই ঘটনা ঘটে। সাধারণত আমরা উপজেলা থেকে আমরা অবহিত হই, এই ধরনের ঘটনা এখন পর্যন্ত ঘটেনি।”

চুনারুঘাট উপজেলাতে কৃষি জমির টপসয়েল কাটা হচ্ছে জানালে তিনি বলেন, “এইখানে আমি একটা কথা বলি ধরেন, আমরা সরকারের পক্ষ থেকে কৃষকদেরকে প্রযুক্তিগত সহায়তা দেওয়ার জন্য দায়বদ্ধ কিন্তু কোন একজন কৃষকের নিজের উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত জমিন, সেটিতে তিনি ধান করবেন না পাট করবেন না কিছু অংশ তিনি বিক্রি করে দিবেন এটি আসলে উপজেলা কৃষি অফিসার বা আমি ডেপুটি ডাইরেক্টর এটি কন্ট্রোল করার ক্ষমতা আসলে আমাদের নেই।

এজন্যই যদি কেউ অভিযোগ না দেয় নিজে থেকে , তার জমিতে সে কি করলো সে যদি তার জমিতে একটা কাজ করে সেটির ব্যাপারে আমরা হস্তক্ষেপ করতে পারিনা।”

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “অভিযোগ যদি আসে তাহলে সেক্ষেত্রে আমরা এই ঘটনাটি যাতে.. এখানে ৩ টা ব্যাপার আমরা দেখি। ১ নাম্বার হলো যেটা ঘটে গেছে এখন এটা পুনঃবার যাতে না হয় তার জমি যাতে আবারো ক্ষতিগ্রস্ত না হয় তাকে একটা মোটিভেশান দিয়ে ওই জমিতে নিয়মিত ভাবে জৈব সার ব্যবহারের ক্ষেত্রে তাকে আমরা পরামর্শ দেই।

২ নাম্বার হলো এই জমি গুলোর কোন অংশ যদি সে বিক্রিও করে থাকে তাতে তার দীর্ঘমেয়াদী একেকটা জমিতে সে তার সন্তান তার নাতি এরাও কিন্তু চাষ-বাষ করবে বছরের পর বছর।

তাহলে এই জমিটার স্বাস্থ্য নষ্ট না করে এখানে যদি অধিক উৎপাদনক্ষম অধিক ফলনশীল যদি বিভিন্ন ফসলের চাষ করা যায় আমরা তাকে সেই ফসল গুলোর ব্যাপারে পরামর্শ দিয়ে তাকে কাজটি থেকে থেকে সরিয়ে নিয়ে এসে মোটিবেশনের মাধ্যমে তাকে আমার উৎপাদন মুখি করে ফেলার চেষ্টা করি।

আর ৩ নাম্বার হলো , যদি এই ঘটনা টি ঘটেই যায় সেইক্ষেত্রে আমরা বিভিন্নধরনের জৈব সার ,সবুজ সার এই গুলা প্রয়োগের মাধ্যমে টপ সয়েলের স্বার্থ পুনরুদ্ধার করার ব্যবস্থা করি। এসময় তিনি টপ সয়েল কেটে নিলে জমির উর্বরতা হ্রাস পায় বলেও জানান।

উল্লেখ্য, গত ১২ জানুয়ারি নবীগঞ্জে কৃষি জমির মাটি কাটার দায়ে ময়না মিয়া নামের এক ব্যাক্তিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহীন দেলোয়ার । এছাড়াও ২৮ ডিসেম্বর চুনারুঘাটে ফসলি জমির মাটি কাটার অপরাধে জয়নাল মিয়া নামে একব্যক্তিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এতেও থামছেনা মাটিখেকোদের দৌরাত্ম। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বাহুবল উপজেলার দ্বিমুড়া,হাফিজপুর ও চুনারুঘাট উপজেলার নরপতি এলাকায় দেদারসে কাটা হচ্ছে কৃষি জমির উপরিভাগ (টপসয়েল)। এক্সেভেটর দিয়ে কাটা এসব মাটি নেওয়া হচ্ছে স্থানীয় ইটভাটায়।

Developed By The IT-Zone