ঢাকাSunday , 28 January 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জুয়ারি আটক : সরকারি কাজে বাধা প্রদানের ঘটনার ৪দিন পরও দায়ের হয়নি মামলা

Link Copied!

রাজধানীর রমনা জোন ডিবি পুলিশের অভিযান পরিচালনাকালে আসামীদের চিনিয়ে নেয়া ও সরকারি কাজে বাধা প্রদানের ঘটনার ৪দিন পার হলেও মামলা দায়ের হয়নি সংশ্লিষ্ট থানায়। এ ঘটনার সমালোচনার ঝড় বইছে সচেতন মহলে। এর আগে গত ২৫ জানুয়ারী রাতে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার কটিয়াদি বাজারে অনলাইন জুয়ারিদের গ্রেফতার করতে অভিযান পরিচালনা করে রাজধানীর রমনা জোন ডিবি পুলিশের একটি টীম।

শ্বাসরুদ্ধকর দীর্ঘ অভিযানে ক্যাসিনো সম্রাট স্থানীয় আব্দুল লতিফের পুত্র রুবেল মিয়া এবং আব্দুল জলিল ওরফে মেম জলিলকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এ সময় ডিবি পুলিশের গাড়ীর সামনে ড্রাম ফেলে থেকে জোরপূর্বক আসামীদের ছিনিয়ে নেয় স্থানীয় কতিপয় লোকজন। পরে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার অতিরিক্ত পুলিশের সহযোগীতায় রাতভর পুনরায় অভিযানে পলাতকদের গ্রেফতার করে ডিবি।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের হাতে আসা একটি ভিডিও পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ডিবি পুলিশের গাড়ী থেকে অনলাইন জুয়ারীদের জোরপূর্বক ছিনিয়ে নিচ্ছে স্থানীয় কয়েকজন। ভিন্ন একটি সুত্র দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানায়, অনলাইন জুয়ার মূলহোতা রুবেল মিয়া ও আব্দুল জলিলকে গ্রেপ্তারের পর সরকারি কাজে বাধা প্রদানের ঘটনার হবিগঞ্জ সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন অভিযান পরিচালনাকারী ডিবি পুলিশ।

তবে এ ঘটনার ৪দিন পার হলেও আদৌ কোন মামলা দায়ের করা হয়নি বলে জানা গেছে। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক আরেকটি সুত্র জানায়, সংবাদ মাধ্যমসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষদের ম্যানেজ করতে শুরু থেকেই সক্রিয় ছিল ক্যাসিনো চক্র। উল্লেখ্য, গত ২৫ জানুয়ারী হবিগঞ্জ সদর উপজেলার কটিয়াদি বাজারে অভিযান পরিচালনা করে রাজধানীর রমনা জোন ডিবি পুলিশের একটি টীম। এর আগে গত ২০ জানুয়ারী ডিএমপির রমনা মডেল থানায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়।

ডিবি পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মোঃ রুবেল মিয়া ও আব্দুল জলিল নামে দুই জুয়ারীকে গ্রেপ্তার করেন তারা। পরে তাদের আদালতে প্রেরণ করে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করে ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। একই চক্রের ওই এলাকার বাকী সদস্যদের গ্রেফতার করতে অভিযান চলছে। রুবেল ও আব্দুল জলিলের তথ্যমতে বাকী অভিযান পরিচালনা করা হবে।

ডিএমপি পুলিশ জানায় আরও জানায়, ফুটবল ও ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে এসব জুয়াড়িরা জুয়া খেলায় লিপ্ত হয়ে সারাদেশে কয়েক হাজার মাস্টার মাইন্ডের মাধ্যমে বিভিন্ন অ্যাপস ব্যবহার করে দেশের টাকা বিদেশে পাচার করে আসছে। আটককৃতদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত এক মাসে বাংলাদেশ থেকে হাজার কোটি টাকা হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশে পাচার করেছে চক্রটি। এ চক্রের আরও কিছু সদস্য দেশের বাইরে অবস্থান করায় তাদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হচেছ না। তবে তাদেরকেও আইনের আওতায় আনতে কাজ করছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, বাংলাদেশে অবৈধ অনলাইন জুয়ার প্লাটফর্ম ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসে ইন্টারনেট সংযোগ নিয়ে ব্রাউজার ব্যবহারের মাধ্যমে সমাজের উঠতি বয়সের যুবকদের আসক্ত করে বিদেশে পাচার করে নেওয়া হচ্ছে হাজার কোটি টাকা। তারা মালোয়শিয়া/দুবাইয়ের মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে হোয়াটসঅ্যাপে একাউন্ট খুলে নিজেদের প্রকৃত পরিচয় গোপন করে যোগাযোগ করে থাকে।

এই সার্ভারটি প্রধানত নিয়ন্ত্রণ করে থাকে ভেলকি লাইভ এবং বিগ ইউন অ্যাডমিন আকাশ মালিক ওরফে রনি (বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত দুবাই প্রবাসী)। তিনি এটিকে ওয়েভসাইটের মাধ্যমে বিভিন্ন বিদেশি নাম্বার ব্যবহার করে সারা বাংলাদেশের ৫টি লেয়ারে তথা অ্যাডমিন, সাইট সাব অ্যাডমিন, সুপার এজেন্ট, মাষ্টার এজেন্ট ও ইউজার (রুট লেভেলের ব্যবহারকারী) লেয়ারে বিভক্ত করে। প্রতিটি লেয়ার তার উপরের লেয়ারের মাধ্যমে কার্যক্রম সম্পাদন করে থাকে। তার মধ্যে একজন রুট লেবেলের আগ্রহী অনলাইন জুয়াড়ি প্রবেশ করে ক্লিক করলেই ১০০০ টাকার বিপরীতে ১০টি ডিজিটাল কয়েন প্রদান করে অ্যাকাউন্ট খুলে দেওয়া হয়।

এই ডিজিটাল কয়েন লেনদেন মুলত সারা বছরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ফ্রাঞ্চাইজি ক্রিকেট, ফুটবল লীগ, টেনিস এবং বর্তমানে বিশ্বকাপ ফুটবল খেলার মাধ্যমেও প্রধানত অনলাইনে জুয়া খেলা হয়। ব্যবহারকারী জয়ী হলে ডিজিটাল কয়েন ফেরত নিয়ে এর বিপরীতে আর্থিক লেনদেনকারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে টাকা গ্রহণ করে থাকে। হারলে তার পুরো ডিজিটাল কয়েকটাই পর্যায়ক্রমে জুয়া পরিচালনাকারীর কাছে জমা হয়ে যায়।

ভেলকি লাইভ এর সাইটে একজন অ্যাডমিন, ১৪ জন সাইট সাব অ্যাডমিন, ২৪০ জন সুপার এজেন্ট, ১৫০০ এর অধিক মাষ্টার এজেন্ট এবং সারা দেশে প্রায় দুই লক্ষাধিক ইউজার রয়েছেন বলে জানা যায়। সুত্র জানায়, গ্রেফতারকৃত মোঃ রুবেল মিয়ার মাত্র একটি ব্যাংক একাউন্ডে কয়েক কোটি টাকার অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। এ ছাড়াও দুবাইয়ে সুপার সপ, শ্রীমঙ্গলে বিলাসবহুল ‘দি লাক্সারী লিভিং রিসোর্ট’সহ আরও কয়েক কোটি টাকা মুল্যের গরুর খামার এবং নগদ ৫০ কোটি টাকার সম্পত্তির আছে বলে জানা গেছে।

কে এই রুবেল? স্থানীয় সুত্র জানায়, দু বছর আগেও কটিয়াদি বাজারের অস্থায়ী টং দোকানে চা বিক্রি করতেন রুবেল। তার বাবা আব্দুল লতিফ কিছুদিন আগেও রিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেছেন। রুবেল মিয়ার বাকী ভাইদের সুনির্দিষ্ট কোন পেশা নেই। অনলাইন জুয়ার আর্শিবাদে হঠাৎ করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে গেছে সে। অনলাইন জুয়ার বিরূপ প্রতিক্রিয়াতে নিঃস্ব হয়েছে তারই আশপাশের অনেক পরিবার। রক্তচোষা জোঁকেরমত এলাকার উঠতি বয়সিদের চুষে নিয়েছে সে।

নিজেকে আড়াল করে গুছিয়ে অবৈধ উপার্জন করতে তৈরি করে রেখেছেন নিজস্ব চক্র। কাউকে মাসোহারা আবার কাউকে নিজের অধীনস্থ করে আয়ত্ব করে রেখেছেন নিজের সাম্রাজ্য। আরেকটি সুত্র জানায়, নামে- বেনামে প্রায় ২০০টি একাউন্টে মাসে ৫০ কোটি টাকার অধিক লেনদেন হয় তার।

এ হিসেবে বাংলাদেশে প্রায় ১৫০০টি মাস্টার এজেন্টের মাধ্যমে ১ মাসেই ৩ হাজার কোটি টাকার অধিক লেনদেন হয়েছে বলে প্রতীয়মান হয়। যা বাংলাদেশ থেকে হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশে পাচার করা হচ্ছে। ফলে দেশ হতে পাচার হচ্ছে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা। এ ব্যাপারে তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এবং মানি লন্ডারিং আইনে মামলা দায়ের করা জরুরী বলে আইনজ্ঞরা মনে করেন।