ঢাকাSunday , 25 February 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ছাত্রলীগ নেতাকে পেটানোর ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

Link Copied!

শায়েস্তাগঞ্জের ব্রাহ্মণবাড়োরায় ইউপি নির্বাচনের জের ও গ্রাম্য আদিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাকে পেটানো ও তার বাড়িতে হামলার অভিযোগে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারী) ভুক্তভোগী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হেলাল উদ্দিন আফরোজ বাদী হয়ে হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। বিচারক ফখরুল ইসলাম অভিযোগ আমলে নিয়ে এফআইআর করে মামলা রুজুর নির্দেশ প্রদান করেন।

আহত হেলাল উদ্দিন আফরোজ স্থানীয় ব্রাহ্মণড়োরা গ্রামের তামিজ উদ্দিনের পুত্র ও হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি। মামলার আসামীরা হলেন, একই গ্রামের মৃত ভিংরাজ মিয়ার পুত্র ও ইউপি চেয়ারম্যান হোসাইন মোঃ আদিল জজ মিয়া (৫০), মৃত আইয়ুব আলীর পুত্র সালেক মিয়া (৩৩), আখড়া গ্রামের নাসির মিয়ার পুত্র মিঠু মিয়া (২২), ব্রাহ্মণবাড়োরা গ্রামের মান্নান মিয়ার পুত্র বেনু মিয়া (৩২), আখড়া গ্রামের আব্দুল হাইয়ের পুত্র জুনাইদ মিয়া (২২), রিপন মিয়ার পুত্র বিজয় (২২)সহ আরও কয়েকজন। এদিকে, মামলার পর আদালতে আত্মসমর্পন না করে উল্টো প্রতিবাদ সমাবেশ করে প্রকাশ্যে চলাফেরা করছেন অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান জজ মিয়া।

হামলার শিকার সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জানান, মামলার প্রধান আসামি ব্রাহ্মণডোরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক হওয়ায় তার বিরুদ্ধে এফআইআর হলেও রহস্যজনক কারনে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না। এতে প্রতিদিন প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তিনি।

বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় সচেতন মহলে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ। বেশ কিছুদিন আগে জজ মিয়ার বিরুদ্ধে সনদ জালিয়াতি করে কাজী নিয়োগের চেষ্টার মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা ইস্যু হয়। এ মামলায় আদালত থেকে জামিন পেয়ে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেন জজ মিয়া।

গত ইউপি নির্বাচনে একই ইউনিয়নে নৌকার মনোনয়ন চেয়েছিলেন হেলাল উদ্দিন আফরোজ। এ নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয় ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও তার অনুসারীদের সাথে। আর এ বিরোধকে কেন্দ্র করে গত ৬ ফেব্রুয়ারী ইউপি চেয়ারম্যান জজ মিয়া, মেম্বার সালেক মিয়াসহ কয়েকজন মিলে হেলাল উদ্দিন আফরোজকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান হোসাইন মোহাম্মদ আদিল জজ মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, ‘আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, দ্রুত আদালতে আত্মসমর্পন করব’।