ঢাকাWednesday , 20 March 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুনারুঘাট খাদ্যগুদামে ওসিএলএসডি আমির আলীর বিরুদ্ধে তদন্তের তদারকি করবে প্রশাসন

Link Copied!

চুনারুঘাটে দূর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে পরিত্যাক্ত রাইস মিল থেকে পুরনো চাল ক্রয়ের অভিযোগের ঘটনায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমির আলীর বিরুদ্ধে দৈনিক আমার হবিগঞ্জে সংবাদ প্রকাশের পর অনিয়মের তদন্ত তদারকি করবে প্রশাসন। গতকাল মঙ্গলবার চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পক্ষে বিষয়টি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে নিশ্চিত করেছেন সহকারী কমিশনার (ভুমি) মাহবুব আলম মাহবুব। তিনি জানান, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে বিষয়টি শুনেছি। অনিয়মের ঘটনার তদন্তে যেন কোন ধরনের গাফিলতি না হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদারকি করা হবে।

এর আগে, গত মঙ্গলবার এ বিষয়ে সংবাদ প্রকাশ করে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ। সংবাদ প্রকাশের পর হবিগঞ্জ জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা চাই চাই প্রু মার্মা’ দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানান, দৈনিক আমার হবিগঞ্জে প্রকাশিত সংবাদটি দেখেছি। তদন্তে যেন কোন অনিয়ম না হয় বিষয়টি নজর রাখা হবে।

এদিকে, চুনারুঘাট এলএসডি’তে দূর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে দুটি পরিত্যাক্ত রাইস মিল থেকে পুরনো চাল ক্রয়ের ঘটনায় হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও দূর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিক।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, ২০২৩ ও ২৪ সালের সিদ্ধ ও আতপ চালের নিয়মিত সংগ্রহে মেসার্স ভাই ভাই অটো রাইস মিল ও মেসার্স ফাহিম অটো রাইস মিলের কাছ থেকে অবৈধ সুবিধা নিয়ে নষ্ট-পুরনো সিদ্ধ ও আতপ চাল সংগ্রহ করেছেন চুনারুঘাট ওসিএলএসডি আমির আলী। কতিপয় ডিলার ও দালালদের সাথে গোপন সখ্যতা রয়েছে ওই কর্মকর্তার। স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, বিশেষ কমিশন লাভের মাধ্যমে মিলারদের কাছ থেকে চালগুলো কিনেছিলেন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমীর আলী।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে ওই সিন্ডিকেটের এক সদস্য জানান, গুদামের ভালোমানের চাল স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে অপেক্ষাকৃত কম সময় ভালো থাকবে (কম মেয়াদি) এমন চাল সরকারি গুদামেই ঢুকানো তার কাজ। বিশেষ কমিশন লাভের মাধ্যমে মিলারদের (চালের আড়ৎদার) কাছ থেকে নিম্নমানের ভাঙা চাল-ধান সংগ্রহ করেন আমীর আলী।

টন হিসাব কমিশন পেয়েছেন থাকেন তিনি। কতিপয় অসাধু ডিলার ও চালের দোকানদার সাথে রয়েছে তার ভিন্ন সম্পর্ক। গুদাম থেকে সংগ্রহীত নতুন চাল বিক্রিসহ নানা সুবিধা পেয়ে থাকেন অসাধু ডিলারদের মাধ্যমে।

এ ছাড়াও গুদাম এলাকায় জনসাধারনের চলাচলে কঠোর বিধিনিষেধ থাকলেও উঠতি বয়সি মাদকসেবী এবং স্থানীয় চাল বিক্রেতাদের নিয়ে বেপরোয়া চলাচল করতে দেখা যায় ওই কর্মকর্তাকে। তবে বিশ^স্থ একটি সুত্র জানিয়েছে চাল সংগ্রহের ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্যদের সাথে গোপন সখ্যতা তৈরি হয়েছে আমীর আলীর। এ তদন্তে হতে পারে তেলেসমাতি। এ কারণে জনমনে নানা প্রশ্ন ও উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে। তদন্ত কমিটির সদস্য বেনু গোপাল, রেজাউল ইসলাম। দুজনই সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী। একজন বসেন হবিগঞ্জ জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে আরেকজন শায়েস্তাগঞ্জে।

গত সোমবার দুপরে সরেজমিনে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের সাংবাদিক পরিচয়ে তদন্ত কমিটির সদস্য বেনু গোপাল এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমির আলীর বিরুদ্ধে তেমন কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। অভিযোগ মিথ্যা। পরিত্যাক্ত মিল থেকে অনেক পুরনো চাল সংগ্রহ করা হয়েছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে কৌশলে তথ্য এড়িয়ে যান তিনি।