ঢাকাবুধবার , ১০ জুন ২০২০

চুনারুঘাটে বিদ্যুতের ভেলকিবাজিতে জনমনে ক্ষোভ ঘটতে পারে অপ্রত্যাশিত ঘটনা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জুন ১০, ২০২০ ৭:২৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

এফ এম খন্দকার মায়া চুনারুঘাট ।।৷ হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলায় পৌর শহর থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিদ্যুৎতের ভেলকিবাজিতে জন মানুষের ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।যেকোন সময়ে ঘটতে পারে অপ্রত্যাশিত ঘটনা।

বর্তমান সরকারের শতভাগ বিদ্যুতায়নে স্বস্তির আশ্বাস যখন বিদ্যুৎ, তখনই চুনারুঘাটে ঘন্টার পর ঘন্টা চলছে বিদ্যুৎতের বিরাট ভেলকিবাজি।

জানা যায়, চুনারুঘাট পৌর শহরে কিঞ্চিৎ মাত্র বিদ্যুৎ থাকলেও পৌরসভার বড়াইল গ্রাম, গুচ্ছ গ্রাম, পশ্চিম পাকুড়িয়া, গোগাউড়া, আমকান্দি, ধলাইপাড়, চন্দনাসহ উপজেলা বিভিন্ন স্থানসহ প্রায় ৪ লক্ষ মানুষের উপজেলায় চলছে বিদ্যুৎতের বিরাট ভেলকিবাজি খেলা।
যে কারণে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন জনসাধারণ।

বর্তমান জনপ্রিয় গণযোগাযোগ মাধ্যম পেইজবুকে এই নিয়ে চলছে রসালো ও ক্ষোভের স্ট্যাটাস।
এই সত্যতা নিশ্চিত হতে পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ড সহ বিভিন্ন ইউনিয়নে অনেকের সাথে ফোন আলাপে সত্যতা পাওয়া যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকে জানায় ঝড় -বৃষ্টি ছাড়াই চুনারুঘাট পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে বিদ্যুৎ থাকে না। একবার বিদ্যুৎ গেলে আসার কোনো খবরেই থাকে না। প্রায় সময়েই চুনারুঘাট পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে যোগাযোগ করে বিদ্যুৎ আনতে হয়। অনেক সময় তারা বিরক্ত হয়ে যোগাযোগ বিছিন্ন করে দেন। যদি আকাশে একটু মেঘ বা বিদ্যুৎ চমকায় তা হলেই চলে যায় বিদ্যুৎ। যেদিন ঝড় -বৃষ্টি হয় সেই দিন বিদ্যুতের আশা ছেড়ে দিতে হয় চুনারুঘাটবাসীর।

এ ব্যাপারে চুনারুঘাট পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের এজিএম নুরুন্নবী সাথে কথা বললে তিনি জানান এ যাবত আমাদের অফিসিয়াল কোন কার্যক্রমের কারনে বিদ্যুৎ সার্ভিসের কোন সমস্যা হচ্ছে না। তবে আমাদের লাইনটি শাহজীবাজার পাহাড়,সাতছড়ি পাহাড় সহ বেশ কয়েকটি পাহাড়ের ভিতর দিযে টানার কারনে প্রায়ই অল্প ঝড় তুফানে গাছপালা ভেঙে ও উপড়ে লাইনের উপরে পরে তার ছিড়ে যাচ্ছে। আবার কখনো খুঁটি নিয়ে লাইন ছিড়ে পরে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে থাকে। আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত আছে। আশা করি পুনরায় এমন হবে না।

Developed By The IT-Zone