ঢাকাFriday , 22 December 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুনারুঘাটে তহশিলদার আব্দুস সালামের অবৈধ সম্পদ অর্জন : জেলা প্রশাসনের তদন্ত শুরু

Link Copied!

সদ্য সাময়িক বরখাস্তকৃত ইউনিয়ন ভুমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে জেলা প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার (২১ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ৩১৪নং কক্ষে রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর নিবিড় রঞ্জন তালুকদার অভিযুক্ত ইউনিয়ন ভুমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য ও জেরা গ্রহন করেন।

এর আগে ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা থাকায়, ইউনিয়ন ভুমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা আব্দুস সালামকে সাময়িক বরখাস্ত করে হবিগঞ্জ জেলার আজমিরীগঞ্জ উপজেলার বদলপুর ইউনিয়নে বদলী করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়। উল্লেখ্য, অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে অঢেল সম্পত্তি আর কালো টাকার পাহাড় গড়েছেন চুনারুঘাট উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের আব্দুস সালাম নামে ওই ব্যক্তি ।

দূর্নীতিবাজ এই ব্যক্তির বিরুদ্ধে গত ২ নভেম্বর ‘চুনারুঘাটে অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পত্তির পাহাড় গড়েছেন তহশিলদার আব্দুস সালাম’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ। সংবাদ প্রকাশের পর ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তদন্তে নামে জেলা প্রশাসন।

জানা যায়, ধনকুবের এই কর্মকর্তা কিছুদিন আগে চুনারুঘাট উপজেলার ০২নং আহম্মদাবাদ ইউনিয়নে কর্মরত ছিলেন। আলাদিনের চেরাগের ন্যায় পাওয়া চাকরিতে আব্দুস সালাম ইতোমধ্যে ঘুরিয়েছেন নিজের ভাগ্যের চাকা। নিজ গ্রাম এলাকায় এবং চুনারুঘাট শহরে গড়েছেন পাহাড়সম সম্পদ।

নামে-বেনামে ক্রয় করেছেন কমপক্ষে ২০/২৫ একর জমি। চুনারঘাট শহরের বিভিন্ন স্থানে রয়েছে তার একাধিক আলিসান বহুতল ভবন ও প্লট। তার অবৈধ টাকার উত্তাপে নিজ এলাকার বাসিন্দারা হয়ে উঠেছেন অতিষ্ঠ।

স্থানীয় সুত্র জানায়, আব্দুস সালাম চুনারুঘাট উপজেলার সাটিয়াজুড়ি এলাকার দৌলতপুর গ্রামের মৃত আব্দুল বারিকের পুত্র। আব্দুস সালামের পিতা আব্দুল বারিক ছিলেন পেশায় রিক্সাচালক।

সুত্র জানায়, আব্দুস সালাম ১৯৯৬ সালের ১ সেপ্টেম্বরে ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা (তহশিলদার) হিসেবে যোগদান করেন বিষগাঁও ভুমি অফিসে। এরপরই ভাগ্যের চাকা ঘুরে যায় তার। আস্তে আস্তে গড়ে তোলেন সম্পদের পাহাড়। চাকুরীতে তার মূল বেতন ২২ হাজার ৫০০ টাকা হলেও প্রতি মাসে ইনকাম কয়েক লাখ টাকারও বেশী । সরকারি গোপন তথ্য অর্থের বিনিময়ে ফাঁস করে দেয়া, অবৈধ দখলদারদের সহযোগীতা, পক্ষে-বিপক্ষে প্রতিদেবন বানিজ্য ইত্যাদি তার মূল আয়ের উৎস।

আব্দুস সালাম অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে ক্রয় করেছেন কয়েক কোটি টাকার সম্পত্তি চুনারুঘাট উপজেলা পরিষদ ভবনের দক্ষিণে চন্দনা মৌজায় অন্তগর্ত তার বাস স্ট্যান্ডের বহুতল বাসার আনুমানিক দাম প্রায় ৬৫ লাখ টাকা। একই মৌজায় অন্তগর্ত দক্ষিণ বাস স্ট্যান্ড দিদার ম্যানশেনের পাশে দোকান ভিটার দাম আনুমানিক ৫০ লক্ষ টাকা।

হাতুন্ডা মৌজার অন্তগর্ত গার্লস স্কুলের পিছনে মন্দিরের পাশে ২৫ লাখ টাকার জমি, কলেজ রোড ফায়ার সার্ভিসের পিছনে চন্দনা মৌজার ৮ লাখ টাকার জমি, চুনারুঘাট মধ্যবাজার সদর প্রাইমারি স্কুলের কাছে বড়াইল মৌজায় অন্তগর্ত জমির মূল্য আনুমানিক ২০ লাখ টাকা। চুনারুঘাট উত্তর বাজার বড়াইল এলাকায় বড়াইল মৌজার অন্তগর্ত জমির মূল্য আনুমানিক ১০ লাখ টাকা।

সাটিয়াজুড়ি সুন্দরপুর বাজারে সুন্দরপুর মৌজার অন্তগর্ত জমির মূল্য ৩০ লাখ টাকা। এ ছাড়াও সিলভার কালারের একটি বিলাসবহুল নোহা গাড়ি, একটি সিএনজির অটোরিক্সাসহ অটেল সম্পত্তি এবং নগদ অর্থ যার পুরোটাই অবৈধ পন্থায় অর্জিত এবং সরকারি ট্যাক্স ফাঁকি দেয়া।

অভিযোগ আছে, তহশিলদার আব্দুস সালাম কর্মস্থালে টাকা ছাড়া কোন কাজই করেন না । ঘুষ না পেলে তিনি দিনের পর দিন আটকে রাখেন ফাইল। ফলে সেবা প্রত্যাশীরা চরম ভোগান্তির শিকার হন। অনুসন্ধানে জানা গেছে, আব্দুস সালাম অবৈধভাবে হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা।

তার বিরুদ্ধে রয়েছে ঘুষ লেনদেন, দালালের দৌরাত্ম্য, ভুয়া রিপোর্ট প্রদানসহ অজস্র অভিযোগ। এদিকে, দুর্নীতিবাজ আব্দুস সালামের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন স্থানীয় ভুক্তভোগীরা।