ঢাকাWednesday , 3 January 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুনারুঘাটে গোগাউড়া দীঘি হয়ে উঠেছে অতিথি পাখির অভয়াশ্রম

Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলায় প্রতিবছর শীত একটু ভিন্নভাবে নামে। এতে যেমন শীত উপভোগ করতে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পর্যটকরা পাহার দীঘির এ জনপদে ছুটে আসেন, ঠিক তেমনি শীত মৌসুমে অতিথি পাখির আনাগোনায় একাধিক দীঘির পাশাপাশি গোগাউড়া বৃহৎ এ দীঘি হয়ে উঠে অতিথি পাখির অভয়াশ্রম।

উপজেলার গোগাউড়া দীঘি,পরীবিল দীঘি,দেওন্দিবিল,রেমা কালেঙ্গা পাহাড়ে বেষ্টিত পুকুরগুলো যেন শীতকালীন অতিথি পাখির তীর্থ স্থান।

শীতজুড়ে অতিথি পাখির আগমনে এ পুকুরের সৌন্দর্যে এক বাড়তি মাত্রা যোগ হয়েছে। আর পাখিদের দুরন্তপনা উপভোগ করতে দূর-দূরান্ত থেকে পুকুরপাড়ে ছুটে আসছেন পর্যটক ও প্রকৃতিপ্রেমীরা।

উপজেলা শহর থেকে প্রায় ১২ থেকে ১৩ কিলোমিটার দূরে ঢাকা-সিলেট পুরাতন মহাসড়কের পাশেই গোগাউড়াদীঘি পৌরবাজারেই অবস্থিত পুরাতন খোয়াই নদী, চান্দুপুর চাবাগানের ভিতরে পরীবিল।

দীঘি পুকুরের পানিতে পানকৌড়ি, পাতিহাঁসসহ নানা প্রজাতির পাখির আগমনে এর সৌন্দর্য আরও ফুটে উঠেছে। তবে দিনের বেলা পাখিদের আনাগোনা কম থাকলেও সকালে মুখরিত হয়ে ওঠে পুরো পুকুর এলাকা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যের অংশ শুকুনসহ হাজারো পাখির আনাগোনা শুরু হয় এ জনপদে। আর এতে অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখর হয়ে ওঠে পুকুরপাড় এলাকা।

স্থানীয়রা আমাদের প্রতিনিধি কে জানান, শীতের এই সময়ে অতিথি পাখির আগমন ঘটে থাকে। তবে গতবারের তুলনায় এবার প্রচুর অতিথি পাখি দেখা যাচ্ছে। আর পাখির আগমনে জায়গাটির সৌন্দর্য আরও ফুটে উঠেছে।

পর্যটকরা জানান, পথিমধ্যে পুকুরে অনেক অতিথি পাখি দেখে আমরা এখানে দাঁড়াই। অপরূপ সুন্দর লাগছে পাখির অবাধ বিচরণ দেখে। ভ্রমণের শুরুতেই মনোমুগ্ধকর এই পরিবেশ উপভোগ করতে পেরে খুশি পরিবারের সবাই। পাশাপাশি চা বাগানের বন পাহাড়ের বেষ্টনী।

এ এলাকার দর্শনীয় স্থান দীঘি পুকুর। পুকুরপাড়ে আমরা প্রতিদিন সকাল-সন্ধ্যায় অবসর সময় অতিবাহিত করি। কারণ, এই পুকুরপাড়ে শীতের সময় প্রচুর অতিথি পাখির আগমন ঘটে। আর তা দেখতে ও মোবাইলে ধারণ করে রাখতে অনেক ভালো লাগে।’

স্থানীয় সচেতন মহল বলছে, অতিথি পাখির আগমনে যেন কোনো বাধা সৃষ্টি না হয়, প্রশাসনের পক্ষ থেকে সে ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ অতি জরুরি হয়ে পড়েছে। কারণ এ সুযোগে অসৎ পাখি শিকারীগণ উৎপেতে থাকে।

অনেক দর্শনার্থী আমাদের প্রতিনিধিকে বলেন, ‘পাখি মেরে ফেলা কিংবা যাতে তাড়িয়ে দেয়া না হয়, সে বিষয়ে এলাকার সবাইকে সচেতন করা জরুরি। সকলেই সবসময় নজরদারির মধ্যে রাখলে। আশা করি, পাখির আনাগোনা আরও বৃদ্ধি পাবে