ঢাকাশুক্রবার , ২৫ নভেম্বর ২০২২

চুনারুঘাটের কালেঙ্গা বনে ঝুঁকিপূর্ণ কালভার্টে ভোগান্তিতে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠি

আতাউর রহমান ইমরান
নভেম্বর ২৫, ২০২২ ৯:৪৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

চুনারুঘাটে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রাকৃতিক বন বলে পরিচিত রেমা-কালেঙ্গা অভয়ারণ্যের বড় ছনবাড়ি ও দেবরা
বাড়ি গ্রামে যাওয়ার রাস্তায় ঝুঁকিপূর্ণ কালভার্টে চলাচল করতে গিয়ে ভোগান্তিতে পড়েছেন সেখানে বসবাসরত ত্রিপুরা আদিবাসী জনগোষ্ঠীর লোকজন।

একটি গভীর পাহাড়ি খালের উপর নির্মিত মাত্র কয়েক ফুট প্রশস্ত কংক্রিটের অদ্ভুত দর্শন ওই কালভার্ট দিয়ে প্রতিদিন শতাধিক লোক যাতায়াত করেন। ঝুঁকি থাকলেও উপায় না থাকায় মোটরসাইকেলও পারাপার করা হয় কালভার্টটি দিয়ে।

সরেজমিনে দেখা যায়, মাত্র ৪ থেকে ৫ ফুট চওড়া ভয় জাগানিয়া কালভার্টটির গোড়া থেকে মাটি সরে গিয়েছে। কিছু বাশ বসিয়ে সংযোগ বানিয়ে রাখা হয়েছে সেখানে। পার্শ্ববর্তী বিজিবি ক্যাম্প থেকে আসা বিজিবি সদস্যরা ও ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হন কালভার্টটি।

অদূরেই ভারতীয় সীমান্ত অবস্থিত হওয়ায় সেখানে প্রতিদিন টহল দিতে হয় তাদের। বড় ছন বাড়ি গ্রামের বাসিন্দা দিলীপ দেববর্মা জানান, তিনি তার স্ত্রী সন্তান সহ প্রায়ই এই ঝুঁকিপূর্ণ কালভার্টটি দিয়ে যাতায়াত করে থাকেন। তার নিজের মোটরসাইকেল পারাপার করার সময় প্রতিবারই আতঙ্কিত থাকেন তিনি।

বহু বছর ধরেই এ অবস্থা চলে আসছে। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত কালেঙ্গা বনের মনমুগ্ধকর পরিবেশ থাকায় ও আদিবাসী জনগোষ্ঠী বসবাস করায় ওই গ্রামগুলিতে পর্যটকরা যেতে আগ্রহ দেখান।

কিন্তু যাতায়াত ব্যবস্থা ভালো না থাকায় আদিবাসী গ্রাম কেন্দ্রিক পর্যটন শিল্প গড়ে ওঠা সম্ভাবনা থাকলেও সেটি বিনষ্ট হচ্ছে।

এ বিষয়ে চুনারুঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের লস্করের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এখানে সম্পূর্ণ নতুন ভাবে কালভার্ট নির্মাণের জন্য একটি প্রস্তাব ইতিমধ্যেই এলজিইডির চীফ ইঞ্জিনিয়ার এর নিকট প্রেরণ করা হয়েছে। এটি পাশ হয়ে আসলেই নতুন কালভার্ট নির্মাণের কাজ শুরু করা হবে।

Developed By The IT-Zone