ঢাকাWednesday , 6 May 2020
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুনারুঘাটে অসুস্থ ইয়াকুব আলী এখনো পাননি কোনো সহায়তা

Link Copied!

আবেদ আলী:  চুনারুঘাটঃ পরিবারের বড় ছেলে তাই দায়িত্বও অনেক বেশী ২ ভাই ২ বোন সহ মোট ৭ সদস্যের পরিবার।পরিবারের সবার বরণ পোষন করা দিনমজুর বাবার পক্ষে কষ্টকর তাই বাবার কষ্ট কিছুটা লাঘব ও পরিবারের আর্থিক স্বচ্ছলতার জন্য পড়ালেখার পাশাপাশি চট্রগ্রামে একটি কোম্পানিতে কাজে যোগ দেন। যাতে বাবাকে পরিবারের বরণ পোষনে কিছুটা সাহায্য করা যায়। কিন্তু ভাগ্যের নিমম পরিহাস কাজ থেকে বাড়িতে ফেরার পথে এক সড়ক র্দূঘটনায় তার বাম পা ভেঙ্গে যায়। যার কারণে তার অসহায় বাবার পক্ষে পরিবারের সকল সদস্যের বরণ পোষণ সহ তার চিকিৎসার খরচ যোগাতে হিমশিম থেতে হচ্ছে।

ছবি : অসুস্থ ইয়াকুব আলীর পরিবার এখনো সরকারি কোনো সাহায্য সহযোগীতা পাননি

করোনা ভাইরাসের কারণে দিনমজুর বাবা আর আগের মত কাজকর্মে যেতে পারছেন না। এতে আরও বেশি সমস্যায় পড়েছে এ পরিবারটি । খেয়ে না খেয়ে দিন পার করছে এ পরিবারের লোকরা । মানুষের ধারে ধারে ঘুরছেন একটু সাহায্যের আশায়।  এতে কোন লাভ হচ্ছে না। এখনও কোন ত্রাণ পায়নি তার পরিবার। এতে বিপাকে পড়েছে ৭ সদস্যের এ পরিবারটি।

 বলছি,চুনারুঘাট উপজেলার মিরাশী ইউনিয়নের সাত্তালিয়া গ্রামের ইদ্রিছ আলীর পুত্র ইয়াকুব আলীর (২০) কথা। তার পরিবারটি এভাবেই কষ্টের মধ্য দিয়ে পার করছেন প্রতিটি দিন। অপারেশন করার পর তিনি বাড়িতেই অবস্থান। করছেন।কিছুদিন পূর্বে তার পায়ের রড খোলা হয়েছে। ডাক্তার জানিয়েছেন অতি দ্রুত পায়ে আরেকটি অপারেশন করাতে হবে।

 ইয়াকুব আলী ”দৈনিক আমার হবিগঞ্জ” কে জানান,আমার পরিবার এখনও সরকারি কোন ধরণের ত্রাণ কিংবা সহায়তা পায়নি। এমনকি ত্রাণ বিতরণের স্থানে গিয়েও কোন ত্রাণ পায়নি। আমার দিনমজুর বাবার কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে অনেক কষ্টে অনাহারে অধহারে দিন পার করছি।

 তিনি চুনারুঘাট উপজেলা প্রশাসনসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাহায্য-সহযোগিতা কামনা করেছেন ।