ঢাকাসোমবার , ২৩ জানুয়ারি ২০২৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুনারুঘাটের চা বাগানগুলোতে আগুনের দাবানলে পুড়ে মরছে বন্যপ্রাণী

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ২৩, ২০২৩ ১:১২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলায় চা বাগানের আগুনের দাবানলে পুড়ে মরছে হাজার হাজার বন্যপ্রাণী। উপজেলার সাটিয়াজুরী ইউনিয়নের রশিদপুর বন বিটের আওতাধীন গির্জাঘর এলাকায় হনুমান ও বিরল প্রজাতির কাঠবিড়ালি সহ অসংখ্য বন্যপ্রাণী মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান,হাতিমারা চা বাগানের মালিকপক্ষ গত কয়েকদিনে গির্জাঘর এলাকা থেকে অন্তত ১৪০টি গাছ কেটে নিয়েছে। কেটে নেয়া গাছগুলোর মধ্যে রয়েছে আম,জাম,কাটাল,তেঁতুল, বট,আমলকি,বহেরা,তাউরা ইত্যাদি। এবং প্রায় তিন হেক্টর বাগান এলাকা জোড়ে আগুন লাগিয়ে দেয়।

কেটে নেয়া গাছগুলো প্রায় অর্ধশত বছরের পোড়ানো দাবি গির্জা এলাকার বাসিন্দাদের।এ গাছগুলোর ফল প্রানীদের খাদ্য হিসাবে ব্যবহৃত হতো। তাছাড়া গাছগুলো কেটে ফেলায় অবস্থানরত প্রাণীরা আবাস্থল হারাচ্ছে এবং দিকবিদিক ছুটোছুটি করছে। এক পর্যায়ে লোকালয়ে ছুটে আসছে,আক্রমন হচ্ছে হিংস্র বনপ্রাণীসহ বানর ও মানুষের।

এ বিষযে পরিবেশ প্রকৃতি বিষয়ক সংগঠন মিতা ফাউন্ডেশনের সমন্বয়কারী রবি কান্ত বলেন,হাতিমারা চা বাগান মায়া হরিণ সহ অসংখ্য প্রাণীর নিরাপদ আবাস্থল এবং এই গাছ গুলো থেকে বরাবরই প্রাণীগুলো খাবার সংগ্রহ করতো। এ প্রজাতির গাছগুলো কেটে ফেলায় খাদ্য সহ আবাস্থল হারিয়েছে হাজারো প্রানীরা। ইতিমধ্যে বেশ কিছু প্রাণী মারা যাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক বন কর্মকর্তা জানান,দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তর বন রেমা-কালেঙ্গা অঞ্চলে পার্শ্ববর্তী পাহাড়ি অঞ্চল গির্জা ছিল নানা প্রজাতির প্রাণির জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া চা গাছ লাগনোর জন্য পাহাড় কেটে সমতল ভূমিতে পরিনত করায় বন্যপ্রাণী মারাত্মক ভাবে হুমকির মুখে পড়ছে।

এ বিষয় হবিগঞ্জের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা রেজাউল করিম চৌধুরী জানান,বন বিভাগের অনুমতি না নিয়েই এ সব গাছ কাঁটা হচ্ছে। শীঘ্রই বিভাগীয় বন কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

বিস্তারিত জানতে বাগান ব্যবস্থাপক মঈন উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও মুঠোফোনে পাওয়া যায় নি। তাই বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয় নি।

Developed By The IT-Zone