ঢাকারবিবার , ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চা-শিল্প মালিকদের বিরুদ্ধে শুভঙ্করের ফাঁকির অভিযোগ

ইমদাদুল হোসেন খান
সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২ ৯:৩৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা মোতাবেক সুবিধাদী না দিয়ে চা-শ্রমিকদের সাথে শুভঙ্করের ফাঁকি দিয়ে চলেছেন চা-শিল্প মালিকরা এমন অভিযোগে আবার দানা বাধতে শুরু করেছে শ্রমিক আন্দোলন।

রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) চুনারুঘাটের লস্করপুর চা-বাগানে চা-জনগোষ্ঠী ভূমি অধিকার ছাত্র-যুব আন্দোলন, হবিগঞ্জ জেলা শাখার ব্যানারে অনুষ্ঠিত এক মানববন্ধন থেকে এ অভিযোগ করা হয়।

এছাড়া একইদিন শ্রীমঙ্গলের লেবার হাউসে বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়নের এক সংবাদ সম্মেলনে অনুরূপ অভিযোগ করা হয়।

সকাল ১১টায় লস্করপুর চা-বাগানের নাচঘরের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন চা-জনগোষ্ঠী ভূমি অধিকার ছাত্র-যুব আন্দোলন হবিগঞ্জ জেলা শাখার সহ-সভাপতি সুবল মালাকার। বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক মুখেশ কর্মকার, সদস্য লালন পাহান, ভজন ভৌমিক প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, দৈনিক ৩শ টাকা মজুরির দাবীতে সারা বাংলাদেশের চা-শ্রমিকদের আন্দোলন চলাকালে গত ২৭ আগস্ট গণভবনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে চা-শিল্পের মালিকদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

ওই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত দিয়েছেন চা-শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি ১৭০ টাকা এবং এই অনুপাতে অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা দেয়া হবে। বর্তমান দ্রব্যমূল্যের বাজারে ১৭০ টাকা মজুরিতে জীবনযাপন করা চা-শ্রমিকদের জন্য কষ্টকর হলেও প্রধানমন্ত্রীর প্রতি সম্মান জানিয়ে আমরা চা-শ্রমিকরা তা মেনে নিয়ে আন্দোলন প্রত্যাহার করি।

জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সকল চা-শ্রমিকরা কাজে যোগ দিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। কিন্তু চা-শিল্পের মালিকরা প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত মোতাবেক সুবিধাদী না দিয়ে চা-শ্রমিকদের সাথে শুভঙ্করের ফাঁকি দিয়ে চলেছেন।

প্রচলিত রীতি/প্রথা অনুযায়ী দ্বি-বার্ষিক দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষর ও বাস্তবায়নে কালক্ষেপণ করে চলেছেন।
বক্তারা আসন্ন দুর্গাপূজার আগে এসব সমস্যা সমাধানের আহবান জানান। অন্যথায় পুনরায় আন্দোলন করা ছাড়া চা-শ্রমিকদের আর কোনো উপায় থাকবেনা বলেও বক্তারা উল্লেখ করেন।

এদিকে শ্রীমঙ্গল লেবার হাউসে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে প্রদত্ত লিখিত বক্তব্যে বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল বলেন, বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়ন মজুরি বৃদ্ধির জন্য যে আন্দোলন ঘোষণা করেছিলো সেই ঘোষণার পর বাংলাদেশের সকল চা-শ্রমিক নেতৃবৃন্দ, চা-শ্রমিক মা-বোন-ভাইসহ ছাত্র-যুবসমাজ একযোগে হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, সিলেট, চট্টগ্রাম জেলায় আন্দোলন-সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেন। সেই আন্দোলন-সংগ্রামের সুফল হিসেবে গত ২৭ আগস্ট মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চা-শ্রমিকদের মজুরি ১৭০ টাকা ঘোষণা করেন।

লিখিত বক্তব্য পাঠকালে তিনি আরও বলেন, শুরু থেকেই বিসিএস (বাংলাদেশ চা-সংসদ)-বিসিএসইউ (বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়ন) দ্বি-বার্ষিক দ্বিপাক্ষিক চুক্তি সম্পাদন করে আসছে। সেই অব্যাহত রীতি/প্রথা অনুযায়ী ইউনিয়ন কর্তৃক উত্থাপিত ২০ দফা দাবী নামা যথাযথভাবে নিস্পত্তিতে মালিক পক্ষের টালবাহানাই এই আন্দোলন সূচনার কারণ।

গত ২৭ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী চা-শ্রমিকদের ১৭০ টাকা মজুরি ঘোষণার পর ২৮ আগস্ট চা-শ্রমিকদের মজুরি ১৭০ টাকা পরিশোধ কার্যকর হয়েছে। কিন্তু বিসিএস-বিসিএসইউ দ্বি-বার্ষিক দ্বিপাক্ষিক শ্রম চুক্তি বিগত ধারা অনুযায়ী ২০২১ সালের ১ জানুয়ারী হতে ২০২২ সালের ২৭ আগস্ট পর্যন্ত চা-শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি মালিক পক্ষ পরিশোধে অমঞ্জুর।

মালিক পক্ষ চা-বাগানগুলোতে শ্রেণী/ক্যাটাগরী ভেদে চা-শ্রমিকদের সমমজুরি থেকে বঞ্চিত রাখছেন। স্থায়ী ও অস্থায়ী শ্রমিকদের সমপরিমান মজুরির চুক্তি থাকলেও বেশিরভাগ চা-বাগানের মালিকপক্ষ নিজেরা মজুরি নির্ধারণ করেন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা মোতাবেক অন্যান্য সুবিধাদী বৃদ্ধির কথা থাকলেও সেখানেও শুভঙ্করের ফাঁকি দিয়ে চলেছেন। যার ফলে শ্রমিকদের মধ্যে বিরাট ক্ষোভ ও উত্তেজনার সৃষ্টি হতে চলেছে।

আসন্ন দুর্গাপূজা উৎসব উদযাপনের পূর্বে চা-শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি প্রাপ্তির জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য চা-শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে সরকার ও মালিকপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে নৃপেন পাল বলেন, অন্যথায় বকেয়া মজুরিসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা অপরিশোধিত থাকলে পুনরায় শ্রম অসন্তোষ কিংবা দেশে চা উৎপাদনশীলতায় ব্যঘাত সৃষ্টি হলে কোনোভাবেই চা-শ্রমিক ইউনিয়নে দায়ী করা যাবেনা।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মাখন লাল কর্মকার, সহ-সভাপতি পঙ্কজ কন্দ, অর্থ সম্পাদক পরেশ কালিন্দী, সাংগঠনিক সম্পাদক ও বালিশিরা ভ্যালীর সভাপতি বিজয় হাজরা, মনু-ধলাই ভ্যালীর সভাপতি ধনা বাউড়ি, বালিশিরা ভ্যালীর সাধারণ সম্পাদক সুভাষ রবিদাস প্রমূখ।

Developed By The IT-Zone