ঢাকাSaturday , 13 January 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চালের ভরা মৌসুমেও জেলার হাটবাজারগুলোতে দাম চড়া

Link Copied!

দেশে এ বছর আমনের রেকর্ড উৎপাদন হয়েছে। বাজারে সরবরাহে ঘাটতি নেই তারপরও বাড়ছে চালের দাম। গত চার-পাঁচ দিনের ব্যবধানে কেজিতে দাম বেড়েছে ৩ থেকে ৫ টাকা। গরুর মাংস ও ব্রয়লার মুরগির দামও বাড়তি। আর ভরা মৌসুমে কমছে না সবজির দর। তবে দাম বাড়ার সুনির্দিষ্ট কারণ না থাকলেও নানা অজুহাত দিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। এতে সবচেয়ে ভোগান্তিতে পরছেন নিম্ন আয়ের মানুষেরা। সাধারণত নতুন ধান ওঠার আগ মুহূর্তে চালের দর কিছুটা বাড়তি থাকে।

কিন্তু মাস খানেক ধরে বাজারে নতুন ধানের চাল বিক্রি হচ্ছে। এর মধ্যে হঠাৎ চালের দাম বাড়তি। গত বুধবার জেলার চৌধুরীবাজার, শায়েস্তানগর বাজার এবং উপজেলার বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, সরু চাল (মিনিকেট) প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬৮ থেকে ৭০ টাকা দরে, যা চার-পাঁচ দিন আগে ছিল ৬৪ থেকে ৬৫ টাকা।

অর্থাৎ কেজিতে দাম বেড়েছে সর্বোচ্চ ৫ টাকা। মাঝারি চাল (বিআর-২৮, পাইজাম) প্রতি কেজি তিন টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৫৬ টাকায়। দুই টাকা বেড়ে মোটা চাল প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫২ টাকা দরে। এ ছাড়া পোলাও চালের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা। চালের দর বাড়ার জন্য পাইকাররা দায়ী করছেন মিলারদের। আর মিলাররা বলছেন, অবৈধ মজুতের কারণে দর বাড়ছে।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত সাহিদুজ্জামান বলেন,বাজারে প্রায় সব পণ্যের দাম কয়েক দফা বাড়লেও চালের দাম উচ্চমূল্যে স্থিতিশীল ছিল। নতুন করে চালের দাম বাড়ায় আমাদের জন্য তা বাড়তি চাপ হয়ে দাঁড়াল। বাজারে সরকারের নজরদারি তেমনভাবে না থাকায় ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে চালের দাম বাড়াচ্ছেন বলে তাঁর অভিযোগ।

বাজারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, মিলারদের কারসাজিতে নতুন করে চালের বাজার অস্থির হচ্ছে। নানা অজুহাতে মিল মালিকরা দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছেন। এতে পাইকারি ও খুচরা বাজারেও চালের দাম বাড়ছে। বানিয়াচংয়ের চাল ব্যবসায়ী ইসমাইল রাইস এজেন্সির স্বত্বাধিকারী জসিম উদ্দিন বলেন, চালের দাম বাড়ায় মিলারদের কারসাজি রয়েছে।

ধান না পাওয়ার অজুহাতে তারা এক সপ্তাহ ধরে দাম বাড়াচ্ছেন। হবিগঞ্জ জেলা অটো রাইস মিল মালিক সমিতির সভাপতি ছামির আলী বলেন, সম্প্রতি আমন ধান উঠেছে, এখন চালের ভরা মৌসুম। এমন সময়ে পণ্যটির দাম বাড়ার ঘটনা রহস্যজনক। এর পেছনে লাইসেন্সবিহীন মজুতদাররা রয়েছেন। তিনি বলেন, ধান-চাল থাকার কথা কৃষক ও মিলারের কাছে। কিন্তু মজুত করছেন স্টক ব্যবসায়ীরা। সরকারের কঠোর মনিটরিং দরকার। তা না হলে দাম কমবে না।

জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন, আগামী সপ্তাহে অভিযানে নামবো। পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে বিশেষভাবে মনিটরিং করা হবে। দাম বাড়ানোর পেছনে যাদের পাওয়া যাবে তাদের ভোক্তা আইনে শাস্তি দেয়া হবে।