ঢাকাWednesday , 11 December 2019
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গাড়ি চুরি চক্রে হবিগঞ্জের আবু জাহির এমপি’র ভাতিজা মোঃ মহসিন

অনলাইন এডিটর
December 11, 2019 6:57 am
Link Copied!

ছবিঃ হবিগঞ্জ এর আবু জাহির এমপি’র ভাতিজা মোঃ মহসিন ও সংসদ সদস্য নিজে।

দৈনিক দেশ রুপান্তর সংবাদ।। হবিগঞ্জ সদর আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু জাহিরের এক স্বজনের বিরুদ্ধে গাড়ি চুরি চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত মহসিন আবু জাহিরের চাচাত ভাইয়ের ছেলে ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নির্বাহী সদস্য। তবে মহসিন এই অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলেছেন। আবু জাহির বলেছেন, এই বিষয়ে তার কিছু জানা নেই।

স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরেই মহসিনের বিরুদ্ধে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মোটরসাইকেল ও গাড়ি চুরির সঙ্গে জড়িত থাকার গুঞ্জন আছে। তবে প্রভাবশালী নেতার স্বজন হওয়ায় ভয়ে মুখ খোলেননি কেউই। পুলিশও বিষয়টি না জানার ভান করেছে এতদিন।

তবে সম্প্রতি হবিগঞ্জ পুলিশের গোয়েন্দা শাখা শহরতলির ভাদই মসজিদ এলাকা থেকে একটি চোরাই প্রাইভেটকারসহ হাবিবুর রহমান (২৭) নামে এক ব্যক্তিকে আটকের পর বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। হাবিব আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে দাবি করেছেন, তিনি মাঝেমধ্যে মহসিনের গাড়ি চালাতেন। আটক গাড়িটিও মহসিনের কথায় তিনি ভাদই মসজিদ এলাকায় নিয়ে আসেন।

ছবিঃ ধৃত আসামি হাবিবুর রহমান কর্তৃক দেওয়া ১৬৪ জবানবন্দীর একাংশের ছায়ালিপি।

হাবিবকে আটকের ঘটনায় করা মামলার বাদী ডিবির এসআই মোজাম্মেল মিয়া এজাহারে উল্লেখ করেছেন, উদ্ধার হওয়া প্রাইভেট কারটি (ঢাকা মেট্রো গ ১২-৬৬৯৪) ঢাকার উত্তরা থেকে চুরি করে আনা হয়। সেটি বিক্রির জন্য তারা ভাদই মসজিদ এলাকায় অবস্থান করছিলেন। হাবিবের প্রাথমিক স্বীকারোক্তির বরাতে এজাহারে বলা হয়েছে, ঘটনার দিন রাতে হাবিব কামালের ওয়ার্কশপের কাছে মহসিনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সে সময় মহসিন একটি প্রাইভেটকার ওয়ার্কশপ থেকে বের করে পেট্রোলপাম্পে নিয়ে যান। পরে মহসিন হাবিবকে ওই গাড়িসহ তার এক বন্ধুকে আনতে ধুলিয়াখাল যাওয়ার কথা বলেন। মহসিনের কথামতো তার বন্ধুকে নিয়ে ভাদই মসজিদের পাশে পৌঁছলে তিনি সিগারেট কিনতে গাড়ি থেকে নামেন। ঠিক তখনই ডিবির লোকজন গাড়ির কাগজপত্র দেখাতে বলেন হাবিবুরকে। তখন হাবিবুর জানান, গাড়িটির মালিক মহসিন। তিনি ডিবির কর্মকর্তাদের মহসিনের সঙ্গে কথাও বলিয়ে দেন। মহসিন কাগজপত্র নিয়ে যাবেন বলে জানালেও পরে তিনি আর যাননি।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সদর থানার ওসি মাসুক আলী জানান, মহসিনের বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলা আছে। তিনি অন্য কাজে ব্যস্ত থাকায় মামলার সংখ্যা বলতে পারেননি।

এদিকে হাবিবুরের মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই দেবাশীষ দেশ রূপান্তরকে জানান, এখনো মামলাটি তদন্তাধীন রয়েছে। মহসিনকে ধরতে একাধিকবার অভিযান চালানো হয়েছে। তবে তাকে এখনো গ্রেপ্তার করা যায়নি।

মহসিন দেশ রূপান্তরকে ফোনে বলেন, এ রকম কোনো কিছু আমার নামে নেই। বিভিন্নজন বিভিন্নভাবে আমার নামে ষড়যন্ত্র করতে পারে। তিনি গাড়ি চুরির অভিযোগকে সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সাংসদ আবু জাহির দেশ রূপান্তরকে বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না। কাল জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন জানিয়ে তিনি বলেন, আমি এখন নেতাকর্মী নিয়ে ব্যস্ত। তার সঙ্গে মহসিনের সম্পর্কের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ও আমার আপন ভাইয়ের ছেলে না।

মূল সংবাদ উৎস।।