ঢাকাশনিবার , ২৪ জুলাই ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গণসঙ্গীত শিল্পী ফকির আলমগীরের জীবন ও কর্ম

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জুলাই ২৪, ২০২১ ১০:৪৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

শিব্বির আহমদ আরজু :  ফকির আলমগীর একজন প্রখ্যাত গণসঙ্গীতশিল্পী, মুক্তিযোদ্ধা ও লেখক। তিনি গানকে ভালোবেসেছেন। বীরমুক্তিযোদ্ধে স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রে যোগ দিয়ে শব্দ সৈনিক হিসেবে দেশের জন্য অসামান্য অবদান রেখেছেন। পৃথিবীর বাংলাভাষাবাসি মানুষ নেই ফকির আলমগীরকে কেউ চিনে না। অসংখ্য কালজয়ী গান গেয়েছেন তিনি। দরাজকণ্ঠ। লম্বাকেশ। দেখলেই যেন মনে হয় আপাদমস্তক একজন গুণী শিল্পী।

ফকির আলমগীর গান গেয়ে মানুষের হৃদয়কে জয় করতে পেরেছিলেন। পেয়েছেন একুশে পদকসহ অনেক সম্মাননা।

জীবন ও কর্ম : ১৯৫০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা থানার কালামৃধা গ্রামে জন্মগহণ করেছিলেন ফকির আলমগীর। ফকির হলো বংশগত উপাধি। পিতা হাচেন উদ্দিন ফকির ও মা বেগম হাবিবুন্নেছা। ১৯৬৬ সালে গোবিন্দ হাইস্কুল থেকে মাধ্যমকি পাস করে জগন্নাথ কলেজে ভর্তি হন। সেখান থেকে স্নাতক পাস করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিকতায় এম এ পাস করেন।

 

 

 

ছবি : মরহুম বীরমুক্তিযোদ্ধা ফকির আলমগীরের ফাইল ছবি

 

 

 

 

রাজনীতি শুরু হয় ষাটের দশক থেকে। ছাত্র ইউনিয়নের মেনন গ্রুপের একজন সক্রিয় কর্মী ছিলেন তিনি। ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুুদ্ধে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে একজন শব্দ সৈনিক হিসেবে যোগ দিয়ে দেশের জন্য অবদান রাখেন। ফলশ্রুতিতে ১৯৯৯ সালে এ গণসঙ্গীত শিল্পীকে একুশে পদকে ভূষিত করে বাংলাদেশ সরকার।

এ ছাড়া মাওলানা ভাসানী পদক ও সিকোয়েন্স সম্মাননা পদকসহ অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হন তিনি। ফকির আলমগীর প্রখ্যাত গণসঙ্গীত শিল্পীর পাশাপাশি একজন লেখক ও ছিলেন। ৯টি বই রচনা করেছেন। ঋষিজ শিল্পগোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতাও তিনি।

মৃত্যু : কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ঢাকা ইউনাইটেড হাসপাতালে শুক্রবার (২৩ জুলাই) রাত ১০টা ৫৬ মিনিটে প্রখ্যাত গণসঙ্গীত শিল্পী বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকির আলমগীর ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। সাথে সাথে একটি অধ্যায়ের পরিসমাপ্তি হলো।

লেখক : সাধারণ সম্পাদক,বানিয়াচং মডেল প্রেসক্লাব, বানিয়াচং, হবিগঞ্জ।

Developed By The IT-Zone