ঢাকারবিবার , ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২

কেমন আছেন কালিয়ার ভাঙ্গা আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দারা ?

মোফাজ্জল ইসলাম সজীব,নবীগঞ্জ
ফেব্রুয়ারি ৬, ২০২২ ৬:০২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নবীগঞ্জ উপজেলা কালিয়ার ভাঙ্গা ইউনিয়নের মান্দারকান্দি গ্রামের আশ্রয়ন প্রকল্পে মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার পেয়েছেন প্রতিবন্ধীসহ ৪৪ টি পরিবার। সবাই গৃহহীন ও ভূমিহীন হলেও তার মধ্যে একজন প্রতিবন্ধী ভিক্ষুকের ‘স্বপ্নের নীড়’ পেয়ে যেন আনন্দের সীমা নেই। মাথা গোঁজার ঠাই পেয়ে তার চোখেমুখে তৃপ্তির ছাপ।

উপজেলা ভবঘুরে ও ভিক্ষা করতেন ঐ ব্যক্তি (২৮)। এই ভিক্ষুক প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পাওয়ার সনদ হাতে পেয়ে বলেন ‘যার বাড়ি নেই সেই বুঝে আশ্রয় পাওয়ার আনন্দ’!

রবিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলা কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নের মান্দারকান্দি গ্রামের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশ্রয়ণ প্রকল্প-১ এর আওতায় গৃহহীনদের ঘর হস্তান্তর কার্যক্রমের ৬ মাস অতিবাহিত হয়।

আশ্রয়ন প্রকল্পের নুরুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি দৈনিক আমার হবিগঞ্জের প্রতিবেদক কে জানান,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘর উপহার পেয়ে ছয় মাস পুরণ হয় জমি ও ঘর নিজের নামে পাই ছেলে, মেয়ে, স্ত্রী কে নিয়ে আনন্দের সাথে দিন যাপন করছি, কিন্তু দুঃখের বিষয় এখানে গোসল কিংবা জিনিস পএ পরিস্কার করার মতো নেই কোন পুকুর। রাস্তা আছে ঠিকই নেই কোন ব্যবস্থা। একটা কালভার্ট করে দিলেই আমরা নিরাপদে রাস্তা পারাপার হতে পারি।

আশ্রয়ন প্রকল্পের রবীন্দ্র শব্দ কর বলেন আমি হিন্দু সম্প্রদায়ের যেখানে আমাদের কোন লোক মারা গেলে দাহ করা হয়।  ঠিক এই জায়গায় একটি গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে । আশে পাশে নেই কোন পুকুর, রাতের বেলায় তো দুরের কথা, দিনের বেলায় কেউ পানি আনতে যায় না ভয় পায়।

এখানে দেওয়া হয়েছে টিউবওয়েল ঐ টিউবওয়েল টি অপসারণ করে অন্যত্রে স্হাপন করে দিলে আমাদের আর কোন সমস্যা নেই, একটি টিউবওয়েল থেকে সব সময় মাটি ছাড়া পানি আসে না আমরা নানান সমস্যায় ভুগছি ইউএনও ‘র দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

অনেকেই এখন পর্যন্ত তাদের ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ পাননি , তাদের ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকায় ছেলেমেয়েদের পড়ালেখায় ব্যাঘাত ঘটছে বলে জানান।

আঃ রকিব নামে একজন জানান আমি মুসলিম পরিবারের সদস্য । আমার ছেলে মেয়েদের কোরআন শিক্ষা নিতে পাঠাই পাশের একটা মসজিদে । মক্তব ও  মসজিদ কমিটির সদস্যরা আমার ছেলে মেয়েদের রোহিঙ্গা বলে মসজিদ থেকে তাড়িয়ে দেয় তারা।

কোরআন শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হওয়ার কারণে আশ্রয়ন প্রকল্পে একটি মসজিদ নির্মাণ করে দিলে প্রকল্পের ছেলেমেয়েরা কোরআন শিক্ষা নিতে পারবে ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রকল্পের সকল নারী, পুরুষ, সুমি রাণী দাশ, স্বামী করণ দাশ,মিনতী পাল, স্বামী রনজন পাল,রুপালী শব্দকর, স্বামী রবিনড শব্দকর,শ্রীমতী কর,স্বামী পুলীন শব্দকর, সিতা রাণী দাশ, রসীন্দ কর, কর্ণকর কর,প্রমিলা দেব, স্বামী রিনটু দেব,প্রবিন্দ্র শব্দকর,গীতা রাণী,অনীল শব্দকর, আবুজুল নেছা, আবুল মিয়া,আবদুর রকিব, আঃ সালাম, নুরুল ইসলাম, সপ্না বেগম, রুবি বেগম, মুহাম্মদ আলী, লাফু বেগম, ইমাম উদ্দিন, নুরজান আক্তার রনি,কামরুল হাসান, জাহেরা বেগম আঃ আলী, লালভানু, মতব্বির মিয়া,জুনু বেগম, চম্পা বেগম,আছিমা বেগম, ছায়েদ মিয়া।

এ বিষয়ে কথা হয় নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন’র সাথে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, আশ্রয়ন প্রকল্প পুকুরটি সরকারি জায়গায় আশ্রয়ন প্রকল্পে যারা আছেন তারা এই পুকুর ব্যবহার করবে কেউ যদি বাঁধা দেয় তাহলে তাকে জানাতে বলেন । টিউবওয়েল এর বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন কয়েকবার ওয়াস করা হয়েছে আসতে আসতে ঠিক হয়ে যাবে। রাস্তা মেরামতের বরাদ্দ হয়ে গেছে দ্রুত কাজ হবে বলে জানান তিনি ।

Developed By The IT-Zone