ঢাকাTuesday , 10 January 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর ৩১তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

Link Copied!

কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী জন্ম ১৯৩৩ সালের ২০ ডিসেম্বর। পড়াশোনাও হবিগঞ্জে। বৃন্দাবন কলেজের ছাত্র হিসাবে ভাষা আন্দোলন নেতৃত্ব দেবার জন্য হবিগঞ্জ মহকুমায় প্রথম কারাবরণ করেন।১৯৬৬, ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানে বঙ্গবন্ধুর সহচর হিসাবে গ্রেফতার হন। ৭০ সালে সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হোন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক ওয়ারল্যাসে প্রেরিত স্বাধীনতা ঘোষণাপত্রটি পেলেন মানিক চৌধুরী। শুরু করেন সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ। বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষনের প্রতিটি শব্দ আর প্রতিটি বাক্যকে বাস্তবায়নের জন্য মানিক চৌধুরী হবিগঞ্জে প্রতিরোধ যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে থাকেন।

এ সময় তার নির্বাচনী এলাকার চা শ্রমিকদের নিয়ে তিনি গঠন করেন বিশাল তীরন্দাজ বাহিনী। পরে কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী নেতৃত্বে হবিগঞ্জ অশ্রাগার হতে সরকারি অস্ত্র গোলাবারুদ সংগ্রহ করে সিলেটের প্রথম দীর্ঘতম যুদ্ধ শেরপুর-সাদিপুর যুদ্ধের নেতৃত্ব দান করেন্ যুদ্ধ প্রশিক্ষণ প্রদান, খাদ্য সংগ্রহ এবং ভারত থেকে অস্ত্র সংগ্রহের ক্ষেত্রে মানিক চৌধুরী গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেন।

তার বহুমুখী সাহসের জন্য মানিক চৌধুরীকে ‘কমান্ড্যান্ট’ উপাধিতে ভূষিত করেন মুক্তিযুদ্ধকালীন চীফ অব স্টাফ মেজর জেনারেল এম এ রব বীর উত্তম। গোটা ৯ মাস বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বাধীনতার ঘোষণা পত্রকে বুক পকেটে রেখে দেশমাতৃকার জন্য নিজেকে বিসর্জন করেন।

স্বাধীন দেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে ১৯৭৩ সালে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে বিজয়ী হোন। শ্যামল প্রকল্পের রুপকার হিসাবে ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধুর কৃষি পদকে সম্মানিত হোন।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কৃষি সম্পাদক হিসাবে বলিষ্ঠ নেতৃত্বের অধিকারী মানিক চৌধুরী ৭৪ সালে হবিগঞ্জ মহকুমা গভর্নর নির্বাচিত হোন। ১৯৭৫ ১৫ আগষ্টে জাতির পিতার হত্যাকান্ডের প্রতিবাদ করায় কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীকে বিএনপি অবৈধ সরকার ৪ বছর বিনাবিচারে কারাদন্ড দান করে।

এই সময় তিনি অনেক শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের স্বীকার হোন। মানিক চৌধুরী জিয়া সরকারের মন্ত্রীত্বের প্রস্তাব প্রত্যাখান করে দীর্ঘ কারাজীবন বেচে নেন। কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর স্মৃতির স্বরণে ২০১৫ সালে তাকে বাংলাদেশ সরকারের সবোচ্চ সম্মান স্বাধীনতা পদকে ভূষিত করা হয়।

হবিগঞ্জ বাইপাস সড়কটিকে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা তার সরকারের মাধ্যমে কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর নামে নামকরণ করেন। এছাড়া কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী নামে হবিগঞ্জ হাসপাতাল সড়কে মানিক চৌধুরী পাঠাগার স্হাপনের মাধ্যমে বীর এই মুক্তিযোদ্ধার স্বপ্ন পূরণে কাজ অব্যাহুত রয়েছে।

কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী ৩১ তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে তার মাগফিরাত কামনায় হবিগঞ্জের মাস্টার কোয়ার্টারে শোকরগোজার দাতব্য সেবালয়ের পক্ষ হতে আরও একটি সেবা খাত ‘রোকেয়া শোকরগোজার নূরে মদিনা মক্তব ও হেফজখানা’ চালু করা হয়েছে।

এই প্রতিষ্ঠানটি সাদকায়ে জারিয়া হিসাবে আল্লাহতালা কবুল যেনো করে তার জন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করেছেন শোকর গোঁজার সেবালয়ের প্রতিষ্টাতা মানিক চৌধুরী কন্যা আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী।

বাবার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বেগম রোকেয়া শোকরগোজার নূরে মহিলা মক্তব ও হেফজখানা, সালাম ভিলা, মাস্টার কোয়ার্টারে এই উপলক্ষে আল কোরআন পাঠ ও বিশেষ দোয়া মাহফিলের ব্যবস্থা করা হয়েছে।