ঢাকাশনিবার , ৩১ ডিসেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ঐতিহ্যবাহী বাউল গানে অশ্লীলতার অনুপ্রবেশ

এম এ রাজা
ডিসেম্বর ৩১, ২০২২ ৮:৪১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী বাংলা বাউল গানে অশ্লীলতার অনুপ্রবেশ, শেষ পরিণতি বাংলাদেশের সিনেমার মতোই হবে বলে মনে করছেন সুশীল সমাজ।

ইতিহাস ঘাটাঘাটি করলে দেখা যায়, বাংলা সিনেমার স্বর্ণযুগ ছিল ১৯৬০-১৯৯০ পর্যন্ত,আর ২০০০-২০০৬ সাল পর্যন্ত এই সময়টাকে বিজ্ঞরা বাংলা সিনেমার অশ্লীলতার যোগ বলে আখ্যা দিয়েছেন। এই সময়ে প্রায় ৪শত অশ্লীল সিনেমা তৈরি হয়েছিল।

নির্মিত সিনেমা গুলো বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, সবগুলো সিনেমার ধরন প্রায় একই। ধর্ষন,নারী জাতিকে নিচু করা এবং নারীদের পণ্য হিসেবে ব্যবহার করা হয় অধিকাংশ সিনেমা গুলোতে।

পরিণতি হিসেবে এই গ্লানি এখনো টানতে হচ্ছে সংশ্লিষ্টদের। সিনেমা হলে গিয়ে সিনেমা দেখা তো দূরের কথা, অনেকে বাসায় পর্যন্ত এখন আর বাংলা সিনেমা দেখেন না।

দেশের অনেকগুলো সিনেমা হল বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশে যেখানে ১০-২০ লক্ষ টাকা বাজেট সিনেমা তৈরি করতে প্রযোজক/পরিচালকদের হিমশিম খেতে হয়, সেখানে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে শত কোটি টাকা বাজেটে সিনেমা তৈরি করা হচ্ছে। বাংলা সিনেমার এই অধঃপতনের জন্য দায়ীকে? এই দায়ভার কে নিবে? তাহলে ধরে নেয়া যায় বাংলা সিনেমার পথেই হাঁটছে ঐতিহ্যবাহী বাউল গান।

বিগত প্রায় ১৫ বছর যাবত দেশের বিভিন্ন অলি আউলিয়ার মাজারের বাউল গানের নামে অধিকাংশ নারী শিল্পীদের দিয়ে আয়োজকরা অশ্লীল গানের আসর বসাচ্ছেন। আবার মঞ্চের মধ্যে শিল্পীদের ছবি না দিয়ে আয়োজকদের রংবেরঙের ছবি দিয়ে বাহারি ব্যানার ঝুলানো হচ্ছে।

শিল্পীদের ছবি ব্যানারে না দিয়ে আয়োজকদের ছবি ব্যানারে কেন এই প্রশ্নের জবাবে আয়োজকদের দাবি টাকা দিয়ে গানের আসরের আয়োজন করব আমরা আর ছবি লাগামু শিল্পীদের এটা কেমন কথা।

এইসব আসরের অধিকাংশ দর্শক শ্রোতা নিম্নআয়ের গ্রামে বসবাসকারী মানুষ। ক্ষেত্র বিশেষে মধ্যবয়সী এমনকি বৃদ্ধদেরও দেখা যাচ্ছে। ডিজে, উচ্চ শব্দের সাউন্ড সিস্টেমে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করে তালে বেতাল নেচে বেসুরা গলায় গান করেন ওই শিল্পীরা। এসব অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির নাচ গানে মুগ্ধ হয়ে বিপথগামী মানুষরা নারী শিল্পীদের উজাড় করে দিচ্ছেন পকেটের সব টাকা পয়সা।

সবচেয়ে অবাক করার বিষয় হচ্ছে এসব গানের দর্শক শ্রোতারা নারী শিল্পীদের টাকা উপহার দেয়ার ক্ষেত্রে আগে থেকেই টাকা খুচরো করে নেন। যেমন ১শত টাকা উপহার দেওয়ার ক্ষেত্রে ১০ টাকার ১০টা নোট নিয়ে নেন। দেওয়ার সময় নারী শিল্পীকে একটা একটা করে উপহার দেন যাতে করে তাদের গা ঘেঁষে বেশি সময় দাঁড়িয়ে থাকে নারী শিল্পীরা। রীতিমতো যৌন সুড়সুড়ি, বাইজি নাচানোর মত।

এসব করতে করতে মাঝেমধ্যে শোনা যায়, নারী শিল্পীদের গায়ে হাত দেওয়ার মতো ঘটনাও ঘটে। গত বছরে বাউল গানের আসরে বিপথগামী এক দর্শক শ্রোতা নারী শিল্পীর স্তনের নিপল কামড় দিয়ে নিয়ে যাওয়ার মতো ভয়ঙ্কর কুরুচিকর ঘটনাও ঘটেছে।

এদের মধ্যে একশ্রেণীর দর্শক শ্রোতারা আছেন কিছুটা বিত্তশালী তারা নারী শিল্পীদের মুখে নিজের নাম শুনতে চান গানের ভিতর। গানের ভিতর যখন অমুক ভাই বলে ডাক দেন নারী শিল্পী, তখন বিত্তশালী দর্শক শ্রোতা একশো টাকার জায়গায় ৫শত টাকা উপহার হিসেবে দেন। শিল্পীর মুখে নিজের নাম শোনা টাকা দেওয়া পুরুষ শিল্পীদের বেলায় শতকরা ১ ভাগও চোখে পড়ে না।

নারী শিল্পীরা বাউল গানের নামে কুরুচিকর অঙ্গভঙ্গি করে বেসুরা গলায় গান গেয়ে উপার্জিত টাকা আবার একা নিতে পারেন না। এখানেও আছে সিন্ডিকেট, উপার্জিত টাকার মোটা একটি ভাগ নিয়ে নেন মাজারে সংশ্লিষ্ট লোকেরা।

আরো একটি ভাগ চলে যায় স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা ও ক্যাডার বাহিনীর হাতে। সব ভাগাভাগির পর উপার্জিত টাকার খুব কমই থাকে নারী শিল্পীদের হাতে। এর ফলে মাজার সংশ্লিষ্ট নারী শিল্পীরা আজীবনই দারিদ্রতার সাথে জীবন যাপন করে।

অথচ মূল ধারার বাউল গানের ইতিহাস ঘাটাঘাটি করলে জানা যায়, হাজার বছরের ঐতিহ্যবাহী বাউল গান ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে এক সময় মানুষ আধ্যাত্মিক গান হিসেবে গ্রহণ করত। সুস্থ বিনোদনের পাশাপাশি মনকে প্রফুল্ল করত, যার যার ধর্মীয় অনুশাসন মোতাবেক। গানের মাধ্যমে শিল্পী ও দর্শক-শ্রোতারা নিজেদের সৃষ্টিকর্তাকে হৃদয়ে ধারণ করার চেষ্টা করতেন।

বাউল গান বা বাউল শব্দটির উৎপত্তি নিয়ে মতভেদ রয়েছে। অতিপ্রাচীনকাল থেকে বাউল শব্দটির প্রচলন লক্ষ্য করা যায়। আনুমানিক সপ্তদশ শতক থেকে বাউল নামের ব্যবহার ছিল বলে জানা যায়, “চৈতন্যচরিতামৃত” গ্রন্থের আদিলীলা অংশে এর ব্যবহার লক্ষ্য করা করা যায়, চৈতন্যচরিতামৃত গ্রন্থে মহাপ্রভু, রামানন্দ রায় ও সনাতন গোস্বামীর নিকট কৃষ্ণ বিরহ বিধুর নিজেকে মহাবাউল হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

ইতিহাস বলে ১৭৭৪-১৮৯০ সালের দিকে শিল্পী লালন সাঁই এর মাধ্যমে বাউল গানের প্রচলন সর্বমহলে প্রশংসিত হয়। জীবদ্দশায় একেবারেই প্রচারবিমুখ ছিলেন, লালন সাঁই তার দীর্ঘ সংগীত জীবনে অসংখ্য বাউল গান সৃষ্টি করেন, যা আজ অবধি ব্যাপক ভাবে মানুষের মনের মণিকোঠায় জায়গা দখল করে আছে। বর্তমান তরুণ প্রজন্মের কাছেও লালনের গান আধুনিকতার প্রতীক হিসেবেই মূল্যায়ন পায়।

মাটি, মানুষ, প্রকৃতি, জীবনবোধ, ধর্ম, প্রেম এবং দেশের কথাই বেশির ভাগ সময় ওঠে এসেছে লালনের গানে লালনের গানের সংখ্যার তেমন কোন প্রামাণিক দলিল নেই। তবে তার সৃষ্ট গান অসংখ্য হওয়ায় সব গান সংরক্ষণ করা সম্ভব হয়নি। লালন সাঁই’র গান উপমহাদেশ ছাড়িয়ে সারা পৃথিবীতেই প্রশংসিত হয়েছে ব্যাপকভাবে।

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের হাত ধরেই লালনের গান আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রবেশ করে। ১৯২২ সালে লালন সাঁইয়ের ২০টি গান রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সংগ্রহ করেন। পরবর্তীতে ভারতীয় পত্রিকার হারামণি শাখায় গানগুলো প্রকাশিত হয়।

সিলেটের ভাটি অঞ্চলের কিংবদন্তি শাহ আব্দুল করিম তার জীবদ্দশায় রচিত গানগুলোতে ভাটি অঞ্চলের মানুষের জীবনের সুখ প্রেম-ভালোবাসার পাশাপাশি সকল অন্যায়, অবিচার, কুসংস্কার আর সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে বিশেষ অবদান রেখেছেন। শাহ আব্দুল করিম বিভিন্ন সময়ে সাক্ষাৎকারে বলেছেন তার গানের অনুপ্রেরণা পেয়েছেন প্রখ্যাত বাউল সম্রাট ফকির লালন শাহ,পুঞ্জু শাহ,দুদ্দু শাহ এর দর্শন থেকে।

এপার বাংলা ওপার বাংলার ঐতিহ্যবাহী লোকায়ত সংগীতের একটি অনন্য ধারা বাউল গান। আবহমান বাংলার প্রকৃতি, মাটি মানুষের জীবন জিজ্ঞাসা একাত্ম হয়ে ফুটে ওঠে বাউল গানে। ফুটে ওঠে সাম্য ও মানবতার বাণী।

বাউল গান গবেষকদের মতে, নিজ দেহের মধ্যে ঈশ্বরকে পাওয়ার তীব্র ব্যাকুলতা থেকে বাউল ধারার সৃষ্টি। বাউল সাধকদের সাধনার মাধ্যম হচ্ছে গান। সাধকের কাছে সাধন-ভজনের গূঢ়তত্ত্ব প্রকাশ পায় গানের মাধ্যমেই। প্রত্যেক মানুষের অন্তরে যে পরম সুন্দর সৃষ্টিকর্তার উপস্থিতি, সেই অদেখাকে দেখা আর অধরাকে ধরাই বাউল সাধন-ভজনের মূল উদ্দেশ্য। বাউলের ভূখণ্ড তার দেহ, পথপ্রদর্শক তার গুরু,আর সাধনপথ বলতে সুর, মন্ত্র আর দেন ধারণা বলতে একতারা।

তখনকার সময়ে বাউলরা ভিক্ষা করেই তারা জীবনযাপন করতেন। সারাদিন গ্রামে গ্রামে ঘুরে ভিক্ষা না পেলেও তাদের দুঃখ ছিল না। তাদের যত দুঃখ ছিল মনের মানুষকে না পাওয়ার,অর্থাৎ সৃষ্টিকর্তাকে মনের মধ্যে পরিপূর্ণভাবে ধারণ না করতে পারার।

বাউলরা মনে প্রাণে বিশ্বাস করতেন সাধনপথ যত দীর্ঘায়িত হয়, ব্যাকুলতা তত বাড়ে; দুঃখ যত গভীর হয়, গান হয় তত মানবিক। বাউলরা তাদের দর্শন ও মতামত বাউল গানের মধ্যেই প্রকাশ করতেন।

হাজার বছরের লালিত পালিত ঐতিহ্যবাহী বাউল সংস্কৃতিকে যারা কলুষিত করছে অবিলম্বে তাদেরকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন সুশীল সমাজ। সম্প্রতি হবিগঞ্জ জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত মোতাবেক এই বছর জেলার মাজার গুলোতে বাউল গানের নামে অশ্লীল ডিজে নাচ গান বন্ধ করা হয়েছে।

নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবিদার হবিগঞ্জের প্রশাসন। একই সাথে সারাদেশে আজীবনের জন্য এই সমস্ত অপসংস্কৃতিকে বন্ধের দাবি জানিয়েছেন সর্বস্তরের মানুষ।

 

সহ-সম্পাদক দৈনিক আমার হবিগঞ্জ।

জেলা প্রতিনিধি জাতীয় দৈনিক ভোরের ডাক।

 

 

Developed By The IT-Zone