ঢাকাSunday , 5 November 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

এলজিইডির সরকারি সম্পত্তি ব্যবহার হচ্ছে প্রকৌশলীর গোয়াল ঘরে !

তারেক হাবিব
November 5, 2023 10:40 am
Link Copied!

সরকারি সম্পত্তি ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে জাহিদুল ইসলাম নামে প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে। তিনি মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী ও বানিয়াচং উপজেলার সিকান্দরপুর গ্রামের সাজিদুল ইসলাম ধনু মিয়ার পুত্র।

স্থানীয়রা জানান, প্রায় ৫ বছর আগে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধিনে চাকুরী লাভ করেন জাহিদুল ইসলাম। এলজিইডিতে নিয়োগ লাভের পরই এলাকায় শুরু করেন নানা অনিয়ম। স্থানীয় গ্রাম্য দাঙ্গায় উস্কানি, ধর্মীয় বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নেতৃত্ব নিয়ে গ্রুপিং ইত্যাদির নেতৃত্বে জাহিদুল ইসলামের নাম।

অভিযোগ আছে যে, এক পক্ষকে অর্থ প্রদানের মাধ্যমে তিনি গ্রুফি তৈরি করে গ্রাম্য দাঙ্গা সৃষ্টি করেছেন। শুধু তাই নয়, স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতায় যাবতীয় উন্নয়নমূলক নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করছেন ব্যক্তিগত প্রয়োজনে।

সরেজমিনে ওই প্রকৌশলীর গ্রামের বাড়ি বানিয়াচং উপজেলার পুকড়া ইউনিয়নের সেকান্দরপুরে গেলে স্থানীয়রা জানান, এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী পদে নিয়োগ লাভের পরই রীতিমত আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে গেছেন জাহিদুল। এলাকার বিনা সুদে মহাজন তিনি। ধার-দেনায় টাকা ফেরত না নিয়ে একরকম জিম্মি করে রাখেন সাধারণ মানুষদের।

বিনোদন পার্ক বা রিসোর্ট স্টাইলে বানিয়েছেন বসত বাড়ি। বাড়ির সামনে-পেছনে নিয়ম বর্হিভূতভাবে স্থাপন করেছেন সোলারের সড়ক বাতি। সাধারণ মানুষের জন্য দুষ্পাপ্য এ সড়ক বাড়ি উন্নয়ন প্রকল্প (ইউজিডিপি) স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতায় গুরুত্বপূর্ণ সরকারি স্থাপনা, হাঠবাজার চুরি-ছিনতাই বেশী হওয়ার সম্ভাবনা এলাকাগুলোতে স্থাপন করার নির্দেশনা থাকলেও কৌশলে সেগুলো স্থাপন করেছেন নিজের বাড়িতে ও আশপাশের ঘনিষ্ঠ জায়গায় ।

এলজিইডি সুত্র জানায়, সাধারণত জনসমাগম বেশী হয় ও গুরুত্বপূর্ণ সড়কে, হাঠ-বাজারে ইত্যাদিতে জনস্বার্থে সড়ক বাতি ব্যবহারের কথা রয়েছে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট বিভাগের শীর্ষ দায়িত্বে থাকার সুবাদে কৌশলে সরকারি সম্পত্তি হাতিয়ে নিয়েছেন তিনি। সরকারি বরাদ্দে লাখ টাকা দামের একেকটি সড়ক বাতি তিনি স্থাপন করেছেন বাড়ির সামনে, গোয়াল ঘরে, বাড়ির পেছনে এবং পাশ্ববর্তী ঘাটলায়।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হাফেজ শামরুল ইসলাম বলেন, আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার আগে লাইটগুলো স্থাপন করা হয়েছে। এ সম্পর্কে এর চেয়ে বেশী কিছু বলতে পারছি না। ২নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আবুল কালাম জানান, লাইটগুলো কোথা থেকে আসছে তা তিনি জানেন না। তবে তার মনে হচ্ছে লাইটগুলো ব্যক্তিগতভাবে ম্যানেজ করেছেন প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলাম।

বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের স্বার্থে অভিযুক্ত প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলামের সাথে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের নিউজ ডেস্ক থেকে মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার পর কল রিসিভ করে রেগে গিয়ে বলেন,‘আমার বাড়িতে এগুলো কোথায় থেকে লাগিয়েছি আপনাকে কেন বলব? এগুলো আমি ঢাকা থেকে কিনেছি।

মৌলভীবাজার জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী আহমেদ আব্দুল্লাহ জানান, সরকারি লাইট ব্যক্তিগত প্রয়োজনে ব্যবহারের কোন তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেলে বিধি মোতাবেক জাহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।