ঢাকাMonday , 27 March 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

একদিনের মজুরি দিয়ে সেবামূলক কাজ করে যাচ্ছে ‘চা শ্রমিকদের সেবক’

Link Copied!

নিজ জনগোষ্ঠীর মুখে হাসি ফুটাতে ১৩০ জন চা শ্রমিকের সন্তান গড়ে তুলছেন ‘চা শ্রমিকদের সেবক’ নামে একটি অলাভজনক, স্বেচ্ছাসেবী ও অরাজনৈতিক সামাজিক সংগঠন। সংগঠনটির সদস্যরা নিজেদের প্রতি মাসের একদিনের মজুরি দিয়ে চা শ্রমিক জনগোষ্ঠীর মাঝে করে থাকেন সেবামূলক কর্মকান্ড।

গত স্বাধীনতা দিবসেও চুনারুঘাটের রামগঙ্গা এবং চাকলাপুঞ্জি চা বাগানের অসহায় দরিদ্র, এতিম, প্রতিবন্ধী ও সুবিধাবঞ্চিত চা শ্রমিকদের মধ্যে মশারী বিতরণ করেছেন সংগঠনটি।

সংগঠনের উদ্যোক্তা লিটন মুন্ডা ও পরিচালক শ্রী প্রসাদ চৌহানের নেতৃত্বে এ মশারী বিতরণ কার্যক্রমে অংশ নেন সদস্য শান্ত মৃধা, অমল উরাং, বাবলু তন্তুবায়, ওম প্রকাশ বাউরি, প্রশান্ত ভট্টাচার্য, বিশ্বনাথ কর্মকার, কৃষান কর্মকার, মাখন কৃষ্ণা গোয়ালা, মুন্না কর্মকার, বলরাম বাউরী প্রমুখ।

সংগঠনটির সাথে যুক্তরা জানান, সংগঠনের লক্ষ্য হচ্ছে চা শ্রমিক জনগোষ্ঠীর শিক্ষার হার বৃদ্ধির লক্ষ‍্যে আর্থিক সহায়তা ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ, গৃহহীনদের গৃহ নির্মাণ ও সংস্কার করা, চিৎকিসার জন‍্য আর্থিক সহায়তা প্রদান, প্রাকৃতিক দুর্যোগে খাদ‍্য সহায়তা ও বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ‍্যে আত্ম কর্মসংস্থানমুলক প্রশিক্ষণ ও আর্থিক সহায়তাসহ বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজ করা।

গত ডিসেম্বর মাসে সংগঠনটি গড়ে তোলার পর থেকে ধারাবাহিকভাবে নিজেদের মাসিক একদিনের মজুরি দিয়ে চা বাগানগুলোতে বিভিন্ন ধরনের সেবামূলক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন সংগঠনের সদস্যরা।

তন্মধ্যে গত শীত মৌসুমে চা শ্রমিকদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ, পরবর্তীতে চা বাগানের স্কুলে সিলিং ফ্যান ও দেয়াল ঘড়ি এবং আলমারি প্রদান উল্লেখযোগ্য।

গত স্বাধীনতা দিবসে মশারী পেয়ে চা শ্রমিকরা অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, বর্তমানে খাদ্য দ্রব্যের যে দাম তা আমরা ১৭০ টাকা মজুরিতে ৪/৫ জন কোনোভাবেই চলতে পারিনা, এবং মশারী কেনার মতো সামর্থ্যটুকুও আমাদের হয় না।

বর্তমান সময়ে মশার উপদ্রব বৃদ্ধি পেয়েছে এবং দোকান থেকে প্রতিদিন ১০ টাকা দিয়ে কয়েল কেনাও সম্ভব হয় না আমাদের।

মানুষকে শুধু ভোট দিয়ে নেতা করি কিন্তু আমাদের পরিবারের মানুষগুলো যে কিভাবে দিন যাপন করে তা খোঁজ নেওয়ার মতো কারো যেনো সময়ই হয়না, আপনাদের পেয়ে মনে হচ্ছে ঈশ্বর পাঠিয়েছেন।

তা না হলে আমাদের মতো মানুষের খোঁজ আর কে নেয়? আপনাদেন সংগঠনের জন্য মন থেকে আর্শীবাদ করি যেনো এভাবেই মানুষের সেবা করে মানুষের মুখে হাসি ফোঁটাতে পারেন আর আপনারা যারা এই সংগঠনে যুক্ত সকলই যেনো দীর্ঘজীবী হোন।