ঢাকাWednesday , 21 February 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

উচ্চ আদালতের নির্দেশনা থাকার পরও দখলমুক্ত হচ্ছে না দেবোত্তর সম্পত্তি

Link Copied!

১৫ দিনের মধ্যে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে দেবোত্তর সম্পতি পুনরুদ্ধার করার আদেশের ২ মাস পার হলেও দখলমুক্ত না হওয়ায় চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে হবিগঞ্জের হিন্দু ধর্মাবলম্বীসহ সচেতন মহলে। মহামান্য উচ্চ আদালতের এমন আদেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বহাল তবিয়তে আছেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রিচি ও লুকড়া এলাকার দখলবাজরা। বুধবার (২০ফেব্রুয়ারি) সরেজমিনে ওই এলাকা ঘুরে এমন তথ্যই চোখে পড়ে।

স্থানীয় হিন্দু ধর্মাবলম্বী ও সচেতন মহলের লোকজন জানান, রিচি এলাকার আফতাব আলীর পুত্র নূর মোহাম্মদসহ আরও কয়েকজন দখলবাজ সিন্ডিকেটের কবলে আছে শত বছরের পুরনো মন্দির, আখড়া এবং শ্মশানের জমিসহ আরো কিছু দেবোত্তর সম্পত্তি। প্রয়োজনীয় জায়গা সংকটে ব্যহত হচ্ছে ধর্মীয় কার্যক্রম। এমনকি ভালভাবে হচ্ছে না মরদেহের সৎকার।

সূত্র জানায়, গত ১১ ডিসেম্বর হবিগঞ্জের সদর উপজেলার লুকড়া গ্রামের শ্রী শ্রী গোপাল জিউর আখড়া (মন্দির ও শ্মশান) এবং হবিগঞ্জের সদর উপজেলার রিচি গ্রামের বৈষ্ণব আখড়ার (মন্দির ও শ্মশান) জায়গা দখল করে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা স্থাপনা উচ্ছেদের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্টদের এই আদেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়। আর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে কি না, তা নিশ্চিত করে বাদী পক্ষকে ১৫ দিনের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়।

উচ্চ আদালতের বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি মোঃ আতাবুল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন। রুলে মন্দির ও শ্মশানের জায়গা পুনরুদ্ধারে বিবাদীদের ব্যর্থতা কেন বেআইনি এবং আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়েছেন আদালত। চার সপ্তাহের মধ্যে ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আইনজীবী। তিনি বলেন, ‘হবিগঞ্জ সদর উপজেলার শত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী মন্দির ও শশ্মশানের জায়গা দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে ১৬ জন ব্যক্তি দখল করে রেখেছেন। এর মধ্যে হবিগঞ্জের সদর উপজেলায় লুকড়া গ্রামের শ্রী শ্রী গোপাল জিউর আখড়ার (মন্দির ও শশ্মশান) জায়গা অবৈধভাবে দখল করে রেখেছে জহির মিয়া মেম্বারসহ একাধিক ব্যক্তি। আর হবিগঞ্জের সদর উপজেলায় রিচি গ্রামের বৈষ্ণব আখড়ার (মন্দির ও শশ্মশান) জায়গা জবর দখল করে রেখেছেন ওই এলাকার নূর মোহাম্মদসহ একাধিক ব্যক্তি।

মন্দির ও শ্মশানের জায়গার এসএ পর্চা খতিয়ান নং-১, ২৬৬ দাগে মন্দিরের ৩৪ শতক জমি ও ২৬২ দাগে শশ্মশানের ৭০ শতক জমি। যেগুলো নতুন জরিপেও লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। তবে সবগুলোই এখন পর্যন্ত কোন ব্যক্তির নামে করা হয়নি যা খতিয়ান নং-১ এ লিপিবদ্ধ আছে। একইভাবে শ্রী শ্রী গোপাল জিউর আখড়ার জায়গা জহির মিয়া মেম্বারসহ একাধিক ব্যক্তি অবৈধভাবে দখল করে ব্যবহার করছেন।

তাই ওই দুটি মন্দির ও শশ্মশানের জায়গা পুনরুদ্ধার করে সনাতন ধর্মাবলম্বীর পূজা, আরাধনা ও সৎকার কার্যক্রম পুনরায় চালু করার দাবি জানিয়ে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক বরাবরে দু’বার আবেদন করা হয়। তবে সে আবেদন নিষ্পত্তি করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় এর প্রতিকার চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়।

হবিগঞ্জের শ্রী শ্রী গোপাল বিশ্বম্বর জিউ ঠাকুর অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সুমন্ত্র দাস গুপ্ত বাদি হয়ে গত মাসে রিটটি (রিট পিটিশন নম্বর: ১৩৯৭০/২০২৩) দায়ের করেন। উচ্চ আদালতের নির্দেশনা থাকার পরও দখলমুক্ত না করার বিষয়ে কারণ জানতে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক জিলুফা সুলতানার মোবাইল ফোনে গতকাল সন্ধ্যা ৭টা ৫২ মিনিটে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি।