ঢাকাSunday , 13 March 2022

ইউনিয়ন পরিষদের এলজিএসপি প্রকল্প : হদিস মিলছে না হবিগঞ্জ জেলার পাঁচ বছরের বরাদ্দের ব্যয় না করা টাকার

Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলায় ২০১৬-১৭ থেকে ২০২০-২১ অর্থবছরের মোট ৫ বছরের লোকাল গভর্নমেন্ট সাপোর্ট প্রজেক্ট (এলজিএসপি) বরাদ্দকৃত টাকার ব্যয় না হওয়া অংশ অর্থাৎ অব্যয়িত অর্থের হদিস মিলছে না।

ইউনিয়ন পরিষদ গুলির বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির জন্য বরাদ্দকৃত অর্থের সবচেয়ে বড় অংশ আসে এলজিএসপি ৩ থেকে।

এ খাত হতে প্রাপ্ত অর্থ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও সদস্যরা বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের প্রকল্প গ্রহণ করে ব্যয় করে থাকেন।

এরমধ্যে বেশকিছু প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় হতে কম পরিমাণ প্রকৃত ব্যয় করে এই কাজ সম্পাদন করে ফেলেন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও সদস্যরা।

নিয়মানুযায়ী এ ধরনের বেঁচে যাওয়া অর্থ সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগে বিধি মোতাবেক ফেরত প্রদান করতে হয়।

কিন্তু হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের বেঁচে যাওয়া অর্থের হিসাব এলজিএসপির সরকারি মোবাইল অ্যাপে তে প্রদর্শন করা হলেও হঠাৎই এসব অর্থ খরচ হয়ে গেছে দেখিয়ে দেয়া হয়।

এমনকি হাওয়া হয়ে গিয়েছে অবৈধ অর্থ রয়েছে এমন বেশকিছু প্রকল্পের নাম।

গত বছরের ২৬ অক্টোবর তথ্যানুসন্ধানের প্রয়োজনে এলজিএসপির সরকারি এপে থাকা তথ্য যাচাই করে দেখা যায় লাখাই উপজেলার বুল্লা ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি প্রকল্পে অবৈধ অর্থ রয়েছে।

এরমধ্যে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ভরপুর্নী বাজারের উত্তর-পূর্ব রাস্তা ইট সলিং প্রকল্পের প্রাক্কলিত দেখানো হয় ২ লক্ষ টাকা এ প্রকল্পের প্রকৃত ব্যয় এপে প্রদর্শিত হয় ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা পরবর্তীতে মাসখানেক পর এপটিতে এ প্রকল্প সংক্রান্ত তথ্য অদৃশ্য হয়ে যায়।

২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৫ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন রাস্তায় আরসিসি রিং পাইপ স্থাপন প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ১ লক্ষ টাকার মধ্যে ৯৩ হাজার ৫ শত টাকা প্রকৃত ব্যয় দেখানো হয়, এরপর অ্যাপে এ প্রকল্পের প্রকৃত ব্যয় ১ লক্ষ টাকা প্রদর্শন করা হয়।

অনেক প্রকল্পে ৫০ টাকা থেকে শুরু করে বিভিন্ন অংকের অব্যয়িত অর্থ দেখা যায়। এছাড়াও একই উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় থেকে প্রকৃত ব্যায়ের তারতম্য পাওয়া যায়।

একইভাবে অনুসন্ধানে পুরো জেলার বিভিন্ন উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের অব্যয়িত অর্থের হিসাব এলজিএসপি এপে পাওয়া যায়।

পরবর্তীতে একটি সূত্র মারফত জানা যায় ইউনিয়ন নির্বাচনের প্রাক্কালে এ সকল অব্যয়িত অর্থের হিসাব আর থাকবে না বলে সংশ্লিষ্ট একটি মহল থেকে নির্দেশনা এসেছে।

এর পরপরই বিষয়টি যাচাই করতে গিয়ে ঘটনার সত্যতা মেলে। এলজিএসপির সরকারি অ্যাপ এ গিয়ে ওই প্রকল্প গুলির প্রাক্কলিত ব্যয় ও প্রকৃত ব্যয় সমান করে দেয়া হয়েছে বলে দেখা যায়।

এ বিষয়ে লাখাই উপজেলার বুল্লা ইউনিয়ন পরিষদের সদ্য সাবেক চেয়ারম্যান শেখ মুক্তার হোসেন বেনুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমাদের সম্পাদনকৃত প্রকল্পের যাবতীয় তথ্য যথাযথ প্রক্রিয়ায় উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করা হয়।

এলজিএসপি এপে তথ্য প্রদর্শন করার বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ নির্ধারন করে থাকেন।

এ ব্যাপারে জানতে জেলা স্থানীয় সরকার উপ-পরিচালক নাজমুল হাসান এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এমআইএস মেইনটেইন এর জন্য এলজিএসপি অ্যাপে অব্যয়িত অর্থ প্রদর্শন করা না হয়ে থাকতে পারে।

বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট টিমের সাথে কথা বলে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

এলজিএসপি ডিস্ট্রিক্ট ফ্যাসিলিটেটর ফরহাদ হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এপের বিষয়টি সেন্ট্রাল থেকে ম্যানেজ করে বিধায় এর কারণ তিনি জানাতে পারবেন না বলে জানান।

তবে ইউনিয়ন পরিষদের একাউন্টে অব্যয়িত অর্থের টাকা রয়ে গিয়েছে বলে তিনি দাবি করেছেন।

কিন্তু কোন কোন ইউনিয়নে কত টাকা অব্যয়িত রয়েছে তা তিনি জানাতে পারেননি।