ঢাকাWednesday , 8 February 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আমার হবিগঞ্জে আমার তিন বছর

Link Copied!

বিনীতভাবে জানাচ্ছি, আমি ১৯৯১ সাল থেকে দেশের প্রথম শ্রেণির জাতীয় পত্রিকাসমূহে লেখালেখি ও সাংবাদিকতা করে আসছি।

অধিকন্তু মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ে আমার ৩টি গ্রন্থ ইতোমধ্যেই প্রকাশিত হয়েছে। কর্মজীবনে আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মার্কেটিং বিষয়ে বিবিএ ও এমবিএ ডিগ্রি লাভ করে বহুজাতিক কোম্পানী বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেড ও ইউনাইটেড গ্রুপে উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে দীর্ঘকাল দায়িত্ব পালন করেছি।

লেখালেখি ও ব্লগিং সূত্রে সুশান্ত দাস গুপ্ত দাদার সাথে আমার পরিচয় ১৭ বছর ধরে। ২০১৯ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি তিনি হঠাৎ আমাকে প্রকাশিতব্য দৈনিক আমার হবিগঞ্জের ‘নির্বাহী সম্পাদক’ হিসেবে দায়িত্ব পালনের প্রস্তাব দেন।

অবাক করা বিষয় হলো, আমার ইতিবাচক সম্মতি পেয়ে দাদা ত্বরিতগতিতে ‘আমার এমপি স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংস্থা’র ফাউন্ডার চেয়ারম্যান হিসেবে তার স্বাক্ষরিত অফিসিয়াল যোগদানপত্র আমাকে পাঠালেন। আমি সাদরে তা’ গ্রহণ করি।

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আমি পরিশ্রম, নিষ্ঠা, একাগ্রতা, আন্তরিকতা ও সততার সাথে ‘নির্বাহী সম্পাদক’ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। এরপর ২০২১ সালের ৭ জুন সুশান্ত দাদা আমাকে পত্রিকার ‘ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক’ ও ‘প্রকাশক’ এর দায়িত্ব দেন।

মূলত তিনটি প্রতিষ্ঠান/সংগঠন পরিচালিত হচ্ছে আমাদের যৌথ নেতৃত্বে। বর্তমানে তিনি আমার হবিগঞ্জের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক, আমি ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক।

তিনি হবিগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি, আমি সাধারণ সম্পাদক। তিনি আমার ‘এমপি স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংস্থা’র কার্যনির্বাহী পরিষদের সভাপতি, আমি সাধারণ সম্পাদক। জয় বাংলা !

২) বাংলাদেশে সাংবাদিকতায় অবদানের জন্য সরকারি ও বেসরকারি নানা পদক প্রদানের রেওয়াজ আছে। কিন্তু ‘সাহসী সাংবাদিকতা’র জন্য কোন জাতীয় বা স্থানীয় পত্রিকা সাংবাদিকদের মূল্যায়ন করেছে বলে আমার জানা নেই। এক্ষেত্রে সুশান্ত দাদা এক অনন্য ও ব্যতিক্রমী দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

গত বছর ১৬ এপ্রিল আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার ২য় বর্ষপূর্তি ও স্বর্ণপদক প্রদান অনুষ্ঠানে আমাকেসহ ১১জন সাংবাদিককে স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। সাংবাদিকদের হাতে স্বর্ণপদক তুলে দেন প্রধান অতিথি এড.আব্দুল মজিদ খান এমপি, বিশেষ অতিথি সাবেক এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা। আমার ত্রিশ বছরের লেখালেখি ও সাংবাদিকতা জীবনে এটাই প্রথম স্বর্ণপদকপ্রাপ্তি। জয় বাংলা !

৩) দুর্নীতি, অনিয়ম আর রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে নিয়মিত সংবাদ প্রকাশ করে ইতোমধ্যে ‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’ পত্রিকাটি হবিগঞ্জে হট কেক তথা সবচেয়ে জনপ্রিয় পত্রিকায় পরিণত হয়েছে। সংবাদ প্রকাশের জেরে সুশান্ত দাদা, আমি ও আমার কলিগগণ জেল খেটেছি। আমাদের উপর হামলাও হয়েছে।

আমাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলাও হয়েছে। আমাদের পত্রিকার ডিক্লারেশন বাতিলের জন্য নানা ষড়যন্ত্র অব্যাহত আছে। তবুও আমরা থেমে নাই। আমাদের হাত বাঁধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আছে। আমরা লিখতে পারি। আমাদের কলম চলবে। দৈনিক আমার হবিগঞ্জের পাশে থাকুন । জয় বাংলা !