ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৬ মে ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আপন ভাইকে কুপিয়ে হত্যার জের : মামলা থেকে অব্যাহতি পেতে আসামীদের দৌড়ঝাপ

স্টাফ রিপোর্টার
মে ২৬, ২০২২ ৯:৪৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রাজিউড়া ইউনিয়নে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে শাহজাহান মিয়া নামে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা কান্ডের ঘটনায় দায়ের করা মামলা থেকে অব্যাহতি পেতে নানা নাটকীয়তার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, ওই মামলার এজাহার ভুক্ত আসামী স্থানীয় অরবিন্দু দাসের পুত্র কুলদিপ দাস রাজু ও মৃত সুরুজ আলীর পুত্র ফরিদ মিয়া নামে দুই ব্যক্তি মিথ্যা নাটক সাজিয়ে সংশ্লিষ্ট মহলে বিব্রত করার চেষ্টা করছেন। এমনটাই অভিযোগ করেছেন নিহতের স্বজনরা।

মামলার বাদী নিহতের স্ত্রী ইয়াছমিন আক্তার জেসমিন জানান, জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে শাহজাহান মিয়ার সঙ্গে তার ভাই জয়নাল মিয়ার বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে আদালতে মামলা চলছে। এরই জের ধরে ঘটনার দিন বিকেলে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে জয়নাল ও চাচাতো ভাই আসকির মিয়াসহ কয়েকজন মিলে শাহজাহানকে কুপিয়ে ঘটনাস্থলেই হত্যা করেন।

ঘটনার পর গত ৮ মে নিহতের স্ত্রী হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে ১৪ জনের নামোল্লেখপূর্বক আরও ৫/৬ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে হবিগঞ্জ সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এরপর এ বিষয়ে র‍্যাব-৯ গোয়েন্দা তৎপরতা জোরদার করে। এরই ধারাবাহিকতায় র‍্যাব-৯ এর একটি দল গোপন তথ্যের ভিত্তিতে আসামিদের গ্রেফতার করে। র‍্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতাররা জানায়, গত ৬ মে দুপুর দেড়টার দিকে পূর্ব শত্রুতার জেরে তাদের নেতৃত্বে ১৫/১৬ জন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয় শাহজাহান মিয়ার বসতবাড়ির উঠানে তার ওপর আক্রমণ করে।

এ সময় শাহজাহানকে ধারালো লোহার শিকল দিয়ে কাধে, হাতে, বুকে ও পেটে আঘাত করা হলে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। এছাড়াও আরও ৩ জন গুরুতর জখম হন। আহতদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। প্রাথমিকভাবে আসামিদের স্বীকারোক্তিতে ঘটনার সঙ্গে প্রধান ৩ আসামি আপন ভাই জয়নাল মিয়া এবং তাদের চাচাতো দুই ভাই বিলাল মিয়া ও আকছির মিয়ার সংশ্লিষ্টতা মিলেছে।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, আসামী রাজু ঘটনারদিন হবিগঞ্জ শহরে বাটার দোকানে ব্যবসা করেছেন এ ঘটনার প্রমাণ হিসেবে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সিসি টিভির ফুটেজ প্রকাশ করছেন।

এ ছাড়া ১২ নম্বর ক্রমিকের আসামী ফরিদ মিয়া সেদিন জুম্মার নামাজ শেষে মসজিদ থেকে বের হয়েই পার্শ্ববর্তী চানপুর গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা ফরিদ মিয়ার মায়ের নামাজে জানাজায় চলে যান। নিহতের স্বজনরা জানান, কুলদিপ দাস রাজু ও ফরিদ মিয়া স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ার সুবাদে কতিপয় মহলের ছত্রছায়ায় দীর্ঘদিন ধরে নানা অপকর্ম করে আসছে।

হত্যাকান্ডে সরাসরি জড়িত থেকেও নিজেদের নির্দোষ প্রমাণ করতে শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করছেন তারা। এ নির্মম হত্যাকান্ডের নায্য বিচার চান নিহতের স্বজনরা।

 

Developed By The IT-Zone