ঢাকাSunday , 7 January 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আধুনিকতার ছোঁয়ায় গ্রামাঞ্চল থেকে হারিয়ে যাচ্ছে গোবরের জ্বালানি

Link Copied!

দেশের প্রায় প্রতিটি গ্রামেই গোবরের জ্বালানি তৈরি রান্নার কাজে ব্যবহার করে থাকেন গৃহিণীরা। গোবরের জ্বালানি হতদরিদ্রদের পারিবারিক জীবনে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। অথচ শহর তো বটেই, জেলার গ্রামাঞ্চলেও এখন আর রান্নার কাজে তেমন একটা ব্যবহার চোখে পড়ে না।

বানিয়াচং উপজেলা জুড়ে এক সময় বিভিন্ন গাছের কাঠ ছিল জ্বালানির একমাত্র অবলম্বন। ধীরে ধীরে আধুনিকতার ছোঁয়ায় বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে গ্যাসের ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পেলে বাড়িতে বাড়িতে গোবর দিয়ে জ্বালানি তৈরির প্রচলন এখন আর চোখে পড়েনি তেমন।

গোবরের এ জ্বালানিকে গ্রামের মানুষ গোবরের লাকড়ি বলে চেনেন। এক থেকে দেড়-দুই ফুট গাছের চিকন ডাল কিংবা পাঠকাঠিতে মুঠো মুঠো করে গোবর আটকে দিয়ে লাকড়ি কিংবা শুধু গোবর দিয়ে গোল আকৃতির ও তৈরি করা হয়।

এই গোবরের জ্বালানি দুই তিনদিন রোদে শুকিয়ে দেয়াল/কাটি বা মাটি থেকে ছাড়িয়ে নেওয়া হয়। এভাবে তৈরি করা হয় এটা। গ্রামে যে সব কৃষক গরু কিংবা মহিষ পালন করেন তারাই গোবর দিয়ে জৈব সারের পাশাপাশি বিকল্প জ্বালানি হিসেবে এসব তৈরি করেন।

তবে শীত মৌসুমে গোবরের তৈরি এ জ্বালানি বর্ষা মৌসুমের জন্য মজুদ করা হয়। গোবরের এ জ্বালানি অন্যান্য জ্বালানির তুলনায় দামে সাশ্রয়ী এবং ভালো জ্বলে বলে এ জ্বালানি গ্রামের মানুষের কাছে বেশ পছন্দের। শীত মৌসুমে গ্রামীণ নারীরা ব্যস্ত থাকেন গোবরের এই জ্বালানি তৈরিতে।

বছরের অন্যান্য মৌসুমে বাড়ির পাশে বড় ধরনের খাদ তৈরি করে গরু কিংবা মহিষের গোবর সংরক্ষণ করা হয়। শীত মৌসুম শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় ওই গোবর দিয়ে জ্বালানি তৈরির কাজ। অভাবগ্রস্ত পরিবারগুলো তাদের শিশু সন্তানদের দিয়ে রাস্তার পাশ, মাঠ বা গবাদিপশুর বিচরণের স্থান থেকে গো-বর্জ্য সংগ্রহ করে থাকে।

আবার অনেক নারী পার্শ্ববর্তী সচল পরিবারের গোয়ালঘর থেকেও গো-বর্জ্য সংগ্রহ করেন। পরে নারী ও শিশুরা গৃহস্থালী কাজের ফাঁকে বা অবসরে জ্বালানির জন্য এসব তৈরি করে।

পাটকাঠি, গাছের সরু ডালপালা ও বাঁশের কঞ্চিতে গোবর মাখিয়ে রোদে শুকানো হয়। অনেকে গোবর সংগ্রহ করে জ¦ালানি তৈরি করে তা রোদে শুকিয়ে বাজারে বিক্রি করে সংসার চালান। কথা হয় সদর উপজেলার তারাসই গ্রামের খোদেজা বেগমের সাথে। তিনি বলেন, নিজের রান্না-বান্না করার জন্য গোবর দিয়ে লাকড়ি তৈরি করেন।

প্রতিদিন হাওরে আসা গরু মহিষের গোবর সংগ্রহ করে রাখি। কিছুদিন পর পরিমানে বেশি হলে সেগুলো দিয়ে রান্নার জন্য জ¦ালানি হিসেবে কাজে লাগাই।

গোবর ছাড়াও কাঁঠের গুড়া, কঞ্চি বা পাটকাটি ও পানি লাগে এসব তৈরী করতে। সদর উপজেলার ৪নং ইউনিয়নের বন্দের বাড়ির কানন বালা জানান, মাঠ-ঘাট থেকে তিনি গোবর সংগ্রহ করে লাকড়ি বানিয়ে তা শুকিয়ে বাজারে বিক্রি করি। শীতকালে রাস্তার মোড়ে মোড়ে চা, ডিম, পিঠা তৈরিসহ বিভিন্ন প্রকার খাদ্য দ্রব্যের ভ্রাম্যমান দোকানে এসব লাকড়ি জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা হয়।