ঢাকাশনিবার , ২৮ আগস্ট ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজ বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ রহমতুল্লাহর ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
আগস্ট ২৮, ২০২১ ১২:০৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার ।। আজ শনিবার(২৮ আগস্ট)  দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক নুরুজ্জামান মানিকের পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ রহমতুল্লাহর ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী।

 

আমাদের মুক্তিযুদ্ধ বিশ্বের মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসে এক অনন্য ঘটনা আর মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তাদেরই একজন হলেন মুক্তিযুদ্ধকালীন ১১ নম্বর সেক্টরের অধীনস্থ ‘রহমতুল্লাহ কোম্পানি’র অধিনায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ রহমতুল্লাহ।

 

 

 

ছবি : মরহুম বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ রহমতুল্লাহর ফাইল ছবি

 

 

জানা যায়, মোঃ রহমতুল্লাহ ১৯ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৩ তারিখে শেরপুর জেলা সদরের হেরুয়া নামক গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন । তিনি ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ১৯৬২ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর শেরপুরে জাতীয় শিক্ষা কমিশন রিপোর্ট বাতিল আন্দোলনে সে সময়ের শেরপুর জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি হিসেবে প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের বিরুদ্ধে বিশাল জনসমাবেশে গণআন্দোলনের ডাক দেবার জন্য গ্রেফতার, চরম পুলিশি নির্যাতনের শিকার ও কারাজীবন শুরু করেন এবং ১৯৬৩ সালের ১৫ মার্চ কারামুক্তি লাভ করেন।

 

১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে লাহোরে বাঙালির মুক্তির সনদ ৬ দফা ঘোষণা ও বাস্তবায়নের দাবি আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে বঙ্গবন্ধুসহ সারাদেশে ব্যাপকহারে গ্রেফতার অভিযান শুরু হয়। প্রেক্ষিতে জেলা আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ রহমতুল্লাহ পুনরায় গ্রেফতার হন।

১৯৬৯ এর গণ অভ্যুত্থানেও তিনি কারাবরণ করেন। ১৯৭১ সালে তিনি ছিলেন শেরপুর আওয়ামী লীগ-এর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং শহর কমিটির সাধারণ সম্পাদক। ‘৭১ এ মুক্তিযুদ্ধ সংগঠকের দায়িত্বপালন এবং পরে ভারতে ট্রেনিং নিয়ে ১১ নম্বর সেক্টরে কোম্পানি কমান্ডার হিসেবে যুদ্ধে অংশ নেন ।

তিনি বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের বিভিন্ন স্থানে প্রথমে গেরিলা, পরে সম্মুখ সমরে অংশ নেন। উল্লেখযোগ্য অপারেশন হলোঃ কামালপুর অপারেশন,নালিতাবাড়ি অপারেশন,পানিহাতা অপারেশন ইত্যাদি। মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানী সরকার তাকে জীবিত অথবা মৃত ধরিয়ে দেবার জন্য দশ হাজার টাকা পুরষ্কার ঘোষণা করে।

উল্লেখ্য, শেরপুর শত্রু মুক্ত হয় ডিসেম্বরের ৭ তারিখে । সেদিন যৌথ বাহিনীর অধিনায়ক জেনারেল অরোরাকে মুক্তাঞ্চলে তিনিই অভ্যর্থনা জানান এবং নির্দেশ মোতাবেক পরদিন জামালপুরে পাকিস্তানি হানাদার মুক্ত করার জন্য নান্দিনায় অ্যামবুশ করেন।

১৯৭২ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন মিত্রবাহিনীর পশ্চিমাঞ্চলীয় অধিনায়ক জেনারেল নাগরাকে ময়মনসিংহ সার্কিট হাউসে তার নেতৃত্বে মুক্তিবাহিনীর সংবর্ধনা দান করা হয়।

১৯৭২ সালে ২৮ ফেব্রুয়ারি তিনি বঙ্গবন্ধুর আহবানে মুক্তিবাহিনীর প্রধান সেনাপতি (সিএনসি) জেনারেল ওসমানীর স্বাক্ষরিত ‘স্বাধীনতা সংগ্রামের সনদপত্র’ মুক্তিযোদ্ধাদের বিচরণপূর্বক নিজ নিজ কর্মে যোগদানের নির্দেশ দিয়ে ময়মনসিংহ (খাগডর বিডিআর) মাঠে ভাষণদান করেন।

১৯৭৪ তিনি রাজনীতি থেকে অবসর গ্রহণ করেন। তিনি পেশায় আয়কর আইনজীবী ও কোম্পানি উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৫ সালের ২৮শে আগস্ট তিনি গলব্লাডার ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার হলি ফ্যামিলি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন ।

পরদিন ২৯ শে আগস্ট শেরপুরের কুমড়ার চরে বিশাল নামাজে জানাজা শেষে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাকে দাফন করা হয়।

Developed By The IT-Zone