ঢাকাসোমবার , ১ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজমিরীগঞ্জে সরকারি জমি ইজারা নিয়ে অবৈধভাবেই বহুতল ভবন নির্মাণের অভিযোগ

প্রতিনিধি আজমিরীগঞ্জ
আগস্ট ১, ২০২২ ১২:৩৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আজমিরীগঞ্জ উপজেলার পাহাড়পুর বাজারে সরকারী জমি ইজারা নিয়ে ভূমি আইনের হাট বাজারে ঘর নির্মান আইনকে বুড়ো আঙ্গল দেখিয়ে একাধিক বহুতল ভবন নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগের সূত্র ধরে সরেজমিন পাহাড়পুর বাজার ঘুরে দেখা যায়,বাজারে বেশির ভাগ জায়গায় উন্নত মানের পাইলিং দিয়ে একতলা থেকে শুরু করে বহুতল কয়েকটি দালান নির্মান করা হয়েছে। স্হানীয় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের সাথে আলাপ করে জানা যায়,বছর দুই এক আগেও এখানে ছিলনা কোন পাকা দালান। আধা পাকা ঘরেই চলমান ছিল ব্যবসা কার্যক্রম।

পাহাড়পুর বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পরপরই শুরু হয় পাহাড়পুরে বাজারে বহুতল দালান নির্মাণের হিড়িক। প্রথম থেকেই সরকারী খাস জায়গা ইজারা নিয়ে বহুতল দালান নির্মাণে প্রশাসনিক বাধা না থাকায় একটা একটা করে গড়ে উঠেছে ১৭ টির অধিক বহুতল ভবন।

অথচ ভূমি আইন বিশ্লেষনে দেখা যায়,সরকারী খাস ভূমিতে(হাট বাজার) দালান নির্মাণের কোন অনুমতি দেওয়া যায়না। ভূমিতে সর্বোচ্চ আধাপাকা ঘর নির্মান করে ব্যবসা পরিচলানার শর্তে জমি ইজারা দেওয়া হয়।

ইজারা নীতিতে স্পষ্ট উল্লেখ্য রয়েছে কেউ যদি সরকারী খাস ভূমি ইজারা নিয়ে তাতে নিয়ম মেনে উচু দালান বা পাইলিং দেয় তাহলে তার ইজারা বাতিল বলে গন্য হবে।

সরকারী ভূমি আইনের পুরাপুরি বিপরীতমুখী অবস্থানে রয়েছে পাহাড়পুর বাজারের ব্যবসায়ীরা। সরকারের সব ধরনের ভূমি আইনকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে তারা পাহাড়পুর বাজারে গড়ে তুলেছে একের পর এক বহুতল ভবন।

স্থানীয় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ও বাসিন্দারা আবার ব্যবসায়ীদের দায় না নিয়ে সরাসরি প্রশাসনের দিকে আঙ্গুল তুলছেন,তারা বলছেন প্রথম থেকেই যদি প্রশাসন আইনের সঠিক প্রয়োগ হতো তাহলে হয়তো বা এই অনিয়মটা মাথাছাড়া দিতে পারতনা।

আবার কেউ কেউ নাম না প্রকাশ করার শর্তে আমাদের জানিয়েছেন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে প্রশাসনের সাথে সমঝোতা করেই ব্যবসায়ীরা বহুতল দালানগুলি সরকারী খাস জায়গায় (বাজার ভিট) নির্মাণ করেছেন।

মোটা অংকের টাকা জনপ্রতিনিধিদেরকে বাজারের ব্যবসায়ীরা চাঁদা তুলে দিয়েছে সে টাকা দিয়ে ঐ জনপ্রতিনিধিরা সবকিছুকে সিস্টেম করে রাখছেন বলে একটি সুত্র নিশ্চিত করেছে । আইনেরর সঠিক প্রয়োগ বজায় রাখতে আজমিরীগঞ্জ প্রশাসনের প্রতি তারা অনুরোধ জানিয়েছেন । অনতিবিলম্বে প্রশাসনের পক্ষ থেকে উচ্ছেদের দাবীও জানায় স্থানীয় সচেতন মহল।

প্রশাসনের নাকের ডগায় কিভাবে আইন অমান্য করো বহুতল ভবনগুলি নির্মাণ করছেন পাহাড়পুর বাজারের ব্যবসায়ীরা জানতে পাহাড়পুর ভূমি অফিসের তহশীলদার আব্দুস সালামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে আমি কিছু জানি না। সব জানেন এমপি স্যার।আপনাদের কিছু জানার থাকলে তার কাছ থেকে জানুন।

বহুতল ভবনগুলি উচ্ছেদে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন অভিযান পরিচালনা করা হবে কিনা জানতে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি শফিকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, প্রশাসনিক অনুমতি নিয়ে স্থানভেদে দালান নির্মান করা যায়,সেক্ষেত্রে পাহাড়পুর বাজারে অনুমতি নেয়া হয়েছে কিনা আমি খতিয়ে দেখবো । বিনা অনুমতিতে যদি দালানগুলো নির্মাণ করা হয় আমি অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

 

Developed By The IT-Zone