ঢাকাWednesday , 8 November 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অবৈধ বিদ্যুৎ ব্যবহার : সামছুল আলমসহ সহযোগীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

Link Copied!

অবৈধ বিদ্যুৎ ব্যবহারের দায়ে হবিগঞ্জ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড এর দায়ের করা মামলায় মোঃ সামছুল আলম নামে এক ব্যক্তি ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। সিলেট বিদ্যুৎ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট (যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ) মোঃ আনোয়ারুল হক এ আদেশ প্রদান করেন।

অভিযুক্ত সামছুল আলম হবিগঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতির সদস্য এবং হবিগঞ্জ দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য। তিনি শহরতলীর মাছুলিয়া এলাকার মৃত আকবর আলীর পুত্র।

হবিগঞ্জ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড এর সহকারী প্রকৌশলী সুমন কুমার প্রামানিক জয় দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানান, দীর্ঘদিন ধরে মোঃ সামছুল আলম ও তার সহযোগীরা অবৈধভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করে আসছিলেন। এঘটনায় হবিগঞ্জ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড এরকাছে হাতে-নাতে ধরা পড়েন মোঃ সামছুল আলম ও তার পরিবারের সদস্যরা।

ব্যবহৃত বিদ্যুৎ ১২ লাখ ১৪ হাজার টাকা আদায়ের লক্ষে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। আদালত অভিযোগ আমলে নিয়ে মোঃ সামছুল আলম ও তার সহযোগীদের বিরেুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন।

সুত্র জানায়, হবিগঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতির সদস্য এবং দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য হওয়াকে কাজে লাগিয়ে তিনি দীর্ঘদিন ধরে এমন অপকর্ম চালিয়ে আসছিলেন। তার এমন দুর্নীতিতে হবিগঞ্জ শহরে সমালোচনার ঝড় বইছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ঘটনার দিন দুপুরে মিটার চেকিং, অবৈধ ও বকেয়া সংযোগ বিচ্ছিন্নের জন্য শহরের মাছুলিয়া এলাকায় অভিযান চালায় হবিগঞ্জ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড।

এসময় মোঃ সামছুল আলমের বাড়িতে ব্যবহৃত প্রি-পেইড মিটারে ইনকামিং থেকে সরাসরি মিটার বাইপাস ও কৃত্রিম পদ্ধতি ব্যবহার করে ট্যারিফ বহির্ভূত মিটার দিয়ে অবৈধ ভাবে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের অটো গ্যারেজের ৫টি ব্যাটারীচালিত রিক্সা চার্জ এবং গভীর নলকূপের মাধ্যমে বাণিজ্যিক ভাবে দৈনিক প্রায় ৩ হাজার লিটার খাবার পানি উত্তোলন ও বোতলজাতকরন কার্যক্রম দেখতে পান।

২০২২ সালের জানুয়ারি মাসে ওই প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের পর থেকে অনুমোদিত লোড ১৫ কিলোওয়াট হিসেবে গত ২২ মাসে ১২ লাখ ৪০ হাজার ১২৪ টাকা বিদ্যুত ব্যবহার হওয়ার কথা থাকলেও রিচার্জ করা হয়েছে মাত্র ৯০ হাজার ৬৫০ টাকা! একই স্থাপনায় আরো একটি মিটারে বকেয়া রয়েছে ৩৫ হাজার ৬শ ২৬’ টাকা।

এছাড়া আরো একটি মিটারে ২৯ হাজার ৭শ ৭৪ টাকা বকেয়া রয়েছে। অবৈধ ভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করায় সংযোগটি তাৎক্ষনিক ভাবে বিচ্ছিন্ন করতে গেলে সামছুল আলম ও সহযোগীরা বিচ্ছিন্ন ও সরকারী রাজস্ব আদায় কাজে বাধা প্রদান, অকথ্য ভাষায় গালাগালিসহ দেশীয় লাঠি সোঠা নিয়ে দায়িত্বরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মেরে ফেলার হুমকি ও ভয়তীতি প্রদর্শন করেন।

মামলায় আরো উল্লেখ করা হয়, বিউবোর বিধি মোতাবেক সামছুল হক ও তাঁর ভাইদের কাছে ১২ লাখ ১৪ হাজার ৮৭৪ টাকা আদায়যোগ্য। এদিকে, দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যের এমন দুর্নীতির খবরে শহরের চারদিকে সমালোচনা সৃষ্টি হয়েছে। এমন লোক কিভাবে দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যপদ পেলেন, তা নিয়েও চলছে নানা জল্পনা কল্পনা।

হবিগঞ্জ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মনজুর রশীদ জানান, অবৈধ ভাবে সে বিদ্যুৎ ব্যবহারসহ তার কাছে বকেয়া বিদ্যুৎ বিল পায় বিপিডিবি। তার সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গেলে সরকারী কাজে বাঁধা প্রদান করে কর্মকর্তাদের হুমকি প্রদান করে। তার বিরুদ্ধে বিদ্যুৎ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।