ঢাকাশনিবার , ২ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচঙ্গে বন্যায় ডুবলো পশু, পাখি ও মৎস্য খামারিদের স্বপ্ন : প্রণোদনার আশায় ক্ষতিগ্রস্তরা

ইমদাদুল হোসেন খান
জুলাই ২, ২০২২ ৮:২৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আর্থিকভাবে একটু সমৃদ্ধ হওয়ার স্বপ্ন দেখে কেউ মৎস্য খামার, কেউবা হাঁস-মুরগির খামার আবার কেউ কেউ গরুর খামার সাজিয়েছিলেন। এমন অনেক খামারির স্বপ্ন ডুবিয়ে দিয়েছে বন্যা।

বানিয়াচং উপজেলার এমন অনেক খামারিদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে তাদের স্বপ্ন ডুবে যাওয়ার পরিণতির কথা।

বানিয়াচং-নবীগঞ্জ সড়কের কালিদাসটেকা গ্রামের নৌকাঘাটে পোল্ট্রি মোরগের খাঁচাভর্তি অনেকগুলো নৌকা দেখে থামলাম।

জিজ্ঞেস করলাম এতগুলো মোরগ কোথা থেকে নিয়ে আসা হয়েছে? নৌকাগুলো থেকে ১০/১২জন উত্তর দিলেন, মার্কুলি-দৌলতপুর থেকে। কেনো নিয়ে এসেছেন জিজ্ঞেস করতেই বললেন, খামারে বন্যার পানি উঠে গেছে।

তারপর খামার থেকে এলাকার আত্মীয়-স্বজনের উঁচু বাড়ী ও জায়গায় নিয়ে রেখেছিলাম।

সেখানে ঠান্ডা লেগে অসুস্থ হয়ে অনেক মোরগ মারা গেছে। যতগুলো জীবিত আছে সেগুলো বিক্রির জন্য নিয়ে এসেছি।

একসাথে এত মোরগ কে কিনবে প্রশ্ন করলে তারা বলেন, কিছু হবিগঞ্জ ও বানিয়াচং সদরের বিভিন্ন বাজারের খাবারের দোকানের মালিকদের সাথে আলাপ হয়েছে তারা নিবেন এবং বাকিগুলো ঢাকায় পাঠিয়ে দেয়া হবে।

অসুস্থ মোরগ কি উপযুক্ত দামে কিনবে জিজ্ঞেস করার পর বললেন, একেবারে না পাওয়ার চেয়ে যা-ই পাওয়া যায় আরকি।

একজনের নাম জিজ্ঞেস করলে জানান, তার নাম পীযূষ দাস। বাড়ি দৌলতপুর ইউনিয়নের মার্কুলি গ্রামে। জানালেন, এক হাজার দুইশত মোরগ ছিল তার খামারে।

পানি ঢুকে মোরগের খাবার ভিজে নষ্ট হয়েছে। মোরগগুলো অন্য জায়গায় স্থানান্তর করতে পারলেও বৃষ্টিতে ভিজে ঠান্ডা লেগে প্রায় আড়াইশত মোরগ মারা গেছে।

বাকীগুলো বিক্রির জন্য নিয়ে এসেছেন। খামারে পানি উঠায় অবকাঠামোগত ক্ষতির কথাও জানালেন তিনি।

একই গ্রামের ফুলবাশি দাসের সাথে আলাপকালে তিনি জানান, দৌলতপুর ইউনিয়নের অর্ধশত পোল্ট্রি খামারি এমন ক্ষতির সম্মুখিন হওয়ায় তাদের স্বপ্ন ডুবে মাথায় হাত উঠেছে।

তার মতে, সমগ্র উপজেলায় কয়েকশত পোল্ট্রি খামারি রয়েছেন যাদের অধিকাংশই এমন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

এদিকে অনেক গরুর খামারিরাও জানিয়েছেন তাদের ক্ষতির কথা। বন্যায় খামারে পানি ঢুকে অবকাঠামোগত ক্ষতি ছাড়াও গরুর খাদ্য নষ্ট হওয়া এবং গরু অন্যত্র স্থানান্তর খরচ বাদেও গরুর বিভিন্ন ধরনের রোগ-শোক দেখা দেয়ায় চিকিৎসা করাতে গিয়ে অনেক টাকা খরচ হচ্ছে বলে জানান গরুর খামারিরা।

এছাড়া অনেক মৎস্য চাষির মৎস্য খামার-পুকুর ডুবে বানের জলে মাছ ভেসে গিয়ে ক্ষয়ক্ষতির কথা জানিয়েছেন মৎস্য খামারিরা।

পোল্ট্রি খামারিদের জনপ্রতি এক/দেড় লাখ টাকা করে ক্ষতি হওয়ার কথা জানান ফুলবাশি দাস।

গরুর খামারিদের কেউ এক/দুই লাখ থেকে শুরু করে কেউ কেউ ৬/৭ লাখ টাকা পর্যন্ত ক্ষতির সম্মূখিন হওয়ার কথা জানান গরু খামারি মীর মহল্লার সৈয়দ মিজান উদ্দিন পলাশ।

মৎস্য খামারি বাদাউরি গ্রামের আতাউর রহমান তার মাছ ভেসে প্রায় অর্ধ কোটি টাকার ক্ষতি হওয়ার কথা জানান।

এভাবে কারও ৫/১০ লাখ থেকে শুরু করে কোটি টাকার ক্ষতি পর্যন্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন। ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্য, পশু ও পাখি খামারিরা সরকারের কাছে প্রণোদনার দাবি জানিয়েছেন।

তবে এব্যাপারে উপজেলা মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ অফিসের লোকজন আন্তরিক নন বলে তাদের অভিযোগ। বন্যা আসার পর এসব অফিসে থেকে তাদের কোনো খোঁজখবরই নেয়া হচ্ছেনা বলে তারা গণমাধ্যমের কাছে অভিযোগ করেন।

কেউ প্রণোদনা পাওয়ার আশায় লিখিত আবেদন নিয়ে গেলে তা গ্রহণ না করার অভিযোগও করেন অনেকে ।

এব্যাপারে সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার নুরুল ইকরাম’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের কাছ থেকে আবেদন নেয়ার কোনো নির্দেশনা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে আসেনি।

তবে যারা অফিসে আসেন তাদের নাম-ঠিকানাসহ ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নির্দিষ্ট ফরম্যাটে লিখে রাখা হয় বলে তিনি জানান।

প্রত্যেক ইউনিয়নের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের জন্য প্রতি ইউনিয়নের দায়িত্বে মৎস্য অফিসের একজন করে লিফ নিয়োগ দেয়া থাকলেও ইউনিয়ন ভিত্তিক মৎস্য চাষি/খামারিদের নামের তালিকা এবং ক্ষতিগ্রস্তদের নামের তালিকা দিতে পারেননি সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা।

তিনি সাম্প্রতিক বন্যায় ক্ষয়ক্ষতির বিবরণ সম্বলিত অনুমান নির্ভর একটি ফরম্যাট সরবরাহ করেন।

যাতে লেখা ক্ষতিগ্রস্ত পুকুর/দীঘি/খামারের সংখ্যা ১০০০, ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্যচাষী/খামার মালিকের সংখ্যা ৮০০, ক্ষতিগ্রস্ত পুকুর/দিঘী/খামারের আয়তন (হেক্টর) ২০০, ভেসে যাওয়া মাছের পরিমাণ (মে.টন) ৯০০, পোনার পরিমাণ (সংখ্যা/লক্ষ) ২৫, ভেসে যাওয়া মাছের মূল্য (লক্ষ টাকা) ১৩০, পোনার মূল্য (লক্ষ টাকা) ১৯.৫ সর্বমোট ২০, অবকাঠামোগত ক্ষতির পরিমাণ (লক্ষ টাকা) ২০, মোট ক্ষতির পরিমাণ (৮+৯+১০) (লক্ষ টাকা) ১৬৯.৫ সর্বমোট ১৭০।

এদিকে উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসে গিয়ে সেখানেও সমগ্র উপজেলার ও ইউনিয়ন ভিত্তিক পোল্ট্রি, গরু, হাঁস ইত্যাদির খামারিদের নাম-ঠিকানা এবং ক্ষতিগ্রস্তদের নাম-ঠিকানা পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসার ডাক্তার সাইফুর রহমানের সাথে আলাপকালে তিনি জানান, সবার নাম-ঠিকানাসহ ইউনিয়ন ভিত্তিক এমন তালিকা তাদের কাছে নেই।

তিনি বলেন, সমগ্র উপজেলার সংখ্যা ভিত্তিক কিছু তথ্য আছে। যার কাছে এই ফাইল তিনি অফিসে নেই জানিয়ে একদিন পর তার সাথে যোগাযোগ করার জন্য জাহিদ নামে একজন মাঠ সহকারির মোবাইল ফোন নাম্বার দেন।

প্রাণি সম্পদ অফিসারের কথামতো তারিখ ও সময়ে মাঠ সহকারি জাহিদ এর মোবাইলে কল দিলে তিনি শারীরিক অসুস্থতার কারণে অফিসে আসতে পারেননি জানিয়ে একদিন পর কল দিতে বলেন।

অবশেষে গত বুধবার তার মোবাইলে কল দিলে তিনি জানান, বানিয়াচং উপজেলায় মোট পোল্ট্রি খামারের সংখ্যা ১২৫ টি, গরুর খামারের সংখ্যা ১৪৫ টি ও হাঁসের খামারের সংখ্যা ৪৫ টি।

তন্মধ্যে কোনো খামারির ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে তিনি জানান। এছাড়া উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার সাইফুর রহমানের সাথে সাক্ষাৎ করে সরাসরি আলাপকালে তিনি জানান, সমগ্র উপজেলায় বন্যায় ১০ জন গরুর খামারি ও ৫ জন মোরগের খামারি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার রিপোর্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরণ করেছেন।

উপর থেকে কোনো অনুদান আসলে যাতে বন্যায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া খামারিদেরকে দেয়া যায়।

বন্যায় গবাদিপশুপাখির চিকিৎসার ব্যাপারে তিনি বলেন, এখনও তো রাস্তাঘাট সব ডুবে আছে। পানি কমলে মেডিকেল টিম নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় যাবো।

Developed By The IT-Zone