ঢাকামঙ্গলবার , ৭ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৭ এপ্রিল ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ৭, ২০২০ ১২:০১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।। নয়াদিল্লিস্থ পাকিস্তান দূতাবাসের দুজন কর্মকর্তা শাহাবুদ্দিন আহমদ ও আমজাদুল হক পাকিস্তানের সাথে সম্পর্কচ্ছেদ করে বাংলাদেশের প্রতি প্রথম আনুগত্য ঘোষণা করেন । এদিন সমস্ত সিলেট জেলা মুক্তিযোদ্ধাদের দখলে চলে আসে। পাকিস্তানি বাহিনী সিলেট বিমানবন্দর ও লাক্কাতুরা চা-বাগানের আশপাশে একত্র হয়।

বিকালে পাকিস্তানি বাহিনী নড়াইল-যশোর রোডে দাইতলা নামক স্থানে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরোধব্যূহে আক্রমণ চালায়। মুক্তিযোদ্ধাদের পাল্টা আক্রমণে পাকিস্তানি বাহিনী টিকে থাকতে না পেওে পেছনে ফিরে চলে যায়। এ যুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনীর আনুমানিক ৩০ জন নিহত হয়। অপর পক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের কেউ হতাহত হয়নি। এদিকে পার্বতীপুরের বিহারিরা নিকটবর্তী গ্রামগুলোতে ব্যাপক হারে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করে এবং নিরীহ গ্রামবাসীকে নির্মমভাবে হত্যা করে।

নায়েব সুবেদার সিদ্দিকের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানি বাহিনীর দখলকৃত খুলনা বেতার কেন্দ্রের ওপর আক্রমণ চালায়। এ যুদ্ধে ২০ জন পাকিস্তানি সেনা নিহত হলেও মুক্তিযোদ্ধাদের এ আক্রমণ ব্যর্থ হয়ে যায়। এখানে ১ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। এদিকে পাকিস্তানি বাহিনী দৌলতপুরের রঘুনাথপুর গ্রামে হামলা চালায় এবং সেখানে বহু লোককে হত্যা করে। এদিন যশোর সদরের লেবুতলা গ্রামে পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের তুমুল গুলিবিনিময় হয়। কয়েক ঘণ্টার এ যুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনীর ৫০ জনের মৃত্যু হয় এবং তারা প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি স্বীকার করে যশোর সেনানিবাসে ফিরে যেতে বাধ্য হয়। এদিকে বিএসএফের লে. কর্নেল মেঘ সিং দুটি কোম্পানি নিয়ে ঝিকরগাছা লাওজান গেটের কাছে প্রতিরক্ষাব্যূহ গড়ে তোলে।

এদিন মুক্তিযোদ্ধাদের একটি প্লাটুন কুলারঘাট থেকে লালমনিহারহাট পর্যন্ত এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর সশস্ত্র অবাঙালিদের ওপর আক্রমণ চালিয়ে ২১ জনকে হত্যা করে। মেজর নিজামের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা পার্বতীপুরের পাকিস্তানি বাহিনীর অবস্থানের ওপর আত্মঘাতী হামলা চালায়। ফলে অনেক মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন এবং পার্বতীপুর শত্রুদের দখলে চলে যায়। এখানকার বেঁচে যাওয়া মুক্তিযোদ্ধারা সরে এসে হাবড়ায় অবস্থান গ্রহণ করে।

মুসলিম লীগ নেতা খান এ সবুর ঢাকায় জেনারেল টিক্কা খানের সাথে সাক্ষাৎ করে পাকিস্তানি বাহিনীকে পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস দেয়। এদিকে জামায়াতের প্রাদেশিক আমির অধ্যাপক গোলাম আযম, গোলাম সারওয়ার ও মওলানা নূরুজ্জামান ঢাকায় এক যুক্ত বিবৃতিতে বলেন, পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ দেশের সার্বভৌমত্ব নিয়ে সাম্রাজ্যবাদী ভারতকে ছিনিমিনি খেলতে দেবে না। পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ সশস্ত্র অনুপ্রেবশকারীদের [মুক্তিযোদ্ধাদের] কোনো স্থানে দেখামাত্র খতম করে দেবে।

Developed By The IT-Zone