ঢাকাশুক্রবার , ৬ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৬ মার্চ ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
মার্চ ৬, ২০২০ ১০:৪১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক
নির্বাহী সম্পাদক

এদিন ঢাকায় ষষ্ঠ দিনের মতো হরতাল পালনকালে সর্বস্তরের জনতা রাস্তায় নেমে আসে। বঙ্গবন্ধুর ডাকে শান্তিপূর্ণ হরতাল পালন শেষে তারই নির্দেশে বেলা আড়াইটা থেকে বিকেল সাড়ে চারটা পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাংক এবং যেসব বেসরকারি অফিসে ইতিপূর্বে বেতন দেওয়া হয়নি, সেসব অফিস বেতন প্রদানের জন্য খোলা থাকে। সকাল ১১টার দিকে সেন্ট্রাল জেলের গেট ভেঙে ৩৪১ জন কয়েদি পালিয়ে যায়। পালানোর সময় পুলিশের গুলিতে ৭ জন কয়েদি নিহত এবং ৩০ জন আহত হয়। বাংলা জাতীয় লীগের উদ্যোগে জনাব অলি আহাদের সভাপতিত্বে পল্টন ময়দানে জনসভা হয়। বঙ্গবন্ধুকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, মুজিব ভাই, আপনি মুক্তিসংগ্রামকে বহুদূর এগিয়ে নিয়েছেন। তিনি পূর্ণ স্বাধীনতা ঘোষণার পর ইঙ্গিত দিয়ে বলেন, এখন আপনার কাছে আমার একটাই দাবি এবং তা আপনি ঘোষণা করেন। ন্যাপের গণসমাবেশে মোজাফ্ফর আহমদ বলেন, মুক্তিকামী মানুষের এই আন্দোলনকে পশুশক্তি বা বর্বরতা দিয়ে দমন করা যাবে না। তোফায়েল আহমেদ এক বিবৃতিতে ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দান থেকে সরাসরি বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বাংলাদেশের সব বেতার কেন্দ্র থেকে রিলে করার দাবি জানান। এয়ার মার্শাল আসগর খান বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে দ্বিতীয় দফা বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের বলেন, পরিস্থিতি রক্ষা করার জন্য আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি। বাকি আপনারা আগামীকাল শেখ সাহেবের বক্তৃতায় জানতে পারবেন। লে. জেনারেল টিক্কা খানকে পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ও সামরিক আইন প্রশাসক নিয়োগ করা হয়। ঢাকা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি বি এ সিদ্দিকী টিক্কা খানের শপথনামা পরিচালনা করতে অস্বীকার করেন। ফলে সৃষ্টি হয় এক অচলাবস্থার। এদিকে সিরাজুল আলম খানের নেতৃত্বাধীন ‘নিউক্লিয়াস’ শেখ মুজিবের ওপর ক্রমবর্ধমান হারে চাপ প্রয়োগ করতে থাকে, যাতে তিনি ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। ৬ মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণা দেওয়ার জন্য শেখ মুজিবের ওপর চাপ তুঙ্গে ওঠে এবং সেদিনই তার সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার ফোনে দীর্ঘ আলাপ হয়। প্রেসিডেন্ট তাকে অনুরোধ করেন, যেন তিনি এমন কোনো পদক্ষেপ না নেন যাতে আর প্রত্যাবর্তনের কোনো পথ না থাকে। একই দিন প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া ঘোষণা দেন যে আগামী ২৫ মার্চ ঢাকায় জাতীয় পরিষদের অধিবেশন বসবে। কিন্তু ভাষণে প্রেসিডেন্ট যে প্রচ্ছন্ন হুমকি দেন, তাতে পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ আরো উত্তেজিত হয়ে পড়ে। পাকিস্তানে নিযুক্ত তৎকালীন মার্কিন রাষ্ট্রদূত জোসেফ ফারল্যান্ড বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে দেখা করেন এবং হুমকি দেন, মার্কিন সরকার পাকিস্তান ভাঙা সহ্য করবে না। রাতে আওয়ামী লীগ কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠক বসে এবং সিদ্ধান্ত ছাড়াই গভীর রাতে মুলতবি হয়ে যায়।

 

Developed By The IT-Zone