ঢাকারবিবার , ৫ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৫ এপ্রিল ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ৫, ২০২০ ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।। ঢাকায় কারফিউর মেয়াদ ভোর পাঁচটা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা পর্যন্ত শিথিল করা হয়। এ সময় দলে দলে লোক ঢাকা ত্যাগ করে। ঢাকায় পাকিস্তান কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করে, প্রদেশের পরিস্থিতি সশস্ত্র বাহিনীর সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণাধীন রয়েছে। সশস্ত্র অনুপ্রবেশকারীদের [মুক্তিযোদ্ধাদের] বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। পাকিস্তানবিরোধীদের বিরুদ্ধেও যথোচিত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। ভুট্টো এক বিবৃতিতে জানান যে, শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন পূর্ব পাকিস্তান গঠন করতে চেয়েছিলেন। সেজন্যই তিনি জাতীয় পরিষদের দুটি কমিটি গঠনের সুপারিশ করেছিলেন। পাকিস্তানি বাহিনীর একটি পদাতিক কোম্পানি যশোর থেকে কুষ্টিয়ার পথে বিশাখালীতে মুক্তিবাহিনীর পাতা বুবি ট্রেপ বা ফাঁদের গর্তে আটকে যায়। সামরিক বহরটিতে ৯টি ট্রাক ও ২টি জিপ ছিল। সৈন্যদের সবাই স্থানীয় কৃষকদের আক্রমণে প্রাণ হারায়।

শেরপুর-সাদীপুর এলাকায় পাকিস্তানি সেনা ও মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ বাধে। উভয় এলাকায় মুক্তিযোদ্ধারা অসীম সাহসের সাথে যুদ্ধ করে এবং পাকিস্তানি বাহিনীর কাছ থেকে এলাকা দুটি মুক্ত করে। এ যুদ্ধে তিন প্লাটুন পাকিস্তানি সৈন্যের অধিকাংশই মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে নিহত হয়। এ যুদ্ধে ৩ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন এবং আহত হন অসংখ্য।

সিলেটে সুরমা নদীর দক্ষিণ পাড়ে এক খণ্ডযুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে পাকিস্তানি বাহিনী পরাজিত হয় এবং তারা পালিয়ে গিয়ে শালুটিকর বিমানঘাঁটিতে একত্র হয়। সুরমা নদীর সমগ্র দক্ষিণাঞ্চল এবং উত্তরে সিলেট শহর শত্রুমুক্ত হয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের হস্তগত হয়। রাত আটটায় মুক্তিযোদ্ধারা যাত্রাবাড়ী রোডে পাকিস্তানি সেনাবোঝাই একটি গাড়ি সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করে দেয়। সাথে সাথে ঢাকা ও ডেমরা থেকে পাকিস্তানি সেনাদের বহর ঘটনাস্থলের দিকে অগ্রসর হয় এবং গোলাবর্ষণ শুরু করে। তবে মুক্তিযোদ্ধাদের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। তারা আক্রমণ চালিয়েই সাথে সাথে গ্রামের দিকে চলে যায়।

দিনাজপুরের ৮ নং উইং সুবেদার আবদুল মজিদের নেতৃত্বে এক কোম্পানি ইপিআর, ৯ উইংয়ের আরেক প্লাটুন ইপিআরসহ সৈয়দপুর-নীলফামারী সদর রাস্তায় সৈয়দপুরের অদূরে দারোয়ানির কাছে প্রতিরক্ষা ঘাঁটি গড়ে তোলে। পাকিস্তানি বাহিনী ১১টি গাড়ি নিয়ে ভুষিরবন্দরে অবস্থানরত মুক্তিযোদ্ধাদের ঘাঁটির দিকে অগ্রসর হলে মুক্তিযোদ্ধাদের গুলির সম্মুখীন হয়। এতে পাকিস্তানি সেনারা আর সামনে অগ্রসর না হয়ে সৈয়দপুরের দিকে পালিয়ে যায়। দশমাইল এলাকায় পাকিস্তানিদের সাঁজোয়া এবং গোলন্দাজ বাহিনী মুক্তিযোদ্ধাদের ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়। এতে অনেক বাঙালি ইপিআর শহীদ হন এবং অনেকে আহত হন।

ফ্রান্সে পাকিস্তানি সাবমেরিন মনগ্রোর বাঙালি নাবিকেরা বিদ্রোহ ঘোষণা করে এবং সুইজারল্যান্ডের দিকে যাত্রা করে। পাহাড়তলী রেলওয়ে এলাকাতে পাকিস্তানি সেনারা রেলের চিফ ইঞ্জিনিয়ার মোজাম্মেল চৌধুরী, অ্যাকাউন্টস অফিসার আবদুল হামিদ, এল আর খান এবং তাদের পরিবারের সদস্য ও ভৃত্যসমেত মোট ১১ জন বাঙালিকে জবাই করে হত্যা করে।

Developed By The IT-Zone