ঢাকাশনিবার , ৪ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৪ এপ্রিল ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ৪, ২০২০ ১২:০১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।। রাশিয়ার কনসাল জেনারেল রাও ফরমান আলীর সাথে দেখা করেন। পাকিস্তানি বাহিনী অ্যান্ডারসন খালে ক্যাপ্টেন আইনউদ্দিনের নেতৃত্বাধীন মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানের ওপর হামলা চালায়। এই হামলায় চতুর্থ বেঙ্গলের একজন জওয়ান শহীদ হয়। বিমান হামলার পর অ্যান্ডারসন খালের অবস্থান আরও সুদৃঢ় করা হয়।

ঢাকায় পিডিপি প্রধান নুরুল আমিনের নেতৃত্বে ১২ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল জল্লাদ জেনারেল টিক্কা খানের সাথে সাক্ষাৎ করে। প্রতিনিধিদলের সদস্য মৌলভি ফরিদ আহমেদ, অধ্যাপক গোলাম আযম, খাজা খয়রুদ্দিন, শফিকুল ইসলাম, মওলানা নুরুজ্জামান প্রমুখ জেনারেল টিক্কাকে পুনরায় সমর্থন জানায় ও সহযোগিতার আশ্বাস দেয়। তারা সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে নাগরিক কমিটি গঠনের প্রস্তাব দেয়।

পাকিস্তানি বাহিনী অপ্রত্যাশিতভাবে ফেনী শহরের ওপর বিমান আক্রমণ চালায়। এই বিমান হামলায় শহরের বহু বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয় ও অনেক নিরীহ মানুষ প্রাণ হারায়। ঠাকুরাগাঁও ৯ নম্বর উইংয়ের সুবেদার মেজর কাজিমুদ্দিন, ক্যাপ্টেন নজরুল, তৃতীয় বেঙ্গলের ক্যাপ্টেন আশরাফ, মেজর (অব.) টি হোসেন, সুবেদার মেজর ওসমান গনি প্রমুখের উপস্থিতিতে ভাতগাঁও সেতুর কাছে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সুবেদার এ মজিদ একটি কোম্পানি নিয়ে নীলফামারীতে, ক্যাপ্টেন আশরাফ তৃতীয় বেঙ্গলের একটি কোম্পানি, সুবেদার হাফিজ ইপিআর বাহিনীর দুটি কোম্পানি এবং হাবিলদার নাজিম দুটি এনটি ট্যাংক গান নিয়ে ভুষিরবন্দর নামক স্থানে ডিফেন্স নেয়। নায়েব সুবেদার কায়সার ও হাবিলদার জায়দুল হোসেনের নেতৃত্বে একটি কোম্পানি বদরগঞ্জ নামক স্থানে ডিফেন্স নেয়। পাকিস্তানি বাহিনীর একটি রেজিমেন্ট বাঙালি দালালদের সহায়তায় হারাগাছ নামক এলাকা হয়ে তিস্তা নদী অতিক্রম করে ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে এবং হত্যা-লুণ্ঠন চালায়।

মেজর জলিল খুলনা বেতার কেন্দ্র দখলের লক্ষ্যে পিরোজপুর হয়ে বাগেরহাট অভিমুখে রওনা হন। সিলেট শহরের টিবি হাসপাতালে অবস্থানরত পাকিস্তানি ঘাঁটির ওপর মুক্তিযোদ্ধারা এক বড় আক্রমণ চালায়। সংঘর্ষে ব্যাপক ক্ষতি স্বীকার করে পাকিস্তানি বাহিনী ঘাঁটি ছেঁড়ে শালুটিকর বিমানবন্দরের দিকে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়। ক্যাপ্টেন মতিয়ুর রহমানের নেতৃত্বে এক কোম্পানি নিয়মিত সৈনিকসহ ইপিআর সৈনিকেরা নরসিংদী এলাকায়, ক্যাপ্টেন নাসিমের নেতৃত্বে দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গলের আলফা কোম্পানি মুজাহিদ সহযোগে আশুগঞ্জে, লে. মোরশেদের নেতৃত্বে এক প্লাটুন নিয়মিত সৈনিকসহ ইপিআর সৈন্যরা লালপুরে, ইপিআর ও মুজাহিদদের মিশ্রণে এক কোম্পানি একজন জেসিও নিয়ন্ত্রণে আজবপুরে, ক্যাপ্টেন আইনউদ্দিনের নেতৃত্বে চতুর্থ ইস্ট বেঙ্গলের ডেলটা কোম্পানির সাথে ইপিআর সৈন্যরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অবস্থান নেয়। ইপিআর ক্যাপ্টেন মতিনের কমান্ডে একটি কোম্পানি সরাইলে, ক্যাপ্টেন আজিজের নেতৃত্বে দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গলের চার্লি কোম্পানি শেরপুর-শাদিপুরে, দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গলের ডেলটা কোম্পানি মেজর মঈনের কমান্ডে তেলিয়াপাড়ায় অবস্থান নেয়।

তেলিয়াপাড়া বাংলোয় বৈঠকের ভাস্কর্য । ছবিসুত্রঃ উইকি

দিল্লিতে তাজউদ্দীন আহমদ যখন মুক্তিযুদ্ধের সাংগঠনিক পরিকল্পনা শুরু করেন, সেই সময়, অর্থাৎ ৪ এপ্রিল হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার তেলিয়াপাড়া চা-বাগানে ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের বিদ্রোহী ইউনিটগুলোর কমান্ডারগণ একত্র হন প্রতিরোধযুদ্ধের সমস্যাবলি আলোচনা এবং সম্মিলিত কর্মপন্থা নির্ধারণের উদ্দেশ্যে। এখানে উপস্থিত হন কর্নেল(অবঃ) এম এ জি ওসমানী, লে. কর্নেল সালাউদ্দীন মো. রেজা, লে. কর্নেল আবদুর রব, মেজর জিয়াউর রহমান, মেজর কে এম সফিউল্লাহ, মেজর খালেদ মোশাররফ, মেজর(অবঃ) কাজী নুরুজ্জামান, মেজর নুরুল ইসলাম, মেজর শাফায়াত জামিল, মেজর মইনুল হোসেন চৌধুরী, ক্যাপ্টেন আবদুল মতিন প্রমুখ। এছাড়া বৈঠকে বিএসএফের ব্রিগেডিয়ার ভিসি পান্ডে, আগরতলার (ত্রিপুরা) জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সায়গল এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মহকুমা প্রশাসক কাজী রফিকউদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। এই প্রথম বিদ্রোহী কমান্ডাররা তাদের আঞ্চলিক অবস্থান ও প্রতিরোধের খণ্ড খণ্ড চিত্রকে একত্র করে সারা দেশের সামরিক পরিস্থিতি উপলব্ধি করার সুযোগ পান। ভারী অস্ত্রশস্ত্র আর গোলা-বারুদের অভাব মেটাবার জন্য তারা অবিলম্বে ভারতের শরণাপন্ন হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। বিদেশ থেকে সমরসম্ভার সংগ্রহ করার জন্য রাজনীতিকদের সমবায়ে যথাশীঘ্র স্বাধীন সরকার গঠনের আবশ্যকতাও তারা অনুভব করেন। কিন্তু সরকার গঠনের জন্য অপেক্ষা না করে, বাস্তব পরিস্থিতির চাপে তারা সমস্ত বিদ্রোহী ইউনিটের সমবায়ে সম্মিলিত মুক্তিফৌজ গঠন করেন এবং কর্নেল ওসমানীকে তা পরিচালনার দায়িত্ব অর্পণ করেন। ভারতীয় নিরাপত্তা এজেন্সিগুলোর মাধ্যমে পূর্ব রণাঙ্গনের প্রতিরোধসংগ্রামের এই সব ঘটনা ও সিদ্ধান্তের সংবাদ তাজউদ্দীনের কাছে পৌঁছাতে শুরু করে প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই।

Developed By The IT-Zone