ঢাকামঙ্গলবার , ৩ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৩ মার্চ ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
মার্চ ৩, ২০২০ ১২:৪৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক

নির্বাহী সম্পাদক

বঙ্গবন্ধুর ডাকে ঢাকায় দ্বিতীয় দিনের মতো এবং সমগ্র বাংলাদেশে প্রথম দিনের জন্য সর্বাত্মক হরতাল পালিত হয়। হরতালের সময় শহরের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা সম্পূর্ণ স্তব্ধ হয়ে যায়। জনতার স্বতঃস্ফূর্ত মিছিলে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর গুলিবর্ষণে ও বিভিন্ন ঘটনায় সারা দেশে শতাধিক ব্যক্তি নিহত হয়। ঢাকা ছাড়াও রংপুর ও সিলেটে কারফিউ জারি করা হয়। এদিন বিকেলে ছাত্রলীগ সভাপতি নূরে আলম সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে পল্টন ময়দানে অনুষ্ঠিত হয় এক বিশাল ছাত্র জনসভা। এই সভায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ছাত্রনেতা তোফায়েল আহমেদ, সিরাজুল আলম খান, শ্রমিক নেতা আবদুল মান্নান প্রমুখ বক্তৃতা করেন। সভায় স্বাধীন বাংলা নিউক্লিয়াসের পক্ষে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক শাজাহান সিরাজ পাঠ করেন বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইশতেহার।

ঘোষণা আকারে প্রস্তাব পাঠ করা হয়েছিল: ৫৪ হাজার ৫০৬ বর্গমাইল বিস্তৃত ভৌগোলিক এলাকার সাত কোটি মানুষের জন্য আবাসিক ভূমি হিসেবে স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্রের নাম বাংলাদেশ। এই দেশ গঠন করে নিম্নলিখিত লক্ষ্য অর্জন করতে হবে:
১. স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ গঠন করে পৃথিবীর বুকে একটি বলিষ্ঠ বাঙালি জাতি সৃষ্টি ও বাঙালির ভাষা, সাহিত্য, কৃষ্টি, সংস্কৃতির বিকাশের ব্যবস্থা করতে হবে।
২. স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ গঠন করে অঞ্চলে অঞ্চলে, ব্যক্তিতে ব্যক্তিতে বৈষম্য নিরসনকল্পে সমাজতান্ত্রিক অর্থনীতি চালু করে কৃষক-শ্রমিক রাজনীতি কায়েম করতে হবে।
৩. স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ গঠন করে ব্যক্তি, বাক ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতাসহ নির্ভেজাল গণতন্ত্র কায়েম করতে হবে।

একই সঙ্গে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি’ গানটিকে জাতীয় সংগীত হিসেবে ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয় সেই সভায়। প্রচণ্ড করতালির মধ্যে প্রস্তাব গৃহীত হলে ‘জয় বাংলা’ স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠে পল্টন ও পার্শ্ববর্তী এলাকা। মনে রাখতে হবে, বঙ্গবন্ধু নিজে তখনো এ ধরনের ঘোষণা থেকে বিরত ছিলেন। প্রস্তাবটি লিখেছিলেন ছাত্রলীগের তৎকালীন দপ্তর সম্পাদক এম এ রশীদ। ওই একই সভায় বঙ্গবন্ধু ‘অহিংস অসহযোগ আন্দোলনের’ ডাক দেন। তিনি অবিলম্বে সেনাবাহিনীকে ব্যারাকে ফিরিয়ে নিয়ে জনপ্রতিনিধিদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য আহ্বান জানান ইয়াহিয়া সরকারের প্রতি। অসহযোগ প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে তিনি খাজনা-ট্যাক্স বন্ধ করে দিতে জনগণের প্রতি আবেদন জানান। বললেন, তাতেও পাকিস্তানি শাসকচক্রের মনোভাব পরিবর্তন না হলে ৭ মার্চ রেসকোর্সের (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) জনসভায় পরবর্তী কর্মসূচি দেওয়া হবে। এদিন মালিবাগ চৌধুরীপাড়ায় ছাত্র-জনতার মিছিলে পুলিশের গুলিতে শাহাদাতবরণ করেন আবু জর গিফারী কলেজ ছাত্র সংসদের (ছাত্রলীগ) সাধারণ সম্পাদক ফারুক ইকবাল (সম্ভবত মুক্তিযুদ্ধের প্রথম শহীদ)। এদিন সন্ধ্যায় ইসলামাবাদ থেকে এক বেতার ঘোষণায় জেনারেল ইয়াহিয়া ১০ মার্চ ঢাকায় জাতীয় পরিষদের পার্লামেন্টারি গ্রুপের ১২ নেতার সঙ্গে বৈঠকে বসার প্রস্তাব দেন। বঙ্গবন্ধু এক বিবৃতির মাধ্যমে সে আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করেন। বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘মুহূর্তে ঢাকা, চট্টগ্রামসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে আমার লোককে হত্যা করা হচ্ছে, রাজপথে শহীদের রক্ত শুকায়নি। সেই অবস্থায় এই আলোচনার আমন্ত্রণ রূঢ় পরিহাস ছাড়া আর কিছু নয়। যখন সামরিক সমাবেশ অব্যাহত রয়েছে, অস্ত্রের ভাষায় কথা বলা হচ্ছে, এই পরিস্থিতিতে কোনো আলোচনা বৈঠকের আহ্বান প্রকৃতপক্ষে তোপের মুখে আহূত বৈঠকেরই নামান্তর।’ এদিকে সমরশক্তি বৃদ্ধি অব্যাহত গতিতে চলছিল। এমনকি ৩ মার্চ ইয়াহিয়া খানের আলোচনা আহ্বানের দিনও ২২ বালুচ রেজিমেন্টের একটি ব্যাটালিয়ন বিমানযোগে পূর্ব পাকিস্তানের উদ্দেশে রওনা হয়। এই রেজিমেন্টকে গোপনে ঢাকায় পিলখানাস্থ ইপিআর সদর দপ্তরে পাঠানো হয় এবং পরদিন থেকেই তারা ইপিআরের পোশাকে পর্যবেক্ষণ ডিউটি শুরু করে।

Developed By The IT-Zone