ঢাকাবুধবার , ২২ জানুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৩ বছরে ও ঘোষণা করা হয়নি জেলা কৃষকলীগের পুর্ণাঙ্গ কমিটি : হতাশ নেতাকর্মীরা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ২২, ২০২০ ১:১২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন :   ৩ বছর পেরিয়ে গেলেও অদ্যবধি পর্যন্ত ঘোষণা করা হয়নি জেলা কৃষকলীগের পুর্ণাঙ্গ কমিটি। ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি দিয়েই নামকাওয়াস্তে চলছে সকল কার্যক্রম। পুর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় নেতাকর্মীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে চরম ক্ষোভ ও হতাশা। ফলে একঘেঁয়েমি ভাব চলে এসেছে নেতাকর্মীদের মধ্যে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়,গত ২০১৬ সালের ১৩ অক্টোবর রোজ বৃহস্পতিবার হবিগঞ্জ জেলা সার্কিট হাউজে বসে তৎকালীন কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সভাপতি মোতাহের হোসেন মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সামসুল হক রেজা স্বাক্ষরিত এক পত্রে জেলা কৃষকলীগে সভাপতি হিসেবে হুমায়ুন কবির রেজা,সাধারন সম্পাদক মোক্তার হোসেন বেনু ও নুরুল আমিন উসমানকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করেন তারা। এসময় পুর্ণাঙ্গ কমিটি করতে তাদেরকে ১৫দিনের সময় বেঁধে দেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। কিন্তু আজ পর্যন্ত এই কমিটির মেয়াদ পেরিয়ে গেলেও পুর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করতে পারেনি জেলা কমিটির নেতারা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে জেলা কৃষকলীগের কয়েকজন নেতাকর্মীরা জানান,পুর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় আমরা দলীয় কোনো পরিচয় ই দিতে পারছিনা। তারপরও কি করবো দলের টানে বিভিন্ন কর্মসুচীতে অংশ নিতে হয়। পুর্ণাঙ্গ কমিটিতে দলের নিবেদিক কর্মী ও ত্যাগী ও ক্লিন ইমেজের নেতাদের স্থান দেয়ার জন্যও দাবি জানান তারা।

 

জেলা কৃষকলীগের সেক্রেটারি মোক্তার হোসেন বেনু’র সাথে কথা হলে তিনি জানান,আমরা পুর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করে অনুমোদনের জন্য পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু তৎকালীন কমিটির সভাপতি/সেক্রেটারি কি কারণে এই কমিটি অনুমোদন দেন না তার আমার জানা নেই।

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সিলেট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা জয়নাল আবেদীন এর সাথে। তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানিয়েছেন-আগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি/সেক্রেটারি দুই ধরণের কমিটি দিতে চেয়েছিলেন। এটা নিয়ে তারা ঐক্যে পৌছতে পারেনি। তাই কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়নি। আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি এক থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যে হবিগঞ্জ জেলার পুর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করার। তবে বর্তমান কমিটির সভাপতিকে বহিষ্কার করার চিন্তা ভাবনা রয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটির। (তার এই বক্তব্য আমার হবিগঞ্জ এর কাছে রেকর্ড/রক্ষিত আছে) এই কমিটিতে কোনো ধরণের ভূমি দস্যু,দুর্নীতিবাজ,মাদক ব্যবসায়ীকে বাংলাদেশ কৃষকলীগের ওয়ার্ড,ইউনিয়ন,উপজেলা এমনকি জেলায় রাখা হবেনা।

 

বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন ১৯৭২ সালের ১৯ এপ্রিলে কৃষক সমাজের দুর্দশা দেখে তিনি এই সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এই সংগঠনের কিøন ইমেজ ত্যাগী নেতাদের স্থান হয়। ভূমি দস্যুদের না। জাতির পিতা সুযোগ্য কন্যা কৃষকরত্ন শেখ হাসিনা তিনি আমাদের কৃষকলীগের সাংগঠনিক নেত্রী। নেত্রী আামাদের দিকনির্দেশনা দিয়েছেন সংগঠনকে শক্তিশালী করতে ও জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলতে হলে শুদ্ধি অভিযানের মধ্য দিয়ে দুর্নীতিবাজদের প্রতিহত করার। তাই কৃষকদের সাথে যাদের সম্পর্ক রয়েছে এমন ব্যক্তিদেরকে ই আগামী কমিটিতে স্থান দেয়া হবে।

 

এই বিষয়ে তৎকালীন বাংলাদেশ কৃষকলীগের সভাপতি আলহাজ্ব্ মোতাহের হোসেন মোল্লা বলেন-আমাদের কোনো জেলার কিংবা মহনগরের কমিটি এতো দেরিতে দেয়ার বিধান নাই। কিন্তু হবিগঞ্জ জেলার সভাপতি হুমায়ুন কবির রেজা একধরণে কমিটি চান। আর সাধারন সম্পাদক মোক্তার হোসেন বেনু চান অন্য ধরণের কমিটি। এককথায় তাদের অনুগতদের নিয়ে কমিটি গঠন করতে চান তারা। এটা নিয়ে এক হতে পারেনি বিধায় পুর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়নি। তারপর কৃষকলীগের গঠনতন্ত্রের বাহিরে গিয়ে তারা কমিটি জমা দিয়েছিল। এসব কারণে অনুমোদন হয়নি কমিটির। তিনি আরো বলেন-জাতির পিতার হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ কৃষকলীগ। তারই ধারাবাহিকতায় কৃষকলীগের সাংগঠনিক নেত্রী আমার ও শ্রদ্ধেয় আপা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে যে দায়িত্ব দিয়েছিলেন সেই দায়িত্ব আমি যথাযতভাবে পালন করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু হবিগঞ্জ জেলায় স্থানীয় নেতাদের সমন্বয়হীনতার অভাব থাকায় পুর্ণাঙ্গ কমিটি দিতে পারিনি এটা ঠিক। বিষয়টি অনেক দিনের আগের তো তাই এর চেয়ে বেশি কিছু বলতে পারছিনা।

বিস্তারিত জানতে বাংলাদেশ কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক উম্মে কুলসুম স্মৃতি’র সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি ব্যস্ত থাকায় তা সম্ভব হয়নি।

Developed By The IT-Zone