ঢাকাশুক্রবার , ৩ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৩ এপ্রিল ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ৩, ২০২০ ১২:০১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক

নির্বাহী সম্পাদক

ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা শুরু করেন পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব তাজউদ্দীন আহমদ। বৈঠকের সূচনাতে তাজউদ্দীন আহমদ জানান, পাকিস্তানি আক্রমণ শুরুর সঙ্গে সঙ্গে ২৫-২৬ মার্চেই বাংলাদেশকে স্বাধীন ঘোষণা করে একটি সরকার গঠন করা হয়েছে। শেখ মুজিব সেই স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের প্রেসিডেন্ট এবং মুজিব-ইয়াহিয়া বৈঠকে যোগদানকারী সকল প্রবীণ সহকর্মীই (পরে ‘হাইকমান্ড’ নামে যাঁরা পরিচিত হন) মন্ত্রিসভার সদস্য। শেখ মুজিবের গ্রেফতারের খবর ছাড়া অন্যান্য সদস্যের ভালো-মন্দ সংবাদ তখনো যেহেতু সম্পূর্ণ অজানা, সেহেতু তাজউদ্দীন আহমদ দিল্লিতে সমবেত দলীয় প্রতিনিধিদের সঙ্গে পরামর্শক্রমে নিজেকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে উপস্থিত করা যুক্তিযুক্ত মনে করেন। তাজউদ্দীনের এই উপস্থিত সিদ্ধান্তের ফলে বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনে অসামান্যভাবে শক্তি সঞ্চারিত হয়। ইন্দিরা গান্ধী ‘বাংলাদেশ সরকারের’ আবেদন অনুসারে বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামকে সম্ভাব্য সকল প্রকার সহযোগিতা দানের প্রতিশ্রুতি জ্ঞাপন করেন।

সিলেটের শমসেরনগরে মুক্তিযোদ্ধারা বীরত্বের সাথে পাকিস্তানি বাহিনীর আক্রমণ প্রতিহত করে। ফরাসি টেলিভিশন করপোরেশনের একটি ভ্রাম্যমাণ দল মুক্তিযোদ্ধাদের চুয়াডাঙ্গাস্থ সদর দপ্তরে আসে। তারা দৃঢ় মনোবলে উদ্দীপ্ত যুদ্ধরত মুক্তিসেনা ও আহত পাকিস্তানি যুদ্ধবন্দি লে. আতাউল্লাহ শাহসহ পাকিস্তানিদের কাছ থেকে দখলকৃত যাবতীয় অস্ত্রশস্ত্র ও গাড়ির ছবি টেলিভিশন ক্যামেরায় ধারণ করেন এবং মেজর এম এ ওসমান চৌধুরীর সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন। চুয়াডাঙ্গায় পাকিস্তানি বাহিনী মেশিনগানের গুলি ছাড়াও নাপাম বোমা নিক্ষেপের মাধ্যমে আক্রমণ করে। এ হামলায় বেশকিছু ঘরবাড়ি ধ্বংস হয় ও বহু লোক গুরুতরভাবে আহত হয়। চুয়াডাঙ্গাতে আওয়ামী লীগের নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে বাংলাদেশ রেডক্রস সোসাইটির জন্ম হয়। পাকিস্তানি বাহিনী যশোরের মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানরত এলাকাগুলোতে আর্টিলারি নিক্ষেপ করে ও মর্টার হতে গোলা নিক্ষেপ করতে থাকে। উভয়পক্ষে ব্যাপক গুলিবিনিময় হয়। এতে ১৫ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। পাকিস্তানি বাহিনী যশোর দখল করে নেয়। ভারতীয় বিএসএফ বাহিনীর লে. কর্নেল সেন এবং মেজর চক্রবতীর সাথে রাজশাহীতে ক্যাপ্টেন গিয়াস সামরিক সাহায্যের বিষয় নিয়ে আলাপ-আলোচনা করেন।

পাকিস্তানি বাহিনী ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতাল ঘেরাও করে এবং ডা. মুরিদ আলী ও সেবক ব্রাদার এনামুল হককে গ্রেফতার করে। ঢাকাস্থ ইপিআর গেরিলাদল ডেমরা ও যাত্রাবাড়ীর পথে আক্রমণ চালিয়ে পাকিস্তানি বাহিনীর বেশ ক্ষতিসাধন করতে সমর্থ হয়। রংপুর শ্মশানঘাটে শহর এলাকায় অসহায় নিরীহ বহু লোককে পাকিস্তানি বাহিনী নির্মমভাবে হত্যা করে। রংপুর ইপিআর দশম উইংয়ের সহকারী কমান্ডার ক্যাপ্টেন নওয়াজিশ আহমেদকে মুক্তিযোদ্ধা আখতারুজ্জামান মণ্ডলের দলের কমান্ডিংয়ের দায়িত্ব অর্পণ করা হয়। দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গল বাহিনী পাকিস্তানি সেনাদের ব্যবহারোপযোগী রামপুর রেলওয়ে সেতু উড়িয়ে দেয়। গোড়ান-সাটিয়াচরায় পাকিস্তানি বাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ হয়। এ যুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনী ৭২ এমএমআরআর ও ১২০ এমএম গোলা ও হেলিকপ্টার থেকে মেশিনগানের গুলি চালিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের ডিফেন্স ভেঙে দেয়। এতে ২৩-২৪ জন ইপিআরসহ ৩০ জন মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাতবরণ করেন। সিলেটের দেওড়াছড়া চা-বাগানের ৭০ জন শ্রমিককে পাকিস্তানি বাহিনী রেশন দেওয়ার কথা বলে বাসে তুলে একটি নির্জন স্থানে নিয়ে গুলি করে হত্যা করে।

 

Developed By The IT-Zone