ঢাকাসোমবার , ৩১ অক্টোবর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৩৬ জন হকারের কাছ থেকে জনপ্রতি ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা আদায় করেছেন মেয়র সেলিম !

স্টাফ রিপোর্টার
অক্টোবর ৩১, ২০২২ ৯:০১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জের সাম্প্রতিক টক অব দ্যা সিটি মহাশ্মশানের জায়গায় হকার্স মার্কেট নির্মান বিষয় নিয়ে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের অধিকতর তদন্তে বেরিয়ে আসছে থলের বিড়াল।

তদন্তে জানা যায়, হকার্স ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা নিয়েছেন হবিগঞ্জ পৌর মেয়র আতাউর রহমান সেলিম। অন্যদিকে শ্মশান পরিচালনা কমিটি জেলা প্রশাসক ও মেয়রের কাছে নির্মাণ কাজ বন্ধ রেখে জমি বুঝিয়ে দেওয়ার আবেদন করেছেন।

হকার্স ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রাপ্ত কাগজেপত্রে দেখা যায়, তালিকাভুক্ত ২১ জন হকার্স ব্যবসায়ী হলেও টাকা নেওয়া হয়েছে মোট ৩৬ জন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে। প্রত্যেকের কাছ থেকে সাড়ে তিন লক্ষ টাকা নেওয়া হয়েছে।

হকার্স ব্যবসায়ীরা জানান, “আড়াই লক্ষ টাকা যাবে পৌরসভার ফান্ডে বাকি এক লক্ষ টাকা মেয়রের পকেটে।” এই পর্যন্ত ১ কোটি ২৬ লাখ টাকার হিসেবে পাওয়া গেছে।

এ নিয়ে দৈনিক আবার হবিগঞ্জ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর হকার্স ব্যবসায়ীদের ডেকে শাসিয়ে দিয়েছেন মেয়র। যেন কোনো ব্যবসায়ী সাংবাদিকদের তথ্য দিয়ে সহযোগিতা না করে। আর করলে পরিণাম ভালো হবে না।

সরেজমিনে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে হকার্স মার্কেটের একাধিক ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে এসব তথ্য জানান। হকার্স ব্যবসায়ীদের স্পষ্ট বক্তব্য, ৯৯ বছরের জন্য লিজ না করে দিলে শ্মশান মার্কেটে তারা যাবেন না। অন্যথায় তারা টাকা ফেরত চাইবেন।

অন্যদিকে হবিগঞ্জের মহাশ্মশান পরিচালনা কমিটির নেতৃবৃন্দ রবিবার (৩০ অক্টোবর) জেলা প্রশাসক, পৌর মেয়র ও সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে শ্মশানের ভূমিতে মার্কেট নির্মাণ বন্ধ করে শ্মশান পরিচালনা কমিটিকে জমি বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য লিখিত আবেদন করেছেন।

জানা যায়,২০১০ সালে হবিগঞ্জ পৌর মহাশ্মশানের সামনের পৌরসভার মালিকানাধীন ৯.৬৭ শতক ভূমি মহাশ্মশানঘাটের কাজে ব্যবহৃত হবে মর্মে পৌরসভার এক সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছিল। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের দায়িত্বে ছিলেন তৎকালীন পৌর সচিব ও নির্বাহী প্রকৌশলী।

এরপর ২০১৬ সালে পৌর মহাশ্মশান এর নামে লিখিত রেজুলেশন করা হয়। ২০২০ সালে মহাশ্মশানে লাশ সৎকারের আধুনিক চুল্লি উদ্বোধনের সময় এমপি আবু জাহির ও বর্তমান মেয়র আতাউর রহমান সেলিম ঘোষণা করেছিলেন যেহেতু এই ভূমি বর্তমানে মহাশ্মশানের নামে আছে, তাই তারা মহাশ্মশান উন্নয়নের জন্য সরকারি বিভিন্ন বরাদ্দ দিবেন।

গত প্রায় তিন চার মাস আগে হবিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড এর সামনে হকার্স মার্কেটের ব্যবসায়ীদের অস্থায়ী পুর্নবাসনের জন্য মহাশ্মশানের সামনের জায়গাটি নির্ধারণ করে হবিগঞ্জ পৌরসভা।

এবিষয়ে মহাশ্মশানের উপ-কমিটির লোকদের সাথে মেয়র সেলিমের কথা হয়। সেই সময় উভয়পক্ষের সম্মতিতে সিদ্ধান্ত হয় বাশঁ ও টিন দিয়ে অস্থায়ীভাবে ছয় মাসের জন্য হকার্স মার্কেটের ব্যবসায়ীদের পূর্ণবাসন করা হবে।

সে অনুযায়ী কাজ শুরু করে পৌর কর্তৃপক্ষ, কাজ শুরুর এক দুদিনের মাথায়ই হঠাৎ করেই রাতের আঁধারে স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণের উদ্দেশ্যে পাকা দেয়াল নির্মাণ করা শুরু করে তারা। এবং দ্রুতগতিতে সেই কাজ চালিয়ে যাচ্ছে পৌর কর্তৃপক্ষ।

শনিবার (২৯ অক্টোবর) সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়,পৌর কর্তৃপক্ষ শ্মশানের জমিতে প্রায় ২০/৩০টি দোকান ঘর নির্ভর করছে। ইতোমধ্যে ৯৫ ভাগ কাজ প্রায় শেষ হয়েছে ।

Developed By The IT-Zone