ঢাকাসোমবার , ৩০ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৩০ মার্চ ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
মার্চ ৩০, ২০২০ ১১:৩৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক
নির্বাহী সম্পাদক।।

বর্বর পাকিস্তানি বাহিনী রংপুর ক্যান্টনমেন্ট থেকে বের হয়ে রংপুর শহর ও সংলগ্ন গ্রাম-গঞ্জের ওপর নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করে। এতে বহু লোক প্রাণ হারায়। পাশাপাশি পাকিস্তানি বাহিনী আগুন জ্বালিয়ে বাড়িঘর-মহল্লা-গ্রাম-ধ্বংস করে এবং পাশবিক অত্যাচার চালায়। সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে চট্টগ্রাম স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী বেতার কেন্দ্র বাংলাদেশকে স্বীকৃতি ও সাহায্যদানের জন্য বিশ্বের সকল গণতান্ত্রিক সরকার জনগণের প্রতি পুনরায় আবেদন জানায়। এদিন সকাল ৮টায় ১০৭তম ব্রিগেড কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার এস এ আর দুররানি যশোর সেনানিবাসের অস্ত্রাগারের চাবি নিজের কাছে নিয়ে নেয়। ব্রিগেডিয়ার দুররানি স্থানত্যাগের সাথে সাথে বিক্ষুব্ধ বাঙালি সৈনিকেরা অস্ত্রাগারের তালা ভাঙে এবং নিজেদের অস্ত্রসজ্জিত করে। বিদ্রোহের খবর পেয়ে পাকিস্তানি বাহিনী তিন দিক দিয়ে আক্রমণ করে। এ সময় বাঙালি কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল জলিল নেতৃত্ব দিতে অস্বীকার করায় লে. হাফিজ ব্যাটালিয়নের নেতৃত্ব দেন। পাকিস্তানি বাহিনী প্রথম বেঙ্গল রেজিমেন্টের অধিকাংশ সৈন্য, বেঙ্গল রেজিমেন্টের সদস্যদের পরিবার-পরিজনসহ শিশু, নারী, বৃদ্ধদেরও নৃশংসভাবে হত্যা করে। ২০০ সৈনিক নিয়ে লে. হাফিজ এবং সেকেন্ড লে. আনোয়ার যুদ্ধ করতে করতে রাতে ঝিনাইদহের পথে সেনানিবাস ত্যাগ করেন। পশ্চাদপসরণকালে ওই দিনই সেকেন্ড লে. আনোয়ার বীরত্বের সাথে যুদ্ধরত অবস্থায় শহীদ হন।

রাতে কালুরঘাট বেতার কেন্দ্রের ওপর পাকিস্তান বিমানবাহিনী বোমা বর্ষণ করে। চট্টগ্রাম শহরকে পাকিস্তানি বাহিনী চারদিক থেকে ঘেরাও করে এবং বোমাবর্ষণ শুরু করে। বিকেল ৫টার দিকে মতিন পাটোয়ারীর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা কুষ্টিয়া পুলিশ লাইন দখল করে। গোদাগাড়ীতে অবস্থানরত ইপিআর বাহিনীর ওপর পাকিস্তানি বাহিনীর সর্বাত্মক আক্রমণ করলে সেপাই আবদুল মালেক শহীদ হন। মেজর জিয়া ক্যাপ্টেন অলিকে কালুরঘাটের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন। ময়মনসিংহের রাবেয়া মেমোরিয়াল বালিকা বিদ্যালয়ে মেজর সফিউল্লাহ ঢাকা আক্রমণের জন্য পরিকল্পনা প্রণয়ন করেন। ঠাকুরগাঁওয়ে অবস্থিত পাকিস্তানিদের মূল ঘাঁটি উইং হেডকোয়ার্টার আক্রমণের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ইপিআর সুবেদার আতাউল হক ও ল্যান্সনায়েক জয়নাল আবেদীন শহীদ হন।

এদিন প্রথমে আত্মরক্ষা, তারপর প্রস্তুতি এবং সব শেষে পাল্টা-আঘাতের পর্যায়ক্রমিক লক্ষ্য স্থির করে তাজউদ্দীন আহমদ ফরিদপুর ও কুষ্টিয়ার পথে পশ্চিম বাংলার সীমান্তে গিয়ে হাজির হন ৩০ মার্চের সন্ধ্যায়।

পাকিস্তানি বাহিনীর একটি ব্রিগেড নরসিংদী অভিমুখে রওনা হলে তাদের অগ্রগতিতে বাধা দেওয়ার জন্য শীতলক্ষ্যার পূর্ব তীরে মেজর সফিউল্লাহ তার সৈন্য মোতায়েন করেন। ঠিক এমন সময় মেজর খালেদ মোশাররফের এক বার্তায় জানতে পারেন, বাহ্মণবাড়িয়া মহকুমা ও সিলেট জেলার কিছু অংশ তার আয়ত্তাধীন এবং তিনিও যেন একযোগে ওই এলাকা রক্ষার চেষ্টা করেন। সেই মোতাবেক এক কোম্পানির কিছু বেশি সৈন্য নরসিংদীতে রেখে মেজর সফিউল্লাহ মেঘনা নদীর পূর্ব তীরে চলে যান। এদিকে নরসিংদী ও পাঁচরুখীর মধ্যে মেজর সফিউল্লাহর সৈন্যরা শত্রু অগ্রগামী ব্রিগেডের সাথে এক সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এ যুদ্ধে প্রচুর পাকিস্তানি সেনা হতাহত হয়। ফলে পাকিস্তানি বাহিনী পিছু হটতে বাধ্য হয়।

Developed By The IT-Zone