ঢাকাসোমবার , ২ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

২ মার্চ ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
মার্চ ২, ২০২০ ৯:৫১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক
নির্বাহী সম্পাদক

বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে ঢাকায় স্বতঃস্ফূর্ত হরতাল পালিত হয়। সকাল থেকেই দল-মতনির্বিশেষে সর্বস্তরের মানুষ ঢাকায় সর্বাত্মক হরতালে অংশ নিয়ে চূড়ান্ত অচলাবস্থা সৃষ্টি করে। ঢাকা মহানগরী পরিণত হয় মিছিলের নগরীতে। এদিন প্রথম ছাত্র মিছিলটি বের করে কবি আল মুজাহিদীর নেতৃত্বে বাংলা ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগের র‌্যাডিকেল অংশ শেখ মুজিবের গান্ধীবাদী কর্মসূচিতে সন্তুষ্ট হলো না। তারা সিদ্ধান্ত নিল, ২ মার্চ ঢাবির বটতলায় ছাত্রসমাবেশ অনুষ্ঠানের এবং রব ইনু সিরাজ প্রমুখ কর্তৃক পরিকল্পিত ও শিব নারায়ণ দাস কর্তৃক অঙ্কিত গাঢ় সবুজের মাঝে উজ্জ্বল সূর্যের প্রতীক লাল রঙের মাঝে বাংলাদেশের মানচিত্রখচিত পতাকা উত্তোলনের।

সিদ্ধান্ত মোতাবেক, চারদিক থেকে ছাত্র-ছাত্রীদের মিছিল এসে জমায়েত হয় ঢাবি কলাভবন চত্বরে। নদীর ঢেউয়ের মতোই আন্দোলিত হয় কলাভবন চত্বরের কালো মাথাগুলো। হঠাৎ করে একটু চঞ্চল হয়ে ওঠে সমবেত সবাই। হ্যাঁ, ধীরে ধীরে বাঁশের মাথায় স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করলেন ডাকসু ভিপি আ স ম আবদুর রব। চারদিক মুখরিত হলো ‘জয় বাংলা’ স্লোগানে রচনা হয়ে গেল ইতিহাসের আরেকটি অধ্যায়। বিকেলে জনসভা হয় বায়তুল মোকাররম ও পল্টন ময়দানে। ন্যাপ সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত পল্টনের সভায় ন্যাপ নেতা মহিউদ্দীন আহমেদ, আবদুল হালিম, বেগম মতিয়া চৌধুরী, সাইফুদ্দিন আহমেদ মানিক, নূরুর রহমান ও ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি নূরুল ইসলাম বক্তৃতা করেন। তারা অভিমত দেন যে, অধিবেশন স্থগিত রাখার পেছনে এক বিরাট চক্রান্ত রয়েছে এবং তাতে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের হাতও সক্রিয় রয়েছে। আতাউর রহমানের সভাপতিত্বে জাতীয় লীগের সভায় সুসংহত গণ-আন্দোলন শুরু করার জন্য আওয়ামী লীগ, ভাসানী ন্যাপ, ওয়ালী ন্যাপ ও জাতীয় লীগের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে কর্মপন্থা গ্রহণের আহ্বান জানানো হয়। সন্ধ্যার পর আকস্মিকভাবে পুরো নগরীতে কারফিউ জারির ঘোষণা দেওয়া হয়। রাত ৯টা থেকে পরদিন ৩ মার্চ সকাল ৭টা পর্যন্ত কারফিউ জারি করে সামরিক কর্তৃপক্ষ। বেতারে কারফিউ জারির এ ঘোষণা প্রচারের পরপর বিভিন্ন এলাকায় স্বতঃস্ফূর্তভাবে জনতা রাস্তায় নেমে ব্যারিকেড রচনা করে। গভীর রাত পর্যন্ত বিভিন্ন ছাত্রাবাস ও শ্রমিক এলাকা থেকে ছাত্র-জনতা ও শ্রমিকেরা কারফিউয়ের বিরুদ্ধে প্রবল স্লোগান তুলে কারফিউ ভঙ্গ করে মিছিল বের করে। তাদের স্লোগান ছিল, ‘সান্ধ্য আইন মানি না’, ‘জয় বাংলা’, ‘বীর বাঙালি অস্ত্র ধরো, বাংলাদেশ স্বাধীন করো।’ শহরের বিভিন্ন অঞ্চলে কারফিউ ভঙ্গকারীদের ওপর বেপরোয়া গুলি চলে। এতে অন্তত শতাধিক ব্যক্তি হতাহত হন। রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নগরীর হাসপাতালগুলোতে বুলেটবিদ্ধ লোকের ভিড় বাড়তে থাকে। এই রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক বিবৃতিতে ঢাকায় নিরস্ত্র জনতার ওপর গুলিবর্ষণের কঠোর নিন্দা করে বলেন, ‘বাংলাদেশে আগুন জ্বালাবেন না। যদি জ্বালান, সে দাবানল হতে আপনারাও রেহাই পাবেন না।’

Developed By The IT-Zone