ঢাকারবিবার , ২৯ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

২৯ মার্চ ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
মার্চ ২৯, ২০২০ ১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,
নির্বাহী সম্পাদক।।

বিকেল চারটার মধ্যে ময়মনসিংহে দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গল ব্যাটালিয়নের সমাবেশের কাজ সম্পন্ন হয়। ব্যাটালিয়নের অফিসার এবং সৈনিকদের টাউন হলে একত্র করে বাংলাদেশের প্রতি তাদের আনুগত্য প্রকাশের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মেজর কে এম সফিউল্লাহ। পাকিস্তানি বাহিনী চট্টগ্রাম সেনানিবাসের বাইরে এসে মেডিকেল কলেজ ও নিকটবর্তী পাহাড়ের ওপর সমবেত হয়। সন্ধ্যার দিকে পাকিস্তানিরা প্রথম আক্রমণের সূচনা করে। মুক্তিবাহিনী এই আক্রমণ ব্যর্থ করে দেয়। রাত ১১টায় জগদীশপুরের মহড়া থেকে প্রথম ইস্ট বেঙ্গল ব্যাটালিয়নের সদস্যরা যশোর ইউনিটে ফিরে আসে এবং গোলাবারুদ অস্ত্রাগারে ফেরত দেয়। ক্যাপ্টেন রশিদের সফল অভিযানে ২৫তম পাঞ্জাবের মেজর আসলাম ও ক্যাপ্টেন ইশফাকসহ ৪০ জন পাকিস্তানি সৈন্য পাবনা থেকে গোপালপুরের পথে নিহত হয়। জীবিতদের অনেকে বিচ্ছিন্নভাবে রাজশাহীর দিকে যাবার পথে প্রাণ হারায়। রাতে ১০০ জনের মতো বাঙালি ইপিআরকে সেনারা প্রেসিডেন্ট হাউস থেকে তিনটি গ্রুপে ভাগ করে রমনা কালীবাড়ির কাছে নৃশংসভাবে হত্যা করে। সকালে ময়মনসিংহের রাবেয়া মেমোরিয়াল বালিকা বিদ্যালয়ে ইপিআর বাহিনী ও হাজার হাজার জনতার উপস্থিতিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করা হয়। নির্ভীক সৈনিক সেপাই লুৎফর রহমান লালমনিরহাট শহরের সন্নিকটে অবাঙালি ও বাঙালি ইপিআরদের সংঘর্ষে শহীদ হন। ইপিআর সেপাই আবদুল হালিম ১২ নং উইংয়ের সুনামগঞ্জ কোম্পানি হেডকোয়ার্টারে পাকিস্তানি সেনার আক্রমণ প্রতিহত করতে গিয়ে শহীদ হন। বিকেলে কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট চতুর্থ বেঙ্গলের রিয়ার হেডকোয়ার্টারের ওপর পাকিস্তানি বাহিনী আর্টিলারি, গান ও থ্রি কমান্ডো ব্যাটালিয়নের সাহায্যে প্রচণ্ড হামলা চালায়। রিয়ারের দায়িত্বে থাকা মুক্তিযোদ্ধা জওয়ানরা সংগঠিত হয়ে প্রবল বাধা দেয়। দুই পক্ষের মধ্যে প্রায় ছয় ঘণ্টা যুদ্ধ চলে। রাত নেমে এলে পাকিস্তানের আক্রমণ কিছুটা স্তিমিত হয়। তখন কয়েকজন জেসিও এবং এনসিওর নেতৃত্বে অধিকাংশ সৈন্য তাদের পরিবারসহ ক্যান্টনমেন্টের মরণফাঁদ থেকে বেরিয়ে আসতে সক্ষম হয়। চতুর্থ বেঙ্গলের নায়েক সুবেদার এম এ সালাম এ সময় অসাধারণ বীরত্বের পরিচয় দেন। ভোর চারটায় ক্যাপ্টেন আজম চৌধুরীর নেতৃত্বে পুলিশ লাইন, জিলা স্কুল ও ওয়্যারলেস স্টেশনে একযোগে আক্রমণ করা হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের আকস্মিক আক্রমণে পাকিস্তানি শিবিরে ধস নামে এবং একমাত্র জিলা স্কুল অবস্থান থেকে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সক্ষম হয় পাকিস্তানি বাহিনী। বাহ্মণবাড়িয়াতে পাকিস্তানি বাহিনী বিমান হামলা চালায়, এতে একজন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন।

 

 

Developed By The IT-Zone