ঢাকাসোমবার , ২৩ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

২৩ মার্চ ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
মার্চ ২৩, ২০২০ ১০:১০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।।

একাত্তরের এদিন ছিল পাকিস্তান প্রজাতন্ত্র দিবস। কিন্তু সেদিন ঢাকার প্রেসিডেন্ট ভবন ও সেনাবাহিনীর সদর দপ্তর ছাড়া বাংলাদেশে আর কোথাও পাকিস্তানের জাতীয় পতাকা ওড়েনি। বঙ্গবন্ধু আওয়ামী লীগের স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর সদস্যদের সামরিক কায়দায় অভিবাদনের মধ্য দিয়ে তার বাসভবনে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন। এর আগে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে সংগঠনের প্রেসিডেন্ট নূরে আলম সিদ্দিকী এই পতাকা আনুষ্ঠানিকভাবে বঙ্গবন্ধুর হাতে তুলে দেন। পতাকা উত্তোলনের সময় গান ফায়ারিং করেন স্বাধীন বাংলা নিউক্লিয়াসের সদস্য ও জয় বাংলা বাহিনীর উপপ্রধান কামরুল আলম খসরু। এই বাহিনীর পাঁচ শতাধিক সদস্য সামরিক কায়দায় স্বাধীন বাংলার পতাকা নিয়ে মিছিল করে সারা ঢাকা শহরে। ছাত্রী মিছিলের নেতৃত্ব দেন মমতাজ বেগম। জয় বাংলা বাহিনীর পাঁচ শতাধিক সদস্য প্যারেড করে বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে যান। বঙ্গবন্ধুকে তারা সেখানে অভিবাদন জানান। বঙ্গবন্ধু সালাম গ্রহণ শেষে জয় বাংলা বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশে সংক্ষিপ্ত ভাষণে বলেন, বাংলার মানুষ কারো করুণার পাত্র নয়। আপন শক্তির দুর্জয় ক্ষমতাবলেই আপনারা স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনবেন। বাংলার জয় অনিবার্য। আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ ও ড. কামাল হোসেন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা বিচারপতি এ আর কর্নেলিয়াস, লে. জেনারেল পীরজাদা, এম এ আহমেদ কর্নেল হাসানের সঙ্গে দুপুর এবং বিকালে দুই দফায় দুই ঘণ্টা স্থায়ী বৈঠকে মিলিত হন। রণপ্রস্তুতির ষড়যন্ত্রের জাল বুনতে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া সকাল সাড়ে ১১টায় কুর্মিটোলা ক্যান্টনমেন্টে যান কঠোর সেনাপ্রহরায়। প্রায় সাড়ে ৪ ঘণ্টাকাল অবস্থানের পর জেনারেল ইয়াহিয়া ক্যান্টনমেন্ট ত্যাগ করে স্বীয় ভবনে প্রত্যাবর্তন করেন। পরবর্তী তথ্য-প্রমাণাদিতে জানা গেছে, ঐ বৈঠকেই অপারেশন সার্চলাইট পরিকল্পনার চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয় এবং পরিকল্পনার দুজন প্রণেতা ব্যক্তিগতভাবে ঢাকার বাইরে ব্রিগেড কমান্ডারদের করণীয় সম্পর্কে নির্দেশ পৌঁছে দিতে ২৪ মার্চ হেলিকপ্টারযোগে তাদের কাছে যান। পশ্চিম পাকিস্তান থেকে আগত অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদ-বোঝাই জাহাজ এমভি সোয়াত থেকে অস্ত্র খালাস করতে অস্বীকৃতি জানায় বন্দর শ্রমিকরা। এসব অস্ত্রশস্ত্র বাঙালিদের বিরুদ্ধেই ব্যবহার করা হবে মনে করে তারা প্রতিরোধ গড়ে তোলে। শেষে সিদ্ধান্ত হয় যে, জাহাজ থেকে মালামাল খালাস করা হবে, তবে তা ক্যান্টনমেন্টে নিয়ে যেতে দেওয়া হবে না। বন্দরের ট্রানজিট ক্যাম্পেই রাখা হবে।

Developed By The IT-Zone