ঢাকাশুক্রবার , ২০ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

২০ মার্চ ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
মার্চ ২০, ২০২০ ৯:৫৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক
নির্বাহী সম্পাদক

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রাক্তন নৌসেনাদের এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে তারা বঙ্গবন্ধুর ঘোষিত মুক্তিসংগ্রামের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেন এবং স্বাধীনতা সংগ্রামে সহযোগিতা করার জন্য একটি সম্মিলিত মুক্তিবাহিনী কমান্ড গঠনের জন্য সশস্ত্র বাহিনীর প্রাক্তন বাঙালি সৈনিকদের প্রতি আহবান জানান। সকালে কঠোর সামরিক প্রহরা পরিবেষ্টিত রমনার প্রেসিডেন্ট ভবনে বঙ্গবন্ধু ও প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের মধ্যে চতুর্থ দফা আলোচনা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী, খন্দকার মোশতাক আহমদ, এ এইচ এম কামারুজ্জামান ও ড. কামাল উপস্থিত ছিলেন। ইয়াহিয়ার পক্ষে ছিলেন পীরজাদা, কর্নেলিয়াস ও কর্নেল হাসান। প্রায় সোয়া দুই ঘণ্টা আলোচনা শেষে বঙ্গবন্ধু প্রেসিডেন্ট ভবন থেকে বের হয়ে এসে দেশি-বিদেশি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আলোচনায় কিছুটা অগ্রগতি হয়েছে।’ তিনি এর বেশি কিছু বলতে অপারগতা জানিয়ে বলেন, ‘সময় এলে অবশ্যই আমি সবকিছু বলব।’ এদিন ছাত্র ইউনিয়ন গণবাহিনীর প্রায় পাঁচশত সদস্য-সদস্যা রাজধানীর রাজপথে মার্চপাস্ট করে। রাইফেলবাহী এই গণবাহিনীর মার্চপাস্টের সময় পথের দুই পাশে হাজার হাজার নাগরিক করতালির মাধ্যমে বাংলার এই যুবশক্তিকে অভিনন্দন জানায়। রাতে এক বিবৃতিতে বঙ্গবন্ধু বলেন, মুক্তি অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত সংগ্রাম চলবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ আজ বিশ্ব দরবারে একটি অনুপ্রেরণাদায়ী দৃষ্টান্ত। সুপ্রিম কোর্টের প্রখ্যাত আইনজীবী ও আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম কৌঁসুলি এ কে ব্রোহি সকালে করাচি থেকে ঢাকায় আসেন। ভুট্টো করাচিতে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তিনি লন্ডন পরিকল্পনা, যা ১৯৬৯ সালে লন্ডনে বসে শেখ মুজিব, খান আবদুল ওয়ালী খান ও মিয়া মমতাজ মোহাম্মদ খান দৌলতানা কর্তৃক প্রণীত, তা মানবেন না। তিনি বলেন, ঐ পরিকল্পনা আওয়ামী লীগপ্রধান কর্তৃক ঘোষিত ৬ দফার ভিত্তিতেই করা হয়েছে।

 

Developed By The IT-Zone